সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ২ পৌষ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
লন্ডনে দ্বিতীয় জনপ্রিয় ভাষা বাংলা  » «   ঘুষের টাকাসহ হাতেনাতে সাব-রেজিস্ট্রার আটক  » «   আর কোনো হায়েনার দল বাংলার বুকে চেপে বসতে পারবে না  » «   সিলেটে মুক্তিযুদ্ধের পাণ্ডুলিপি সংগ্রহ করলেন প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী  » «   ফের জাতীয় পার্টির ঢাকা জেলা শাখার সভাপতি সালমা ইসলাম এমপি  » «   বিয়ানীবাজারে ৯৯০ পিস ইয়াবাসহ পেশাদার মাদক ব্যবসায়ী আটক  » «   আয়কর দিবস উপলক্ষে সিলেটে বর্ণাঢ্য র‌্যালি  » «   এবার শ্রীমঙ্গলে ট্রেনের ইঞ্জিনে আগুন  » «   বেলজিয়ামে মসজিদে তালা দেওয়ায় বাংলাদেশিদের প্রতিবাদ  » «   পায়রা উড়িয়ে জাতীয় পার্টির ঢাকা জেলা শাখার সম্মেলন উদ্বোধন  » «   ভারতের অর্থনীতির দুরবস্থা, জিডিপি কমে সাড়ে ৪ শতাংশ  » «   পায়রা উড়িয়ে সম্মেলন উদ্বোধন করলেন শেখ হাসিনা  » «   লন্ডন ব্রিজে আবারও সন্ত্রাসী হামলা, নিহত ২  » «   চীন থেকে মা-বাবার জন্য পেঁয়াজ নিয়ে এলেন মেয়ে  » «   রক্তে ভাসছে ইরাক, নিহত ৮২  » «  

স্মৃতিতে ভাস্বর গ্রেট মোহাম্মদ আলী



r1মোহাম্মদ আব্দুর রশিদ

সালটা ১৯৮৯ সাফ গেমসের আসর বসেছে পাকিস্তানের রাজধানী ইসলামবাদ শহরে।মুষ্টিযুদ্ধে জাতীয় চ্যাম্পিয়ন হিসেবে দলে জায়গা করে নিলাম। মনের মধ্যে অনকে স্বপ্ন আশা আকাংখা ছিল একদিন দেশের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করবো পদক জিতবো লাল সবুজ পতাকাকে বিশ্বের মাজে পরিচিত করবো।নির্ধারিত দিনে যথা সময়ে আমরা ইসলামবাদ পৌঁছলাম। আমাদের জন্য নির্ধারিত হোটেলে উঠলাম। একদিকে ভ্রমণের ধকল তার উপর নতুন পরিবেশ সব কিছু ঠিক থকা করতে করতে অনেক  রাতে ঘুমাতে গেলাম। সকাল হতে না হতেই রুমে কড়া নাড়ার শব্ধ।  বিরক্তি সহকারে রুমের দরজা খুল্লাম। দরজা খুলতেই দেখালাম হোটেল কতৃপক্ষের লোক। জিগ্যেস করলাম কারণ কি ভাই এত সকাল সকাল কড়া  নাড়া?আমরাতো কোনো  কিছু অর্ডার করিনি। হোটেলের লোকটি বললো তোমাদের জন্য একজন অপেক্ষা করছেন লবিতে। জিজ্ঞাসা  করলাম এত সকাল সকাল কে আবার আমারতো  কাউকে সময় বা দাওয়াত দিইনি যে এত সকাল সকাল চলে আসবে।এরপর লোকটা যা বললো তাতে তাজ্জব নয় শুধু, আমি লোকটাকে বললাম তুমি কি কাল রাতে একটু বেশি খেয়ে পেলেছ? সে বললো না আমি ওসব খাইনা।সত্যি সত্যি মোহাম্মদ আলী তোমাদের সাথে দেখা করতে লবিতে অপেক্ষা করছেন।r2তাতেও আমার বিশ্বাস হলোনা আমি আমাদের টীম লিডার এর সাথে ইন্টার কমের মাধ্যমে কথা বললাম উনিও কিছু জানেনা বলে জানালেন, তবে বললেন গিয়ে দেখে আসো কে আসছে।যে  কথা সেই কাজ ঘুমের ড্রেস পরেই লবিতে গিয়েতো আমি সত্যিই  তাজ্জব বনে গেলাম, একি লম্বা চওডা কালো এক ভদ্রলোক , ইনিই যে  গ্রেট মোহামদ আলী আমার সামনে দাডিয়ে, নিজেকে নিজেই বিশ্বাস করতে পারছিলামনা।যাকে দেখার আজন্ম সাধ উনিই যে  সয়ং হাজির। এর পর সবাইকে ডাকলাম লবিতে, দলের সবাই মিলে কথা বললাম হাতে হাত রেখে ছবি তুললাম সে এক অন্য রকম অনুভুতি। উনার আচার আচরণ  কথা বার্তায় কখনই মনে হয়নি ইনিই সেই লোক যে তিন তিনাবের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন গ্রেট দের গ্রেট মোহাম্মদ আলী।

r3কথা প্রসঙ্গে  মোহাম্মদ আলী বললেন তার  পাকিস্তান সফর সুধুই বাংলাদেশের প্রতি ভালোবাসা,  তার প্রতিষ্ঠিত বক্সিং ফেডারেশন এর ভাইদের সাথে দেখা করা তাদর পদক প্রাপ্তিতে উত্সাহিত করা।তিনি আরো জানালেন বাংলাদেশ টীম যে হোটেলে উঠেছে সেখানেই যেন তার থাকার আয়োজন করা হয়, তাতে উনি  উনার  ভালবাসার মানুষদের কাছাকাছি থাকতে পারবেন।কারণ বাংলাদেশ যে তারই দেশ যাকে তিনি স্বর্গ মনে করেন। গ্রেটরা আসলেই এই রকমেই হয়।

লেখক পরিচিতি: সাবেক জাতীয় বক্সিং চ্যাম্পিয়ন

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: