মঙ্গলবার, ২০ অগাস্ট ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
এমপি না হয়েও ল্যান্ড ক্রুজারে শুল্কমুক্ত সুবিধা পেলেন মুহিত  » «   খালেদা জিয়ার জামিনের মেয়াদ বাড়ল এক বছর  » «   নবজাতককে মুখে নিয়ে কুকুরের টানাটনি, উদ্ধার করলেন এসআই  » «   নতুন শ্রমবাজার অনুসন্ধানে উদ্যোগী হতে হবে: প্রবাসীকল্যাণমন্ত্রী  » «   জনগণের সংকট উত্তরণে নতুন নির্বাচনের বিকল্প নেই: ফখরুল  » «   পানি বণ্টনের নতুন ফর্মুলা খুঁজছে বাংলাদেশ-ভারত: জয়শঙ্কর  » «   শেখ হাসিনার ছাত্রলীগে জামায়াতি আঁচড়!  » «   অবশেষে ক্ষমা চাইলেন জাকির নায়েক  » «   অপরাধীদের শাস্তি দ্রুত নিশ্চিত না করায় ধর্ষণ বাড়ছে: হাইকোর্ট  » «   সিলেট-ঢাকা মহাসড়কে ‘স্পিড গান’  » «   কমলাপুর রেলওভার ব্রিজের ত্রুটির চিত্র তুলে ধরলেন ব্যারিস্টার সুমন  » «   জিন্দাবাজারে মিললো ২টি গোখরাসহ ৬ বিষধর সাপ  » «   কাশ্মীর ইস্যুতে আলোচনায় বসছেন ট্রাম্প- মোদী!  » «   মাত্র ১০০ মিটার দূরেই শত্রু  » «   অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্থদের পাশে থাকবে সরকার: কাদের  » «  

সেই প্রিয়া সাহাকে নিয়ে মিললো চাঞ্চল্যকর তথ্য



নিউজ ডেস্ক:: মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশ নিয়ে অদ্ভুত নালিশ করার পর থেকেই ‘টক অব দ্য কান্ট্রি’ প্রিয়া সাহা। তার এই বক্তব্যের পেছনে মূলত উদ্দেশ্যটা কী তা নিয়ে উঠছে নানা প্রশ্ন। পাশাপাশি এই নারীর অতীত নিয়েও বেরিয়ে আসছে একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য।

প্রিয়া সাহার মূল পরিচয় তিনি বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক। বাংলাদেশ মহিলা ঐক্য পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন তিনি। কিন্তু বিভ্রান্তিমূলক কর্মকাণ্ডের জন্য গতবছর তাকে বহিষ্কার করা হয়। শারি নামে একটি এনজিও চালান তিনি। এই এনজিওর মাধ্যমে কোটি কোটি টাকার বিদেশি অনুদান সংগ্রহ করেছেন। সংখ্যালঘুদের উন্নয়নে ওই তহবিল ব্যয়ের কথা থাকলেও সেটা তিনি নিজের পরিবারের উন্নয়নেই খরচ করেছেন।

প্রিয়া সাহা নামে পরিচিত হলেও তার প্রকৃত নাম প্রিয়া বালা বিশ্বাস। এ বছর ১২ জুন তিনি ‘দলিত কণ্ঠ’ নামের একটি মাসিক পত্রিকার ছাড়পত্র নেন। পত্রিকাটির সম্পাদক ও প্রকাশক হিসেবে তার নামই রয়েছে। কোটি কোটি টাকা বিদেশী অনুদান লুটপাটের আশাতেই তিনি এই পত্রিকাটিকে ব্যবহার করতে চাচ্ছেন বলে জানিয়েছে কয়েকটি সূত্র।

‘দলিত কণ্ঠ’ সম্পাদক ও প্রকাশক হিসেবে প্রিয়া সাহা অঙ্গীকারনামায় উল্লেখ করেছেন, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের স্বার্থ বিরোধী কোনো সংবাদ তিনি পরিবেশন করবেন না। কিন্তু পত্রিকাটির ডিক্লারেশন পাওয়ার মাত্র ১ মাসের মধ্যেই তিনি যুক্তরাষ্ট্রে গিয়ে রাষ্ট্র বিরোধী বক্তব্য দিয়ে এসেছেন।

প্রিয়া সাহার বাড়ি পিরোজপুর জেলার নাজিরপুরের চরবানিরী মাটিভাঙ্গা গ্রামে। প্রিয়া তার গ্রামের বাড়িতে লুটপাট ও অগ্নিসংযোগের কথা বলেছেন। অথচ তার গ্রামে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সেখানে সংখ্যালঘু কারও বাড়িতেই এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি।

প্রিয়ার এলাকার কয়েকজন জানালেন, সরকারি দল, বিরোধী দল ও এবং সুশীল সমাজের বিভিন্ন জনের সঙ্গে সুসম্পর্ক রেখে আজকের অবস্থানে পৌঁছেছেন তিনি। দেশাত্ববোধ ও মানবাধিকারের বুলি আওড়ালেও তার মূল লক্ষ্য নিজের আখের গুছিয়ে নেওয়া। তার দুই মেয়েই বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছেন। পরিবারসহ তিনি এখন যুক্তরাষ্ট্রেই স্থায়ী হতে চাইছেন। মূলত একারণেই তিনি নিজের দেশ সম্পর্কে মিথ্যা তথ্য দিয়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। এমনও সন্দেহ করা হচ্ছে যে, রাষ্ট্রবিরোধী কোনো চক্রান্তের অংশ হিসেবেই হয়তো প্রিয়া দেশের সম্পর্কে অদ্ভুত নালিশ করেছেন।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: