শুক্রবার, ১৮ জানুয়ারী ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ মাঘ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
জিয়াউর রহমানের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে কর্মসূচি ঘোষণা  » «   সীমান্তের খালে মিয়ানমারের সেতু, বন্যার আশঙ্কা বাংলাদেশে  » «   দ্বিতীয় কৃত্রিম উপগ্রহ পাঠাবে বাংলাদেশ: শাবিতে পরিকল্পনামন্ত্রী  » «   আতিয়া মহল মামলা: ৫ দিনের রিমান্ডে ৩ আসামি  » «   শেখ হাসিনা হত্যাচেষ্টা মামলা: হাইকোর্টে আপিল শুনানি শুরু  » «   টিআইবির রিপোর্টে সরকার ও ইসির আঁতে ঘা লেগেছে: বিএনপি  » «   মাফিয়াদের স্বর্গরাজ্যে দশ বাংলাদেশির অনন্য সাহসিকতার নজির  » «   ১৪ দলের শরিকদের বিরোধী দলে থাকাই ভালো: ওবায়দুল কাদের  » «   সন্ত্রাস-মাদক-জঙ্গিবাদের মতো দুর্নীতির বিরুদ্ধেও ‘জিরো টলারেন্স’ : প্রধানমন্ত্রী  » «   সংসদ সদস্যদের শপথের বৈধতা নিয়ে রিট খারিজ  » «   কৃত্রিম কিডনি তৈরি করলেন বাঙালি বিজ্ঞানী  » «   ব্রেক্সিট ইস্যু: অনাস্থা ভোটে টিকে গেলেন তেরেসা মে  » «   টিআইবির প্রতিবেদন গ্রহণযোগ্য নয়, পুরোপুরি প্রত্যাখ্যান করি: সিইসি  » «   জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে অফিস করছেন শেখ হাসিনা  » «   সংসদ কার্যকর রাখতেই বিরোধী দলে জাপা : জিএম কাদের  » «  

স্কুল থেকে ৭৮ শিক্ষার্থী অপহরণ



আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: ক্যামেরুনের উত্তর পূর্বাঞ্চলীয় নেকওয়েন গ্রামের এক স্কুল থেকে ৭৮ জন শিক্ষার্থী ও প্রিন্সিপালসহ মোট একাশি জনকে অপহরণ করেছে বন্দুকধারী ব্যক্তিরা।রোববার রাতে দেশটির ইংলিশভাষী অঞ্চলের রাজধানী বামেন্ডার নিকটবর্তী এক স্কুলে এ অপহরণের ঘটনা ঘটে।

ক্যামেরুন সরকার জানিয়েছে, রাজধানীর ‘প্রেসবিটারিয়ান সেকেন্ডারি স্কুল’থেকে অন্তত ৭৮ শিক্ষার্থীকে অপহরণ করা হয়েছে।তাদের প্রত্যেকের বয়স ১০ থেকে ১৪ বছরের মধ্যে। স্কুলের অধ্যক্ষ-সহ আরও তিনজনকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

বিচ্ছিন্নতাবাদীদের উপর গোটা ঘটনার দায় চাপিয়েছেন সেখানকার গভর্নর অ্যাডল্ফ লেলে লা’ফ্রিক। তবে কোনও সংগঠনই এখনও পর্যন্ত এ ঘটনার দায় স্বীকার করেনি।

মধ্য আফ্রিকার অন্তর্গত ক্যামেরুনের উত্তর-পশ্চিম এবং দক্ষিণ-পশ্চিম অংশটি বিদ্রোহী উপদ্রুত বলে পরিচিত। সাম্প্রতিক সময়ে একাধিকবার সরকারের বিরুদ্ধে সক্রিয় হয়েছে তারা।ওই দুই অংশের সংখ্যালঘু বাসিন্দারা মূলত ইংরেজিতেই কথা বলেন। কিন্তু ক্যামেরুন সরকারের তরফে ইংরেজি ভাষাকে স্বীকৃতি দেওয়া হয়নি সেখানে। বরং শিক্ষা এবং আইন ব্যবস্থায় ফরাসি ভাষাকেই আধিপত্য দেওয়া হয়েছে।

তাতেই আপত্তি বিদ্রোহীদের। ‘অ্যাম্বাজনিয়া’ নামে নতুন দেশ গড়তে চায় তারা। যেখানে ইংরেজি হবে রাষ্ট্রভাষা। সেই দাবিতে কয়েক বছর ধরেই তারা প্রতিবাদ জানিয়ে আসছে। যাতে সামিল হয়েছেন আইনজীবী এবং ওই এলাকার শিক্ষাকর্মীরা। ২০১৭ সালে সরকার তা দমন করতে গেলে আন্দোলন সশস্ত্র আকার ধারণ করে।

শিক্ষার্থীদের অপহরণের পিছনে ওই বিদ্রোহীদের কোনও হাত রয়েছে কিনা তা এখনও পর্যন্ত নিশ্চিতভাবে জানা যায়নি।তবে সন্দেহ উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না।এর আগে, গত ১৯ অক্টোবরই ‘আটিয়েলা বাইলিঙ্গুয়াল হাইস্কুল’থেকে পাঁচ শিক্ষার্থীকে অপহরণ করেছিল বন্দুকধারীরা। এখনও পর্যন্ত অপহৃতদের খোঁজ মেলেনি।

সূত্র: আনন্দবাজার

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: