বৃহস্পতিবার, ২১ জুন ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
পাবনায় ছাত্রদলের কমিটি বাতিল এবং যোগ্য ও মেধাবীদের নিয়ে নতুন কমিটির দাবিতে বিভিন্ন ইউনিটের নেতৃবৃন্দের পদত্যাগ  » «   পবিত্র হজকে রাজনীতির হাতিয়ার বানিয়েছে সৌদি  » «   চুয়াডাঙ্গায় সাপের কামড়ে বৃদ্ধার মৃত্যু  » «   সিটি নির্বাচন ১৭ প্রার্থীর সাক্ষাৎকার নিয়েছে বিএনপি  » «   বৃদ্ধ মাকে মারধর, যে পরিণাম হল সন্তানের  » «   এমপিপুত্র শাবাবকে ‘শনাক্তে’ পুলিশের হাতে সিসিটিভি ফুটেজ  » «   জেনে নিন শাওয়াল মাসের ছয়টি রোজার ফজিলত  » «   মৃত্যুভয়ে ১১ তলা পাইপ বেয়ে নামে শিশুটি  » «   বিএনপির কর্মীরা এখন ঢাকায় রিকশা চালায় : ফখরুল  » «   দীপিকা-রণবীরের বিয়ের দিনক্ষণ ফাঁস!  » «   জনপ্রিয়তা বেড়েছে বিটিভির  » «   দিনদুপুরে পার্কে গণধর্ষণ, সেনাবাহিনী ঘিরে ফেলে পার্ক এলাকা  » «   ফের দক্ষিণের ১৫ রুটে বাস চলাচল বন্ধ  » «   স্বামী-সন্তানের স্বীকৃতির দাবিতে প্রবাসী স্ত্রীর অনশন  » «   সাবেক প্রেমিকা কোপাল বর্তমান প্রেমিকাকে!  » «  

সিএমপিতে তলব করা হবে সাবেক এসপি বাবুল আক্তারকে



নিজস্ব প্রতিবেদক :: সাবেক পুলিশ সুপার (এসপি) বাবুল আক্তারকে আবারও তলব করা হবে। খুব শীঘ্রই বাবুলকে সিএমপিতে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদের আভাস দিয়েছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সিএমপির গোয়েন্দা ইউনিটের অতিরিক্ত উপ কমিশনার (এডিসি) মো.কামরুজ্জামান।

মিতুর পরিবারের সদস্যদের জিজ্ঞাসাবাদ শেষে মঙ্গলবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) ঢাকা থেকে চট্টগ্রামে ফেরার পর দুপুরে কামরুজ্জামান নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হলে এ কথা বলেন। তবে মিতুর পরিবারের সদস্যদের জিজ্ঞাসাবাদের বিষয়ে পরিস্কার করে কিছুই বলেননি তিনি।

গত বছরের ১৫ ডিসেম্বর বাবুল আক্তারকে প্রথম দফা তলব করে সিএমপিতে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা।

এদিকে মিতুর পরিবারের অভিযোগ গণমাধ্যমে প্রকাশের পরদিন বাবুল আক্তার ফেসবুকে দীর্ঘ স্ট্যাটাস দিয়ে নিজের অবস্থান পরিস্কার করেন। এতে তিনি দাবি করেন, মিতুর অপ্রাপ্তবয়স্ক খালাত বোনকে বিয়ে করতে রাজি না হওয়ায় তার বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলা হচ্ছে।

তবে এডিসি কামরুজ্জামান জানিয়েছেন, বাবুল আক্তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে কি লিখেছেন, সেটা তিনি দেখেননি। এ নিয়ে গণমাধ্যমের কোন সংবাদও তার চোখে পড়েনি।

মিতুর বাবা-মা, বোনের অভিযোগের পর তদন্তের বিষয় এখন দাম্পত্য অশান্তি কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্রত্যেক পয়েন্টের উপর আমাদের নজরদারি আছে।

সুনির্দিষ্টভাবে জানাতে না পারলেও মামলার তদন্তে অগ্রগতি হচ্ছে বলে জানান কামরুজ্জামান।

তিনি বলেন, সাতজন আসামি গ্রেফতার হয়েছে। ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি হয়েছে। পলাতক যারা আছে তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। নির্দেশদাতা কে সেটা বের করার চেষ্টা করছি।

এর আগে গত ২২ ডিসেম্বর মোশাররফ এবং ২৬ জানুয়ারি মোশাররফ ও তার স্ত্রী সাহেদা মোশাররফকে নিজ কার্যালয়ে তলব করে জিজ্ঞাসাবাদ করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা।

গত বছরের ৫ জুন সকালে ছেলেকে স্কুলবাসে তুলে দিতে যাওয়ার সময় নগরীর ও আর নিজাম রোডে দুর্বৃত্তদের উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত ও গুলিতে নিহত হন সদর দপ্তরে কর্মরত তৎকালীন পুলিশ সুপার বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু। এ ঘটনায় বাবুল আক্তার নিজে বাদি হয়ে নগরীর পাঁচলাইশ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

 

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: