শুক্রবার, ২২ মার্চ ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ চৈত্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সিলেটে নির্মাণ হতে যাচ্ছে স্মৃতিসৌধ,পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ডিও লেটার  » «   সুখী দেশের তালিকায় বাংলাদেশের ১০ ধাপ অবনতি  » «   জাফর ইকবালকে হত্যাচেষ্টা মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু  » «   আইডিয়া’র ২৫ বছর পূর্তি উৎসবে র‍্যালি, আলোচনাসভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান  » «   উন্নয়ন করতে গিয়ে জীবন ও জীবিকার যেন ক্ষতি না হয় : প্রধানমন্ত্রী  » «   আজ দিন রাত সমান, আকাশে থাকবে সুপারমুন  » «   সহকর্মীর হাতে খুন হলেন তিন ভারতীয় সেনা  » «   মসজিদে হামলাধারী ব্রেন্টন আইএস থেকে ভিন্ন কিছু নয়: এরদোগান  » «   সিলেটে মেশিনে আদায় হবে যানবাহনের মামলার জরিমানা  » «   গ্যাসের দাম ১৩২% বৃদ্ধির প্রস্তাব হাস্যকর  » «   মেয়রের আশ্বাসে ২৮ মার্চ পর্যন্ত আন্দোলন স্থগিত  » «   দরিদ্র বলে এদেশে কিছু থাকবে না : প্রধানমন্ত্রী  » «   এক সপ্তাহের মধ্যে আবরারের পরিবারকে ১০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নির্দেশ  » «   গুলিবিদ্ধ বাংলাদেশি ওমরের মুখে মসজিদে হামলার লোমহর্ষক বর্ননা…  » «   আজ প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকী,আ. লীগের শ্রদ্ধা  » «  

সংসদ নির্বাচন: তথ্য সংগ্রহে পুলিশ ও ইসির লুকোচুরি



নিউজ ডেস্ক:: নির্বাচনের সময় দায়িত্ব পালন করতে পারেন, এমন ব্যক্তিদের তালিকা গোপনে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছেন নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তারা। সেই তালিকা নিয়ে দুই মাস আগে তথ্য সংগ্রহে মাঠে নামে পুলিশ। পুলিশের দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে এ তথ্য জানা গেছে।

তালিকায় থাকা প্রিসাইডিং, সহকারী প্রিসাইডিং ও পোলিং কর্মকর্তা এবং আনসার-ভিডিপির সদস্যদের নাম-ঠিকানা, জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর, আগে কখনো নির্বাচনী দায়িত্ব পালন করেছেন কি না, বর্তমান ও অতীতে দলীয় পরিচয়, কারও স্বামী বা পরিবারের অন্য কেউ রাজনীতি করেন কি না—এসব তথ্য রেকর্ড করা হচ্ছে।

নির্বাচনী কর্মকর্তাদের ব্যাপারে এমন গোপন অনুসন্ধান নিয়ে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। এ পরিস্থিতিতে অনেকে নির্বাচনী দায়িত্ব কীভাবে এড়াবেন, তার কৌশল খুঁজছেন বলে জানিয়েছেন। তবে মাঠপর্যায়ে গোপনে ও প্রকাশ্যে তথ্য সংগ্রহ করা হলেও ঢাকায় নির্বাচন কমিশন ও পুলিশ সদর দপ্তরের কর্মকর্তারা বিষয়টি অস্বীকার করে যাচ্ছেন। পুলিশের জনসংযোগ বিভাগের সহকারী মহাপরিদর্শক সোহেল রানা বলেন, এ ব্যাপারে পুলিশের কোনো নির্দেশনা নেই।

পুলিশের এমন গোপন অনুসন্ধানের ব্যাপারে জানতে চাইলে নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম গতকাল সাংবাদিকদের বলেন, কারা নির্বাচনী কর্মকর্তা হবেন, এ-সংক্রান্ত নীতিমালায় অনেকগুলো শর্ত আছে। যদি কেউ দণ্ডপ্রাপ্ত হন বা বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কোনো কর্মকর্তা কোনো দলের সঙ্গে যুক্ত থাকেন, এটা যাচাই করার সক্ষমতা নির্বাচন কমিশনের নেই। কাজটি রিটার্নিং কর্মকর্তাকে কেউ করে দিতে হবে। এ রকম ক্ষেত্রে যাচাইয়ের জন্য রিটার্নিং কর্মকর্তা পুলিশকে অনুরোধ করতে পারেন। তারপরও নির্বাচন কমিশন বা রিটার্নিং কর্মকর্তা এ ধরনের কোনো নির্দেশ দেননি বলে তিনি জানান।

পুলিশ যদি আগবাড়িয়ে এসব করে থাকে, তাহলে কমিশন কিছু বলছে না কেন, এ প্রশ্ন করা হলে রফিকুল ইসলাম বলেন, যদি অত্যুৎসাহী কোনো পুলিশ এ ধরনের কাজ করে থাকে, কেউ এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ দিলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। গণমাধ্যমে তো খবর প্রকাশিত হয়েছে, ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না কেন, এ প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, গণমাধ্যমে আসা নাম-ঠিকানাগুলো যাচাই করা হবে। সত্যতা পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নির্বাচন কর্মকর্তাদের তালিকা ইসির হাতে থাকার কথা। সেই তালিকা পুলিশের হাতে গেল কীভাবে, এ প্রশ্নের জবাবে রফিকুল ইসলাম বলেন, নির্বাচন কর্মকর্তা কারা হবেন, এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট নীতিমালা আছে। যেকোনো মানুষই চিহ্নিত করতে পারেন কারা নির্বাচন কর্মকর্তা হবেন। এ ক্ষেত্রে কাউকে হয়রানি করা হলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে মাঠপর্যায়ের একাধিক পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, দুই মাস আগে নির্বাচন কর্মকর্তাদের প্রাথমিক তালিকা তৈরির কাজ শুরু হয়েছিল। ওই সময় জেলা প্রশাসন থেকে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চিঠি দিয়ে ভোট গ্রহণ কর্মকর্তাদের তালিকা চাওয়া হয়। সেই প্রাথমিক তালিকা পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়। এখন পুলিশের প্রতিবেদনের ওপর ভিত্তি করে তালিকা চূড়ান্ত হচ্ছে।

এ বিষয়ে সাবেক নির্বাচন কমিশনার এম সাখাওয়াত হোসেন বলেন, এটা নির্বাচন কমিশনের চরম ব্যর্থতা। এই সময়ে সবকিছু তাদের নিয়ন্ত্রণে থাকার কথা। নির্বাচনকেন্দ্রিক সবকিছুই হবে তাদের হুকুমে। নির্বাচন কর্মকর্তাদের বিষয়ে খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে, এমন খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে নির্বাচন কমিশনের উচিত ছিল তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া। কিন্তু তা না করে পুরো বিষয়টি প্রিসাইডিং কর্মকর্তাদের কাঁধে চাপিয়ে দেওয়াটা অন্যায়। তাদের এমন আচরণ অত্যন্ত হতাশাজনক।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: