সোমবার, ১২ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২৮ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
৩০০ আসনে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগের নির্দেশ ইসির  » «   পাকিস্তানি স্নাইপারের গুলিতে ৩ ভারতীয় সেনা নিহত  » «   সংসদ নির্বাচনে মাশরাফি : কী বলছে ক্রিকেটীয় আইন?  » «   তরুণদের সঙ্গে সরাসরি কথা বলবেন প্রধানমন্ত্রী  » «   একাদশ সংসদ নির্বাচনে পুনঃতফসিল: ৩০ ডিসেম্বর ভোট  » «   আজ সেই ভয়াল ১২ নভেম্বর  » «   রামমন্দির নিয়ে শান্তিপূর্ণ সমাধান চান মুসলিমরা: আব্বাস নাকভি  » «   জ্বলছে ক্যালিফোর্নিয়া! আতঙ্কে বাড়ি ছাড়ছেন হলিউড তারকারা  » «   বিএনপির মনোনয়ন ফরম বিক্রি শুরু, খালেদার জন্য ৩ আসনের ফরম  » «   গাজায় ইসরাইলি সেনাদের কমান্ডো হামলায় ৭ ফিলিস্তিনি নিহত  » «   খালেদা জিয়ার সঙ্গে আজ দেখা করবেন বিএনপি নেতারা  » «   বিএনপির কাছে যেসব আসন দাবি করেছে শরিকরা  » «   নির্বাচনে সব দলের অংশগ্রহণে গণতন্ত্র আরও শক্তিশালী হবে- প্রধানমন্ত্রী  » «   রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠাতে ট্রানজিট ক্যাম্প প্রস্তুত  » «   সিলেট-১ আসনে মনোনয়ন কিনলেন কামরান  » «  

সাপাহার রিপোর্টার্স ফোরামে সংবাদ সম্মেলনে আপন বড় ভাইয়ের জালিয়াতীর কথা তুলে ধরেন ভুক্তভোগী ছোট ভাই



মনিরুল ইসলাম,সাপাহার(নওগাঁ)প্রতিনিধি: সাপাহার রিপোর্টার্স ফোরামে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আপন বড় ভাইয়ের জালিয়াতীর বিভিন্ন সময়ের বিভিন্ন নজীর তুলে ধরে সাংবাদিকদের সামনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন প্রায় ১৩/১৪ বছর থেকে ভুক্তভোগী ছোটভাই ফজলুর রহমান।
শুক্রবার সকালে সংবাদ সম্মেলনে তার লিখিত বক্তব্য সাংবাদিকদের জানান, তার আপন বড় ভাই কুখ্যাত জালিয়াত নিজামউদ্দীন একজন স্বার্থান্বেসী এবং দলিল জালের শুধু সাপাহারের নয় উত্তরবঙ্গের এক দৃষ্টান্তমূলক নজীর। এই জালিয়াত নিজামউদ্দীনের হাতে তৈরীকৃত জাল দলিলের ৭টির প্রমান রয়েছে। এছাড়াও কতগুলো জাল দলিল রয়েছে যা হয়তবা অনেকের অগোচর। শুধু তাই নয় সে একজন পাকিস্তানী ষ্ঠ্যাম্প বিক্রেতা যা পাকিস্তান আমলের ভূয়া দলিল করতে সহায়তা করে। যাতে চোরাকারবারীর মধ্যেও পড়ে ওই মানুষ রূপী অমানুষ নিজাম। সে জাল দলিলগুলোকে পুঁজি করে তার আপন ছোটভাই সহ এলাকার অনেক গরীব অসহায় মানুষকে তার তীব্র প্রতারণার বেড়া জালে আবদ্ধ করে রেখছে।। শুধু তাই নয়, এই জাল দলীল গুলোকে ভিত্তি করে ছোট ভাই ফজলুর উপর দিনের পর দিন বিভিন্ন মামলা হয়রানী ও পেরেশানীর মধ্যে ফেলেছেন ওই জালিয়াত নিজাম। নিজেকে বাঁচানোর জন্য কাউন্টার মামলা প্রদান করতে বাধ্য হয়েছেন ভুক্তভোগী ছোট ভাই ফজলু। দীর্ঘ ১৪/১৫ বছর যাবৎ ২৫/২৬টি মামলার ঘানি টানতে গিয়ে নিপীড়িত ফজলুর রহমান আজ নিঃস্ব প্রায়। আরও একটি বিষয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, নিজামের বাবা কাফিজ উদ্দীন মৃত্যুর আগে তার ছোট দুই ভাই ফজলু ও জামানের নামে হাটশাওলী মৌজার কিছু জমি রেকর্ড করে দেন। ফজলু প্রবাসে থাকার ফলে ওই জালিয়াত নিজাম রেকর্ড সংশোধন মামলা করে একতরফা ডিক্রী নিয়ে উক্ত জমি থেকে ওই দুই ভাইকে বঞ্চিত করে দেয়। ১৯৬৮ সালের একটি দলিলকে কেন্দ্র করে তার বাবার কাছ থেকে স্বাক্ষর নকল করে পিতার জেলা নওগাঁ ও পুত্রের জেলা রাজশাহী তৈরী করে যার দলিল নং ১০৬৫ তাং ৬/০২/৬৮। পরবর্তীতে আবারও ওই একই নাম্বারের দলিল ভুয়া সংশোধন করে দাতা ও গ্রহীতার জেলা ও তফশীল পুরোটাই সংশোধন করে। পরবর্তী সময়ে ফজলুর প্রশ্ন আসে যে, একই দাতা, একই গ্রহীতা, একই নাম্বারের দলিল কি ভাবে দুটি হতে পারে? আর এর একমাত্র উত্তর ওই নামধারী কথিত জালিয়াত নিজাম নিজেই জানে। পরবর্তীতে যেসব দাতাদের কাছ থেকে জমি গুলো জাল করে নেয়, তারা এফিডেফিট প্রদান করে বলেন যে, তারা কোন প্রকার দলিলে স্বাক্ষর করেননাই বরং এসব যোগসাজসী ও ভুয়া দলিল। জালিয়াতীর কবলে পড়া ফজলু আরেকটি বিষয় আক্ষেপ কন্ঠে জানান, ‘আমি সুদুর প্রবাসে থাকা অবস্থায় আমার বাবা কাফিজ উদ্দীন একটি ঘরোয়া বাটোয়ারা করে দেন সে মতে একটি জমি আমার অংশে পড়ে । বাবা মারা যাওয়ার পরে সে দলিল রদের মামলা করে। যা আপিলে অদ্যবধি ঝুলন্ত অবস্থায় রয়েছে। আর মামলা চলা অবস্থায় আমি মারা গেলে সে রাম রাজ্য পেয়ে যাবে। কারন ওই নিজাম ভালো ভাবে জানে যে আমার ছেলে সন্তান নেই, মেয়েরা শ্বসুরবাড়ী থেকে এসব মামলা চালাতে পারবেনা এটাও জানে ওই কুখ্যাত জালিয়াত নিজাম’।
এ ধরণের জালিয়াতীর আরও অনেক নজীর আছে বলে জানান, ভুক্তভোগী ফজলুর রহমান। এবং সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে ওই জালিয়াতের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবী সহ এসব মামলা থেকে অব্যতি দিয়ে সুষ্ঠ বিচারের জোর দাবী জানান সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: