বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১৩ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
যেভাবে আরবদের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেতা হয়ে উঠেছেন এরদোগান  » «   উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় নার্সকে মেরে ফেলল বখাটে  » «   সড়কে নামাজ ঠেকাতে রাস্তায় বসে বিজেপির মন্ত্র পাঠ  » «   খুনির সঙ্গে রিফাতের স্ত্রী মিন্নির ‘সম্পর্কের তথ্য’ ফাঁস  » «   প্রাথমিকের শিক্ষক বদলির নীতিমালায় ফের পরিবর্তন।  » «   রিফাতের হত্যাকারীদের গ্রেফতারের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর  » «   মুসলিম যুবককে হত্যার ঘটনায় উত্তাল ভারত, বিচারের আশ্বাস দিলেন মোদী  » «   টিম ইন্ডিয়ার কমলা জার্সি নিয়ে চলছে রাজনীতি  » «   ভারতীয় এমপির যে ভাষণে উত্তাল স্যোশাল মিডিয়া  » «   দুই প্রকৌশলীকে পেটালেন আওয়ামী লীগ-ছাত্রলীগ নেতারা  » «   সিলেটে বিদেশী মদসহ ৪ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার  » «   রেল লাইন সংস্কারের দাবিতে শাহবাগে সিলেটি শিক্ষার্থীদের মানববন্ধবন  » «   আসামে নাগরিক তালিকা থেকে বাদ পড়লেন আরও এক লাখ  » «   বিশ্বনাথে ডাকাতের সঙ্গে গোলাগুলি, ৫ পুলিশ গুলিবিদ্ধ  » «   প্রাথমিকে চলতি দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষকদের জন্য সুখবর  » «  

হবিগঞ্জ সদর হাসপাতাল: বিশ্রামে চিকিৎসক, রোগী দেখছেন ইন্টার্নরা!



নিউজ ডেস্ক:: হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে অভিযান পরিচালনা করেছেন বাংলাদেশ দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এ সময় হাসপাতালের বিভিন্ন অব্যবস্থাপনা দেখে ক্ষোভ প্রকাশ করেন দুদক কর্মকর্তারা। একই সাথে ৭ দিনের মধ্যে সকল সমস্যা সমাধান করার নির্দেশ প্রদান করেন তারা।

রোববার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত এ অভিযান পরিচালনা করেন বাংলাদেশ দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) হবিগঞ্জের সহকারি পরিচালক মোহাম্মদ এরশাদ। এ সময় তার সাথে দুদকের আরো দুইজন কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।

জানা যায়, রোববার সকালে সিভিল পোষাকে হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে অবস্থান নেন বাংলাদেশ দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) হবিগঞ্জ কার্যালয়ের তিনজনের একটি দল। এ সময় দুদক কর্মকর্তারা হাসপাতালে কোন ডাক্তার পাননি।

তারা দেখেন, সেখানে রোগীদের চিকিৎসা দিচ্ছেন ইন্টার্ন চিকিৎসকরা। সেখানে ঘন্টাখানেক অবস্থান করার পর কোন ডাক্তারের দেখা না পেয়ে ফিরে যান দুদক কর্মকর্তারা। কিছুক্ষণ পর নিজেদের পোষাক পরে আবারো তারা (দুদক কর্মকর্তা) সদর হাসপাতালে অভিযান চালান।

এ সময়ও ইমার্জেন্সি বিভাগে কোন ডাক্তার ছিলেন না। দায়িত্বপ্রাপ্তরা জানান, ইমার্জেন্সি বিভাগে ডাক্তার তার নিজ রুমে বিশ্রাম করছেন। পরে সেখানে গিয়ে ডাক্তার মিঠুর রায়কে পান দুদক কর্মকর্তারা।

এ ব্যাপারে ডাক্তার মিঠুন রায় দুদক কর্মকর্তাদের জানান, তিনি সেখানে কয়েকজন রোগীর ছাড়পত্র লিখছিলেন। পরে দুদক টিম সদর হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ড ঘুরে বিভিন্ন অব্যবস্থাপনা দেখতে পান। এছাড়া সরকারি ঔষধ বিতরণে বিভিন্ন অনিয়ম পান তারা। একই সাথে হাসপাতালের বিভিন্ন সংকটও দুদক কর্মকর্তাদের নজরে আসে। এ ব্যাপারে সকল সমস্যা সমাধান করতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে ৭ দিনের সময় দিয়ে যান দুদক।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ দুর্নীতি দমন কমিশন হবিগঞ্জ কার্যালয়ের সহকারি পরিচালক মোহাম্মদ এরশাদ বলেন, সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত আমরা হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে ছিলাম। সেখানে বিভিন্ন অনিময় পাওয়া গেছে। দ্রুত সকল সমস্যা সমাধানের জন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: