বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
শুক্রবার শ্রীলঙ্কার মসজিদে হামলার হুমকি, নিরাপত্তা জোরদার  » «   মোটরসাইকেলে কাভার্ডভ্যানের ধাক্কা, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীর মৃত্যু  » «   প্রেসক্রিপশন ছাড়া অ্যান্টিবায়োটিক বিক্রিতে হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা  » «   নুসরাত হত্যা: তদন্তে বেরিয়ে আসছে পুলিশ কর্মকর্তাদের গাফিলতি  » «   সিলেটের সীমান্ত দিয়ে ঢুকছে রোগাক্রান্ত ভারতীয় গরু  » «   খালেদা জিয়া সরকারের আইনগত সহায়তা পাওয়ার যোগ্য নন: আইনমন্ত্রী  » «   পরীক্ষাকেন্দ্রে ছাত্রীকে যৌন হয়রানি, ইনস্ট্রাক্টর কারাগারে  » «   নিউজিল্যান্ডের পার্মানেন্ট ভিসা পাচ্ছেন মুসলিমরা!  » «   জাফর ইকবাল হত্যাচেষ্টা মামলায় সাক্ষ্য দিলেন মহানগর হাকিম হরিদাস কুমার  » «   কান্নাজড়িত কণ্ঠে স্ত্রী-সন্তান হারানোর বর্ণনা দিলেন সুদেশ  » «   বহুদিন গোসল না করে অফিস করেছি: স্থানীয় সরকারমন্ত্রী  » «   দল বহিষ্কার করতে পারে জেনেই শপথ নিয়েছি: জাহিদুর রহমান  » «   এবার শ্রীলঙ্কায় আদালতের পাশে বোমা বিস্ফোরণ  » «   কবরের জন্য জমি চাইলে বন্দেমাতরম বলতেই হবে: বিজেপি  » «   এবার শপথ নিচ্ছেন বিএনপির জাহিদুর  » «  

সিলেটে নির্মাণ হতে যাচ্ছে স্মৃতিসৌধ,পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ডিও লেটার



নিউজ ডেস্ক:: সিলেটে স্মৃতিসৌধ নির্মাণের দাবির সাথে একাত্মতা জানিয়ে সিলেট-১ আসনের সংসদ সদস্য ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন গণপূর্তমন্ত্রীকে একটি ডিও লেটার বা পত্র দিয়েছেন। মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি সংরক্ষণে গুরুত্বারোপ উল্লেখ করে ওই পত্রে মন্ত্রী বলেন, মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে পাক বাহিনীর মর্টারের গোলার আঘাতে সিলেটের হাফিজ ভবন ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

এর আশেপাশে একটি স্মৃতিসৌধ বা স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণে সিলেট সিটি করপোরেশনের বেদখল হয়ে থাকা ভূমিকে ব্যবহারের জন্যে অনুরোধ জানান মন্ত্রী।পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আবদুল মোমেনের ব্যক্তিগত সহকারী জাবেদ সিরাজ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।স্মৃতিসৌধ নির্মাণের এ উদ্যোগের খবরে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন সিলেটের বিশিষ্টজনেরা।

সিলেট সম্মিলিত নাট্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রজত কান্তি গুপ্ত জানান, সিলেটে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণের দাবি আমাদের দীর্ঘদিনের। সিলেটে বিভিন্ন জাতীয় দিবসকে ঘিরে যত কর্মসূচি হয় তার সবই শহীদ মিনার কেন্দ্রিক। একটি স্মৃতিসৌধ নির্মিত হলে আমরা নির্দিষ্ট দিবসে নির্দিষ্ট স্থানে শ্রদ্ধা জ্ঞাপনের সুযোগ পেতাম। তাছাড়া মুক্তিযুদ্ধে সিলেটের অবদান বিশাল। আর তাই মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি স্মরণে একটি সৌধ নির্মাণ করা একান্ত প্রয়োজন।

তিনি আরও বলেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এই উদ্যোগকে আমরা স্বাগত জানাই। আমরা আশা করি এবার আর কাগজপত্রে নয় এই দাবির বাস্তব রূপ আমরা দেখতে পারবো।তবে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণে স্থান নির্বাচন একটি বড় অন্তরায় হতে পারে বলে মনে করেন সিলেট মহানগর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ভবতোষ রায় বর্মণ।

তিনি বলেন, সিলেটে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিসৌধ নির্মাণ হলে তা হবে আমাদের জন্য গর্বের। আমরা দীর্ঘদিন থেকেই এই দাবি উত্থাপন করে আসছি। পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এই উদ্যোগ নি:সন্দেহে একটি ভালো উদ্যোগ। আশা করা যায় অচিরেই তা বাস্তবায়িত হবে।

তিনি আরও বলেন, আমাদের দীর্ঘদিনের এই দাবির প্রেক্ষিতে একাধিকবার উদ্যোগী হলেও স্থান নির্ধারণ করতে না পারায় আর হয়ে ওঠেনি। স্মৃতিসৌধটি যেন শহরের প্রাণকেন্দ্রে নির্মাণ করা হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। এজন্য তিনি পুরাতন কারা ভবনের স্থানকে নির্বাচনের জন্য উপযুক্ত মনে করেন।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: