বৃহস্পতিবার, ২২ অগাস্ট ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
তিন সিটিতে বিএনপির মেয়র প্রার্থী যারা  » «   ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি: চিদম্বরমের সময় অমিত, অমিতের সময় চিদম্বরম গ্রেপ্তার  » «   অক্টোবর থেকে মোবাইল অ্যাপে মিলবে বিমানের টিকিট  » «   আগামীকাল জুমার নামাজের পর গণবিক্ষোভের ডাক কাশ্মীরিদের  » «   হবিগঞ্জে ডাক্তার পরিচয় দিয়ে নবজাতক চুরি, নারী আটক  » «   কলকাতায় সড়ক দুর্ঘটনায় ২ বাংলাদেশির মৃত্যু, চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশ  » «   ভীতি কাটাতে চা বিস্কুট খেতে খেতে ভাইভা দেবেন বিসিএস পরীক্ষার্থীরা  » «   তৃতীয় ড্রিমলাইনার ‘গাঙচিল’ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী  » «   রাস্তার পাশে চা বানাচ্ছেন মমতা! ভিডিও ভাইরাল  » «   ঋণের টাকায় ভারত থেকে অস্ত্র কিনবে বাংলাদেশ  » «   কানাইঘাটে মৃত্যুর পাঁচ মাস পর কবর থেকে লাশ উত্তোলন  » «   কাশ্মীরে ফের যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন, গুলি চালিয়েছে পাকিস্তান  » «   রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু হতে পারে আজ  » «   পুলিশের ছেলে বিশ্বের এক নম্বর ডন  » «   জাহালম কাণ্ড: ১১ তদন্ত কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা  » «  

শুধু লার্ভা নয়, এডিস মশাও রয়েছে সিলেটে!



নিউজ ডেস্ক:: নগরীর দুটি এলাকায় এডিস মশার লার্ভার সন্ধান মিলেছে। ২৭টি ওয়ার্ডে জমে থাকা পানির নমুনা সংগ্রহ করে এই তথ্য পাওয়া গেছে। পরীক্ষার প্রথম ধাপে নগরীর ২৬ নং ওয়ার্ডের কদমতলীতে এডিস মশার লার্ভা পাওয়া গিয়েছিলো আগেই। এবার নগরীর চৌহাট্টার শহীদ ডা. শামসুদ্দিন হাসপাতাল এলাকায় এডিস মশা ও এডিস মশার লার্ভা পাওয়া গিয়েছে।

সিলেটের সিভিল সার্জন নগরীর দুটি স্থানে লার্ভার প্রাপ্তির বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, শুধুমাত্র এডিস মশার লার্ভা নয় এডিস মশাও পাওয়া গেছে। এডিস মশার এই বংশবৃদ্ধি অবশ্যই বিপদজ্জনক। তাই এডিস মশার উৎপত্তিস্থল ধ্বংস করতে হবে। তা না হলে এই রোগ বৃহতাকারে ছড়িয়ে পরার সম্ভাবনা রয়েছে।

সিভিল সার্জন হিমাংশু লাল রায় বলেন, এডিস মশার বংশবৃদ্ধি বিপদজনক হওয়াতে এর উৎপত্তিস্থল ধ্বংস করতে হবে। এজন্য প্রয়োজন সচেতনতা। তিনি জানান, নগরীর কয়েকটি এলাকা থেকে নমুনা সংগ্রহের পর সিভিল সার্জন কার্যালয়ের কীটতত্ব বিভাগে তা পরীক্ষা করা হয়। এতে দুটি এলাকায় এডিসের লার্ভার অস্তিত্ব পাওয়া যায়। তবে নতুন করে আরো কয়েকটি এলাকার নমুনা পরীক্ষা হবে।

তিনি বলেন, টার্মিনাল এলাকায় অসংখ্য গাড়ি গ্যারেজ এবং টায়ার-টিউবের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে, যে কারণে পরিত্যক্ত টায়ার-টিউবে জমে থাকা পানিতে এডিস মশা বংশ বিস্তার করেছে। তবে ইতোমধ্যে সিটি কর্পোরেশন থেকে ব্যবসায়ীদের তা সরিয়ে দেয়ার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। একই সঙ্গে অভিযানও চলমান আছে।

তিনি জনসাধারণকে ডেঙ্গু নিয়ে আতঙ্কিত না হয়ে বাসা-বাড়ি পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার মাধ্যমে এডিস মশার আবাসস্থল ধ্বংস করতে সচেতনতা বাড়ানোর তাগিদ দেন। সব মিলিয়ে সিলেট জেলায় ২২৫ জন রোগী চিকিৎসা নিয়েছেন। এর মধ্যে ওসমানী হাসপাতালে ১৪৯ জন এবং বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতালে ৭৬ জন চিকিৎসা নিয়েছেন।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: