বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
শুক্রবার শ্রীলঙ্কার মসজিদে হামলার হুমকি, নিরাপত্তা জোরদার  » «   মোটরসাইকেলে কাভার্ডভ্যানের ধাক্কা, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীর মৃত্যু  » «   প্রেসক্রিপশন ছাড়া অ্যান্টিবায়োটিক বিক্রিতে হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা  » «   নুসরাত হত্যা: তদন্তে বেরিয়ে আসছে পুলিশ কর্মকর্তাদের গাফিলতি  » «   সিলেটের সীমান্ত দিয়ে ঢুকছে রোগাক্রান্ত ভারতীয় গরু  » «   খালেদা জিয়া সরকারের আইনগত সহায়তা পাওয়ার যোগ্য নন: আইনমন্ত্রী  » «   পরীক্ষাকেন্দ্রে ছাত্রীকে যৌন হয়রানি, ইনস্ট্রাক্টর কারাগারে  » «   নিউজিল্যান্ডের পার্মানেন্ট ভিসা পাচ্ছেন মুসলিমরা!  » «   জাফর ইকবাল হত্যাচেষ্টা মামলায় সাক্ষ্য দিলেন মহানগর হাকিম হরিদাস কুমার  » «   কান্নাজড়িত কণ্ঠে স্ত্রী-সন্তান হারানোর বর্ণনা দিলেন সুদেশ  » «   বহুদিন গোসল না করে অফিস করেছি: স্থানীয় সরকারমন্ত্রী  » «   দল বহিষ্কার করতে পারে জেনেই শপথ নিয়েছি: জাহিদুর রহমান  » «   এবার শ্রীলঙ্কায় আদালতের পাশে বোমা বিস্ফোরণ  » «   কবরের জন্য জমি চাইলে বন্দেমাতরম বলতেই হবে: বিজেপি  » «   এবার শপথ নিচ্ছেন বিএনপির জাহিদুর  » «  

সহকর্মীর হাতে খুন হলেন তিন ভারতীয় সেনা



আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: ভারত অধিকৃত কাশ্মিরের পুলওয়ামায় আত্মঘাতী হামলায় নিহত হয়েছিলেন ভারতের আধাসামরিক বাহিনী সিআরপিএফের ৪৪ সদস্য। তা নিয়ে দুই দেশের মধ্যে যুদ্ধ লেগে যাওয়ার জোগাড় হয়েছিল।এবার সেই বাহিনীরই তিন সদস্য খুন হয়েছেন নিজেদেরই সহকর্মীর হাতে। এরপর হত্যাকারী নিজেও আত্মহত্যার চেষ্টা চালায়। বর্তমানে সে মুমূর্ষু অবস্থায় হাসপাতালে রয়েছে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জানায়, বুধবার রাতে জম্মু কাশ্মীরের সিআরপিএফের ১৮৭ ব্যাটেলিয়ন ক্যাম্পে এ ঘটনা ঘটে৷ নিজেদের মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে কনস্টেবল অজিত কুমার সহকর্মীদের গুলি করে হত্যা করেন। পরে নিজেও আত্মহত্যার চেষ্টা চালান। বর্তমানে তিনি সেনা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

সিআরপিএফ জানায়, অজিত কুমারের গুলির শিকার হয়ে রাজস্থানের পোকারমাল আর, দিল্লির যোগেন্দ্র শর্মা এবং হরিয়ানার উমেদ সিং নিহত হন৷ এ ঘটনার খবর পাওয়ার পরই বাহিনীটির শীর্ষ কর্মকর্তারা ক্যাম্পে ছুটে যান। পুলিশও পৌঁছায় সেখানে। পরে সিআরপিএফ ও পুলিশ নিজেদের মতো করে তদন্ত শুরু করেছে৷ তাদের মধ্যে কী নিয়ে বিবাদ শুরু হয়েছিল তা জানার চেষ্টা চলছে৷

তবে ভারতের সশস্ত্র বাহিনীগুলোতে মাঝেমধ্যেই এ ধরনের ঘটনা ঘটে। এক্ষেত্রে তারা দাবি করে থাকেন অত্যাধিক কাজের চাপ ও মানসিক অবসাদের কারণে এসব বাহিনীর সদস্যরা সামান্য কিছুতেই ধৈর্যহারা হন। সহকর্মীদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করছেন৷ মানসিক অবসাদের কারণে অনেকে আত্মঘাতী পর্যন্ত হয়েছেন৷

ভারত বিশাল দেশ হলেও দুই প্রতিবেশী দেশের সাথে শত্রুতার মাত্রা অনেক বেশি হওয়ায় এসব বাহিনীর সদস্যদের অনেক বেশি চাপ সহ্য করতে হয়। সীমান্ত পাহারা দিতে গিয়ে তারা অনেকটা সময় পরিবারের বাইরে থাকতে বাধ্য হন। ফলে তাদের মধ্যে অবসাদ, বিষণ্ণতা, একঘেয়েমির সূত্রপাত্র হয়। আর সেগুলো বাড়তে বাড়তেই নিজেদের মধ্যে সংঘাতের মতো ঘটনা ঘটে থাকে।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: