শুক্রবার, ১৭ জানুয়ারী ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ মাঘ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
লন্ডনে দ্বিতীয় জনপ্রিয় ভাষা বাংলা  » «   ঘুষের টাকাসহ হাতেনাতে সাব-রেজিস্ট্রার আটক  » «   আর কোনো হায়েনার দল বাংলার বুকে চেপে বসতে পারবে না  » «   সিলেটে মুক্তিযুদ্ধের পাণ্ডুলিপি সংগ্রহ করলেন প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী  » «   ফের জাতীয় পার্টির ঢাকা জেলা শাখার সভাপতি সালমা ইসলাম এমপি  » «   বিয়ানীবাজারে ৯৯০ পিস ইয়াবাসহ পেশাদার মাদক ব্যবসায়ী আটক  » «   আয়কর দিবস উপলক্ষে সিলেটে বর্ণাঢ্য র‌্যালি  » «   এবার শ্রীমঙ্গলে ট্রেনের ইঞ্জিনে আগুন  » «   বেলজিয়ামে মসজিদে তালা দেওয়ায় বাংলাদেশিদের প্রতিবাদ  » «   পায়রা উড়িয়ে জাতীয় পার্টির ঢাকা জেলা শাখার সম্মেলন উদ্বোধন  » «   ভারতের অর্থনীতির দুরবস্থা, জিডিপি কমে সাড়ে ৪ শতাংশ  » «   পায়রা উড়িয়ে সম্মেলন উদ্বোধন করলেন শেখ হাসিনা  » «   লন্ডন ব্রিজে আবারও সন্ত্রাসী হামলা, নিহত ২  » «   চীন থেকে মা-বাবার জন্য পেঁয়াজ নিয়ে এলেন মেয়ে  » «   রক্তে ভাসছে ইরাক, নিহত ৮২  » «  

স্টেশনে যাত্রীদের পথ-পরামর্শ দিচ্ছে কৃত্রিম বুদ্ধির দুই রোবট



তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক:: জাপানের টোকিও স্টেশনে যাত্রীদের গাইড করতে পরীক্ষামূলক কাজ শুরু করেছে দুই কৃত্রিম বুদ্ধির রোবট। দেশটির ইস্ট জাপান রেলওয়ে কম্পানি পরীক্ষামূলক কাজটি পরিচালনা করছে।

কৃত্রিম বুদ্ধির রোবট দুটি হলো জাপানের সফটব্যাঙ্ক রোবোটিক্স করপোরেশনের ‘পিপার’ এবং জার্মান রেলওয়ে কম্পানির ‘সেমি’ (এসইএমএমআই)। রোবট দুটি স্টেশনের বেসমেন্ট শপিং-এর ইনফরমেশন ডেস্ক এবং গ্রানস্টা নামের ডাইনিং সেন্টারে স্থাপন করা হয়েছে।

জাপানি, ইংরেজি ও চীনাসহ বিভিন্ন ভাষায় ভিজিটররা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার দুই রোবটের কাছ থেকে নির্দেশনা নিতে পারবে। আগামী ৩১ মে পর্যন্ত এই পরীক্ষামূলক কাজ চলবে। এই সময় রোবট মেশিনের সক্ষমতা এবং সাহায্য প্রার্থী যাত্রীদের প্রতিক্রিয়া পর্যবেক্ষণ করবেন সংশ্লিষ্টরা।

পিপার জাপানে বহুল ব্যবহৃত একটি আধা মানবগুণ সম্পন্ন রোবট, আর সিএমএমআই বা সেমি হচ্ছে একটি রোবট প্রহরী যা মানুষের মতো দেখতে এবং মানুষের মতো আচরণের অধিকারী।

চিসা উনো (৪৪) একজন জাপানি গৃহবধূ। শপিংয়ের বাইরে এসে থেকে গেলেন তিনি। তারপর টোকিও টাওয়ারের নির্দেশনা পেতে সেমিকে জিজ্ঞেস করলেন। জবাবে বিনত ভঙ্গিমায় মাথা নামিয়ে সেমি বললেন, ‘ক্ষমা করবেন, আমি বলতে পারবো না। কারণ এ বিষয়ে আমার যথেষ্ট জানাশোনা নেই।’

কথোপকথন সম্পর্কে উনো বলেন, ‘বিষয়টি লজ্জাজনক, কিন্তু আমার মনে হয়েছে যে এটি কথোপকথন চালিয়ে যেতে সর্বোচ্চ কাজ করছে।’ টোকিও স্টেশনে প্রতিদিন সাড়ে চার লাখ যাত্রী আসা-যাওয়া করে।

সূত্র : জাপান টুডে

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: