বুধবার, ১৯ জুন ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
ত্রিশ লাখ শহীদকে চিহ্নিত করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী  » «   খাশোগি হত্যাকাণ্ডে সালমানের জড়িত থাকার ‘বিশ্বাসযোগ্য প্রমাণ’ রয়েছে  » «   পরীক্ষামূলক স্বাস্থ্য বীমা কার্যক্রম শুরু হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী  » «   অসুস্থ আ.ন.ম. শফিককে প্রধানমন্ত্রীর ৫ লক্ষ টাকা অনুদান  » «   কৃষকের ছেলে মুরসি যেভাবে হন মিসরের প্রেসিডেন্ট  » «   বিশ্বজুড়ে অনীহা বাড়লেও টিকায় আস্থার শীর্ষে বাংলাদেশ  » «   একাদশে ভর্তিতে দ্বিতীয় দফায় আবেদন শুরু  » «   ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে ভারী যান চলাচল বন্ধ  » «   নতুন ও হারানো সিমকার্ডে ট্যাক্স ২০০ টাকা  » «   উত্তাল বুয়েট, ভেতরে তালা রাজপথে শিক্ষার্থীরা  » «   রোগী সেজে চেম্বারে ম্যাজিস্ট্রেট, হাতেনাতে ধরা এইচএসসি পাস ডাক্তার  » «   ইমাম বুখারীর মাজার জিয়ারত করলেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ  » «   বিহারে এনসেফালাইটিসে মৃত শিশুর সংখ্যা বেড়ে ১২৯  » «   সিলেট-জগন্নাথপুর সড়কে বন্ধ হয়ে যেতে পারে গাড়ি চলাচল  » «   প্রেমের টানে স্বামী-সংসার ফেলে খুলনায় জার্মান নারী  » «  

স্টেশনে যাত্রীদের পথ-পরামর্শ দিচ্ছে কৃত্রিম বুদ্ধির দুই রোবট



তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক:: জাপানের টোকিও স্টেশনে যাত্রীদের গাইড করতে পরীক্ষামূলক কাজ শুরু করেছে দুই কৃত্রিম বুদ্ধির রোবট। দেশটির ইস্ট জাপান রেলওয়ে কম্পানি পরীক্ষামূলক কাজটি পরিচালনা করছে।

কৃত্রিম বুদ্ধির রোবট দুটি হলো জাপানের সফটব্যাঙ্ক রোবোটিক্স করপোরেশনের ‘পিপার’ এবং জার্মান রেলওয়ে কম্পানির ‘সেমি’ (এসইএমএমআই)। রোবট দুটি স্টেশনের বেসমেন্ট শপিং-এর ইনফরমেশন ডেস্ক এবং গ্রানস্টা নামের ডাইনিং সেন্টারে স্থাপন করা হয়েছে।

জাপানি, ইংরেজি ও চীনাসহ বিভিন্ন ভাষায় ভিজিটররা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার দুই রোবটের কাছ থেকে নির্দেশনা নিতে পারবে। আগামী ৩১ মে পর্যন্ত এই পরীক্ষামূলক কাজ চলবে। এই সময় রোবট মেশিনের সক্ষমতা এবং সাহায্য প্রার্থী যাত্রীদের প্রতিক্রিয়া পর্যবেক্ষণ করবেন সংশ্লিষ্টরা।

পিপার জাপানে বহুল ব্যবহৃত একটি আধা মানবগুণ সম্পন্ন রোবট, আর সিএমএমআই বা সেমি হচ্ছে একটি রোবট প্রহরী যা মানুষের মতো দেখতে এবং মানুষের মতো আচরণের অধিকারী।

চিসা উনো (৪৪) একজন জাপানি গৃহবধূ। শপিংয়ের বাইরে এসে থেকে গেলেন তিনি। তারপর টোকিও টাওয়ারের নির্দেশনা পেতে সেমিকে জিজ্ঞেস করলেন। জবাবে বিনত ভঙ্গিমায় মাথা নামিয়ে সেমি বললেন, ‘ক্ষমা করবেন, আমি বলতে পারবো না। কারণ এ বিষয়ে আমার যথেষ্ট জানাশোনা নেই।’

কথোপকথন সম্পর্কে উনো বলেন, ‘বিষয়টি লজ্জাজনক, কিন্তু আমার মনে হয়েছে যে এটি কথোপকথন চালিয়ে যেতে সর্বোচ্চ কাজ করছে।’ টোকিও স্টেশনে প্রতিদিন সাড়ে চার লাখ যাত্রী আসা-যাওয়া করে।

সূত্র : জাপান টুডে

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: