শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১ পৌষ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
২৪ ডিসেম্বর মাঠে নামছে সেনাবাহিনী, থাকবেন ম্যাজিস্ট্রেটও  » «   ইন্টারনেটে ধীর গতি ও মোবাইল ব্যাংকিং বন্ধ চায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী  » «   প্রার্থিতা নিয়ে শুনানি: আদালতের প্রতি খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের অনাস্থা  » «   আওয়ামী লীগ ১৬৮ থেকে ২২০ আসনে জিতবে: জয়  » «   সিলেট-২ আসনে বিএনপির প্রার্থী তাহসিনা রুশদীর লুনার মনোনয়ন স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট  » «   আম্বানি কন্যার বিয়েতে নাচলেন হিলারি ক্লিনটন [ভিডিও ]  » «   সিলেট-১ আসনে ধানের শীষের প্রচারণার একসঙ্গে মুক্তাদির-আরিফ  » «   সহিংসতার ঘটনা খতিয়ে দেখতে সিইসির নির্দেশ  » «   ‘ইডিয়ট’ লিখে গুগলে সার্চ দিলে কেনো আসে ট্রাম্পের ছবি?  » «   বিশ্ব ভ্রমণ করবে বাংলাদেশের প্রথম বিদ্যুৎচালিত গাড়ি  » «   খাশোগি হত্যাকাণ্ডে সৌদি আরব ছাড়পত্র পাবে না: নিক্কি হ্যালি  » «   গুগলে সবচেয়ে বেশি খোঁজ খালেদা ও হিরো আলম  » «   আস্থা ভোট, নেতৃত্বের পরীক্ষায় উতরে গেলেন তেরেসা মে  » «   ফোনালাপ ফাঁস: খন্দকার মোশাররফের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগ  » «   নির্বাচনে এজেন্ট পাওয়া নিয়ে চিন্তায় বিএনপি  » «  

রোহিঙ্গা হত্যা : নজিরবিহীন স্বীকারোক্তির তদন্ত দাবি অ্যামনেস্টির



আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: ১০ রোহিঙ্গা মুসলিমকে হত্যায় সেনাসদস্যরা জড়িত রয়েছে বলে প্রথমবারের মতো মিয়ানমার সেনাবাহিনীর স্বীকারোক্তির পর স্বাধীন তদন্তের আহ্বান জানিয়েছে লন্ডনভিত্তিক আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল।

গত ডিসেম্বরে রাখাইন প্রদেশের মংডুর ইন দিন গ্রামে একটি গণকবরের সন্ধান পায় আইন-শৃঙ্খলাবাহিনী। সেখান থেকে অন্তত ১০ রোহিঙ্গা মরদহে উদ্ধার করা হয়; যা নিয়ে এখনো প্রশ্ন রয়েছে।

বুধবার মিয়ানমার সেনাপ্রধান মিন অং হ্লেইংয়ের ফেসবুকে পেইজে এক বিবৃতিতে বলা হয়, ‘বাঙালি সন্ত্রাসীদের হত্যার ঘটনায় সেনাসদস্য এবং স্থানীয় গ্রামবাসীরা জড়িত ছিল। তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

নিপীড়িত সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা মুসলিমদের বাঙালি বলে ডাকে মিয়ানমার। দেশটিতে জাতিগত সংখ্যালঘু গোষ্ঠী হিসেবে স্বীকৃতি নেই তাদের।

সংখ্যালঘু এই গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে অভিযানের অংশ হিসেবে মিয়ানমার শান্তিপূর্ণ রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসীর তকমা জুড়ে দিয়ে নাগরিকত্ব দিতেও অস্বীকৃতি জানিয়েছে। নিপীড়ন চালানোর অভিযোগ কয়েক মাস ধরে অস্বীকার করে এলেও বুধবার মিয়ানমার সেনাবাহিনীর বিবৃতিতে রোহিঙ্গা হত্যায় সেনা সংশ্লিষ্টতার নজিরবিহীন স্বীকারোক্তি আসে।

রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে জাতিগত নিধন ও মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ বারবার প্রত্যাখ্যান করে আসছে মিয়ানমার। এছাড়া সহিংসতায় বিপর্যস্ত রাখাইনে জাতিসংঘের তদন্তকারী কর্মকর্তা ও সাংবাদিকদের প্রবেশের অনুমতি দেয়নি দেশটির সরকার।

লন্ডনভিত্তিক আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি বলছে, ‘মিয়ানমার সেনাবাহিনী রোহিঙ্গা হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগের যে স্বীকারোক্তি দিয়েছে তা ইতিবাচক। কিন্তু এটি বিশাল অপরাধের এক খণ্ডচিত্র মাত্র।’

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার আঞ্চলিক পরিচালক জেমস গোমেজ বলেন, এটি বিশাল আকারের অপরাধের আংশিক চিত্র মাত্র। জাতিগত নিধন অভিযানের সময় অন্যান্য যে নৃশংস অপরাধ সংঘটিত হয়েছে তা স্বাধীন তদন্তের জন্য এক ধরনের সতর্কতা। এই অভিযানের কারণে গত আগস্টের পর থেকে এখন পর্যন্ত সাড়ে ছয় লাখের বেশি রোহিঙ্গা রাখাইন থেকে বাংলাদেশে পালিয়েছে।

সূত্র : আল জাজিরা।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: