রবিবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সিডরে নিখোঁজ শহিদুল বাড়ি ফিরলেন ১১ বছর পর!  » «   ভাওতাবাজির জন্য সরকারকে গোল্ড মেডেল দেওয়া উচিৎ: ড. কামাল  » «   দিল্লির লাল কেল্লা দখলের হুমকি পাকিস্তানের!  » «   সত্য বলায় এসকে সিনহাকে জোর করে বিদেশ পাঠানো হয়েছে: মির্জা ফখরুল  » «   নির্বাচনী কর্মকর্তারা পক্ষপাতিত্ব করলে শাস্তি হবে: নির্বাচন কমিশনার  » «   গোলান মালভূমিতে সিরিয়ান মালিকানা জাতিসংঘে অনুমোদন  » «   শ্রীলংকার পার্লামেন্টে স্পিকারের চেয়ার দখল, সংঘর্ষে আহত একাধিক এমপি  » «   আজ মওলানা ভাসানীর ৪২তম মৃত্যুবার্ষিকী  » «   কে হবেন প্রধানমন্ত্রী: উত্তরে যা বললেন ড. কামাল  » «   ক্যালিফোর্নিয়া দাবানল: নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৫৯  » «   রোহিঙ্গারা স্লোগান দিচ্ছে ‘ন যাইয়ুম, ন যাইয়ুম’  » «   প্রাথমিকের সমাপনী পরীক্ষায় থাকছে না এমসিকিউ  » «   ঐক্যফ্রন্টের সব দলের প্রতীক ধানের শীষ  » «   চিকিৎসা নিয়ে খালেদার রিটের আদেশ রোববার  » «   বিএনপি জোট সরকারের প্রধানমন্ত্রী হবেন খালেদা জিয়া  » «  

সংসদ নির্বাচনের জন্য ৭০০ কোটি টাকার বাজেট অনুমোদন



নিউজ ডেস্ক:: একাদশ সংসদ নির্বাচনের খরচ বাবদ ৭০০ কোটি টাকার একটি বাজেট অনুমোদন করা হয়েছে। সোমবার (১৫ অক্টোবর) আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ৩৬তম প্রস্তুতি সভায় এ বাজেট অনুমোদন করা হয়। সভা শেষে নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব হেলালুদ্দীন আহমেদ সাংবাদিকদের একথা জানান।

ইসি সচিব জানান, এবার ভোট গ্রহণের জন্য ৪০ হাজার ১৯৯টি ভোট কেন্দ্র চূড়ান্ত করা হয়েছে। এছাড়া অতিরিক্ত ৫ শতাংশ কেন্দ্র প্রস্তুত রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে। এছাড়া আসন ভিত্তিক ভোটার তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। সেগুলো সিডি আকারে প্রতিটি আসনে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।

অনলাইনে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার বিষয়টি অর্ন্তভুক্ত করা হয়েছে উল্লেখ করে ইসি সচিব বলেন,এবারের নির্বাচনে দেশি-বিদেশ পর্যবেক্ষকদের আমন্ত্রণ জানানোর সিদ্ধান্তও নেওয়া হয়েছে।

ইসি সচিব বলেন,এবার বিশেষ প্রযুক্তি ব্যবহার করে নির্বাচন কমিশন থেকে ভোটের ফলাফল ঘোষণা করা হবে। নির্বাচনের আগে আটটি বিভাগীয় জেলা এবং পার্বত্য চট্টগ্রামের রাঙামাটিসহ মোট ১০টি জেলায় সভা করবেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার।

নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদারের সভা বর্জন প্রসঙ্গে ইসি সচিব বলেন,ওনি একটি বিষয় সভার এজেন্ডায় অর্ন্তভূক্ত করার দাবি জানিয়েছিলেন,কিন্তু বাকি তিন কমিশনার ও প্রধান নির্বাচন কমিশনার সে বিষয়ে একমত হননি। এ কারণে তিনি সভা বর্জন করেছেন।

মাহবুব তালুকদার তার ‘নোট অব ডিসেন্টে’ রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপে উঠে আসা দাবি-দাওয়ার বিষয়ে আলোচনা প্রস্তাব করেছিলেন।যদি দাবি-দাওয়ার বিষয়ে আলোচনা না হয়ে তবে সংলাপ হয়েছিলো কেন এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপে যেসব বিষয় উঠে এসেছে সেগুলো আমরা পুস্তক আকারে প্রকাশ করেছি।আমরা রাজনৈতিক দাবিগুলো দেখছি এবং সাংবিধানিকভাবে কিছু বিষয় এর মধ্যে পড়ে গেছে।

সংলাপে অধিকাংশ রাজনৈতিক দল সেনা মোতায়েন এবং ইভিএম বাতিল চেয়েছিলো এবং সরকারি দল আওয়ামী লীগ সেনা মোতায়েনের বিপক্ষে এবং ইভিএম রাখার কথা বলেছিলো,এখন নির্বাচন কমিশনও সেই সিদ্ধান্ত নিচ্ছে, তাহলে কি ইসি সরকার দলীয় সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করছে,এমন প্রশ্নে ইসি সচিব কোনো উত্তর দেননি। তিনি বিষয়টি এড়িয়ে যান।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: