রবিবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ ফাল্গুন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
বাপ্পারাজ ও সম্রাটের হাতে নায়করাজের মরণোত্তর সম্মাননা  » «   সারাদেশে বিএনপির নতুন কর্মসূচি, যা থাকছে স্মারকলিপিতে  » «   সোমবার গাজীপুরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী  » «   সবচেয়ে দূষিত বায়ুর দেশের তালিকায় দ্বিতীয় বাংলাদেশ  » «   খালেদা জিয়ার কারাদণ্ড, যা বলেছে জাতিসংঘ  » «   মুশফিককে গুণীজন সম্মাননা দিলো জাবি  » «   মেক্সিকোতে হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হয়ে নিহত ১৪  » «   সরকারকে চাপে রাখতে যে সিদ্ধান্ত নিল বিএনপি  » «   তিন আত্মঘাতী কেড়ে নিল ১৯ জনের প্রাণ  » «   এইচএসসি পরীক্ষা ২০১৮ এর রুটিন পরিবর্তনের দাবিতে সিলেটে পরীক্ষার্থীদের মানববন্ধন  » «   বিয়ের কথা বলে টানা ৪ বছর ধর্ষণ!  » «   খালেদার জামিন ও রায়ের কপি নিয়ে নেতাদের পাল্টাপাল্টি অভিযোগ  » «   আদালতে হাজির করা হবেনা খালেদা জিয়াকে  » «   আখেরি মোনাজাতের মাধ্যমে শেষ হলো আঞ্চলিক ইজতেমা  » «   খালেদা জিয়ার জেল অস্বাভাবিক কিছু নয়  » «  

সদ্যজাত মেয়ের নাম ‘শেখ হাসিনা’ রাখলেন রোহিঙ্গা নারী



আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: রাখাইন রাজ্য ছেড়ে পালিয়ে এসে বাংলাদেশের আশ্রয় শিবিরে ঠাঁই মিলেছে ২০ বছর বয়সী রোহিঙ্গা নারী খাদিজার। শরণার্থী আশ্রয় কেন্দ্রেই সন্তান প্রসব করেন তিনি। খাদিজা তার মেয়ের নাম রেখেছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নামে।

২৫ আগস্ট মিয়ানমার সেনাবাহিনী পুলিশের তল্লাশি চৌকিতে হামলার অভিযোগে ‘শুদ্ধি অভিযান’র নামে নিরীহ রোহিঙ্গাদের ওপর নিধনযজ্ঞ শুরু করে। জীবন বাঁচাতে বাধ্য হয়ে এখন পর্যন্ত চার লাখ ২২ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে।
নিজ মাতৃভূমিতে স্বামীকে নৃশংসভাবে খুন হতে দেখার পর অন্যদের সঙ্গে বাংলাদেশে পালিয়ে আসেন খাদিজা। সে সময় তিনি আট মাসের গর্ভবতী ছিলেন। বাংলাদেশের আশ্রয় শিবিরে সন্তান প্রসবের সময় পাশে ছিলেন মা আলুম বাহার।
নীল রঙের স্কার্ফ আর কালো বোরকা পরা খাদিজা বলেন, ‘রাখাইন রাজ্য পুড়িয়ে ছারখার করে দেয়া হয়েছে। আমার বাড়িটাও পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। মিয়ানমার থেকে বাঁচার জন্য পালিয়ে এসেছি। বাঁচার ইচ্ছা ছিল না কিন্তু বেঁচে থাকার সংগ্রাম চালিয়ে গেছি শুধুমাত্র গর্ভের সন্তানকে বাঁচানোর জন্য।’
তিনি আরও বলেন, নিজ দেশে স্বামীকে হারিয়েছি। আমার দেশের সরকার আমাকে আশ্রয় দেয়নি, বাড়িঘর জ্বালিয়ে দিয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশের সরকার আমাদের আশ্রয় দিয়েছে। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী আমাদের থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা করেছেন। এজন্য তার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে আমার মেয়ের নাম ‘শেখ হাসিনা’ রেখেছি।
প্রসঙ্গত, বাংলাদেশের বিভিন্ন শরণার্থী শিবিরে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের মধ্যে ১৭-১৮ হাজার গর্ভবতী রয়েছেন। বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে তাদের দেখভাল এবং সব ধরনের চিকিৎসা সহায়তা দেয়া হচ্ছে।
খাদিজার মা আলুম বাহার বলেন, অনেক কষ্টে বাংলাদেশে এসেছি। আমার মেয়ে গর্ভবতী ছিল। এখানে এসে সে কন্যাশিশুর জন্ম দিয়েছে। আমরা তার নাম রেখেছি ‘শেখ হাসিনা’। সে আমাদের বেঁচে থাকার আশা। তাকে পেয়ে সব কষ্ট দূর হয়ে গেছে।
আলুম বাহারও তার স্বামী নুরুদ্দিনকে চোখের সামনে খুন হতে দেখেছেন। এখন ‘শেখ হাসিনা’র জন্যই তাদের বেঁচে থাকার লড়াই।
‘বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সমানুভূতির কারণেই রাখাইন ছেড়ে আসা রোহিঙ্গারা আশ্রয় পেয়েছে, এখনও বেঁচে আছে। এমনকি খাদিজার মেয়ে পৃথিবীর আলো-বাতাস পাচ্ছে শেখ হাসিনার কারণেই’- বলেন আলুম বাহার।
সূত্র : ইন্ডিয়া টুডে

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: