বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
নতুন সড়ক পরিবহন আইন কার্যকরের ‘বিরোধিতায়’ ১১ জেলায় বাস চালানো বন্ধ  » «   নগরীতে ৪৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে পিয়াজ, ক্রেতাদের দীর্ঘ লাইন  » «   বলিভিয়ার অশান্তির নেপথ্যে ‘সাদা সোনা’, যা পরবর্তী বিশ্বের আকাঙ্ক্ষিত বস্তু  » «   আবরার হত্যা: পলাতক চারজনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি  » «   ‘অপকর্মে’ সংকুচিত দ. কোরিয়ার শ্রমবাজার  » «   ৩০০ টাকার পিয়াজ সরকারের দিনবদলের সনদ: ডাকসু ভিপি নুর  » «   অযোধ্যা রায় পুনর্বিবেচনার আবেদন করছে মুসলিমরা  » «   ভাঙছে শরিক দল সঙ্কটে ঐক্যফ্রন্ট  » «   হলি আর্টিসান হামলা: রায় ২৭ নভেম্বর  » «   চাকা ফেটেছে নভোএয়ারের, ভাগ্যগুণে বেঁচে গেলেন ৩৩ যাত্রী  » «   হাত-পা ছাড়াই মুখে ভর করে লিখে পিইসি দিচ্ছে লিতুন  » «   প্রধানমন্ত্রীকে দেয়া বিএনপির চিঠিতে আবরার হত্যার বর্ণনা  » «   ১৫০ যাত্রী নিয়ে মাঝ আকাশে বিপাকে ভারতীয় বিমান, রক্ষা করল পাকিস্তান  » «   বিমান ছাড়াও ট্রেন, ট্রাক, বাসে করে আসছে পেঁয়াজ: সিলেটে পরিকল্পনামন্ত্রী  » «   চুক্তির তথ্য জানতে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দিল বিএনপি  » «  

হাজীদের নিয়ে হ-য-ব-র-ল অবস্থা?



অনলাইন ডেস্ক:: প্রতিবছরের মতো এবারও বিপাকে পড়তে হয়েছে হজে গমনেচ্ছুকদের। ফ্লাইট বিপর্যয়, ই-ভিসা জটিলতাসহ বিভিন্ন কারণে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে হজযাত্রীদের। আর একের পর এক ফ্লাইট বাতিল হওয়ায় সরকারকে হারাতে হচ্ছে কোটি কোটি টাকার রাজস্ব। এদিকে ভিসা সংক্রান্ত জটিলতা নিরসনে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে হজ এজেন্সিগুলোকে দুই দিনের আল্টিমেটাম দেওয়া হয়েছে।
অন্যদিকে হজ এজেন্সিজ এসোসিয়েশন অফ বাংলাদেশের (হাব) কর্মকর্তারা বলছেন, নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই পরিস্থিতি সামলে নিতে পারবেন বলে আশা করেছেন। কিন্তু তারপরেও প্রশ্ন থেকে যায়, প্রতিবছর হজ নিয়ে কেন হ-য-ব-র-ল পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়?
জানা গেছে, এখনও ৪৮ হাজার হজ গমনেচ্ছুক ভিসা পাননি। আর গতকাল ৮ আগস্ট পর্যন্ত ৫ হাজার ১১৭ জন যাত্রীর ভিসা আবেদনই জমা দেয়নি ২৮টি হজ এজেন্সি। অথচ আর মাত্র নয় দিন পর ভিসা দেওয়া বন্ধ করে দেবে সৌদি সরকার। এমন পরিস্থিতিতে ভিসা আবেদন জমা দেওয়ার জন্য দুইদিনের সময় বেঁধে দিয়েছেন ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান।
৮ আগস্ট দুপুরে আশকোনা হজ ক্যাম্পে হজের সর্বশেষ পরিস্থিতি নিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও হজ এজেন্সির মালিকদের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি বলেন, ‘একজন হজযাত্রীও হজ ক্যাম্পে থাকবেন না। সবাই সময় মতোই হজে যাবেন। কিছু এজেন্সি সময় মতো রিপোর্ট না করায় এ সমস্যা হয়েছে। তাদের কঠোর নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। আমরা খোঁজ নিয়ে জানতে পেরেছি, কিছু এজেন্সি বেশি লাভের আশায় এমনটি করেছে। ৪৮ ঘণ্টার মধ্যেই এ সমস্যার সমাধান হবে বলে তিনি আশা করেন। বৃহস্পতিবার থেকে আর কোনো হজযাত্রীর দুর্ভোগ থাকবে না।’
এদিকে বুধবারও যাত্রী সংকটে দুটি হজ ফ্লাইট বাতিল হয়েছে। এ নিয়ে এ পর্যন্ত মোট হজ ফ্লাইট বাতিল হয়েছে ২৩টি, তার মধ্যে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ১৯টি ও সৌদি এয়ারলাইন্সের চারটি ফ্লাইট। ফ্লাইট বাতিল হওয়ায় হজ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে আট হাজারেরও বেশি মানুষের।
চলমান সংকট প্রসঙ্গে হাবের সহ-সভাপতি মোহাম্মদ শাহ আলম বলেন, ‘এটা প্রতিবছরই এমনটা হয়। এবার একটু বেশি হয়েছে। প্রতিবছর সৌদি সরকার নতুন নতুন সিস্টেম করে, যাতে আমাদের অভ্যস্ত হতে সময় লেগে যায়। আমার অতীত অভিজ্ঞতা বলে আমরা এ সংকট কাটিয়ে উঠতে পারব। যেসব এজেন্সি থেকে এখনও ভিসা আবেদন করা হয়নি, তারা আশকোনা হজ ক্যাম্পে আছেন, সেখান থেকে ভিসা আবেদনের প্রক্রিয়া চালিয়ে যাচ্ছেন।’
‘আর যেসব পেন্ডিং আছে সেগুলোও নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই পাওয়া যাবে। এটা নিয়ে চিন্তা করার কিছু নাই। যেমনটা আশংকা করা হচ্ছে, ৪০ হাজার যাত্রীর হজ অনিশ্চিত, আমি মনে করি এমনটা হবে না’, বলেন তিনি।
হয়তো কোনো কারণে কিছু সংখ্যক যাত্রীর হজে না যাওয়া হতে পারে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।
এদিকে টিকিট থাকা সত্বেও যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে ই-ভিসার প্রিন্ট সংগ্রহ করতে না পারায় আটকা পড়ছেন অনেকে। শিডিউল অনুযায়ী, আগামী ২৬ আগস্ট পর্যন্ত হজ ফ্লাইটের চালু থাকবে। এর মধ্যে ১৭ দিনে বিমান বাংলাদেশ ও সৌদি এয়ারলাইন্সকে বাংলাদেশ থেকে ৮৪ হাজার যাত্রীকে পরিবহন করতে হবে। এত অল্প সময়ে বিপুল সংখ্যক যাত্রী পরিবহন করা এয়ারলাইন্স সংস্থা দুটির পক্ষে সম্ভব হবে কিনা তা নিয়ে প্রচণ্ড সংশয় রয়েছে।
এরপরেও আশা ছাড়তে নারাজ হাবের মহাসচিব এম. শাহাদাত হোসাইন তসলিম। তিনি প্রিয়.কম-কে বলেন, ‘হজ একটি জটিল বিষয়। এর জন্য একটা বিরাট কর্মযজ্ঞ সম্পন্ন করতে হয়। যেসব হজ ফ্লাইট বাতিল হয়েছে, তার বেকাপ আছে। যাদের ভিসা এখনও হয়নি উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নাই ১৭ আগস্ট পর্যন্ত ভিসা দেওয়া হবে। এর মধ্যেই সবাই ভিসা পেয়ে যাবেন।’
ধর্মমন্ত্রীর আল্টিমেটামের ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘যে ২৮টা এজেন্সি ভিসা আবেদন করেনি বলা হচ্ছে আজকে ৬টা এজেন্সি বাদে সবগুলো থেকে ভিসা আবেদন করা হয়েছে।’
তিনি বলেন, ‘আমরা ভিসা নিয়ে উদ্বিগ্ন না। আমরা মূলত হজযাত্রীদের পরিবহন নিয়ে শঙ্কায়। শেষের দিকে হজ যাত্রীদের জন্য বাড়তি হজ ফ্লাইটের জন্য জেদ্দা বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করা হয়েছে।’
চলতি বছর বাংলাদেশ থেকে হজ পালন করতে সৌদি আরবে যাবেন ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন। অথচ একের পর এক ফ্লাইট বাতিল হওয়ায় গত ১৭ দিনে ৪০ কোটি টাকার রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হয়েছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। ৯ আগস্ট বুধবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে সংস্থাটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোসাদ্দেক আহমেদ বলেন, ‘এটাকে লস বলা যায় না। এটা রাজস্ব বঞ্চিত হওয়া। তবে অতিরিক্ত ১৪টি স্লটে হজযাত্রীদের জন্য ব্যবস্থা করা হচ্ছে।‘
এর মধ্যে সাতটি স্লট ব্যবহার করা যাবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।
আর এভাবেই হজ ব্যবস্থাপনায় সংশ্লিষ্টদের আশায় ঝুলে আছে এবার হজযাত্রীদের ভাগ্য। তবুও বছরের পর বছর চলে যাচ্ছে কিন্তু হজ ব্যবস্থাপনায় আসছে না ইতিবাচক কোনো পরিবর্তন। এসব বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি মোকাবেলা করাই যেন হয়ে উঠেছে হজযাত্রীদের জন্য অপরিবর্তনীয় নিয়ম।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: