শুক্রবার, ২২ মার্চ ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ চৈত্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সিলেটে নির্মাণ হতে যাচ্ছে স্মৃতিসৌধ,পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ডিও লেটার  » «   সুখী দেশের তালিকায় বাংলাদেশের ১০ ধাপ অবনতি  » «   জাফর ইকবালকে হত্যাচেষ্টা মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু  » «   আইডিয়া’র ২৫ বছর পূর্তি উৎসবে র‍্যালি, আলোচনাসভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান  » «   উন্নয়ন করতে গিয়ে জীবন ও জীবিকার যেন ক্ষতি না হয় : প্রধানমন্ত্রী  » «   আজ দিন রাত সমান, আকাশে থাকবে সুপারমুন  » «   সহকর্মীর হাতে খুন হলেন তিন ভারতীয় সেনা  » «   মসজিদে হামলাধারী ব্রেন্টন আইএস থেকে ভিন্ন কিছু নয়: এরদোগান  » «   সিলেটে মেশিনে আদায় হবে যানবাহনের মামলার জরিমানা  » «   গ্যাসের দাম ১৩২% বৃদ্ধির প্রস্তাব হাস্যকর  » «   মেয়রের আশ্বাসে ২৮ মার্চ পর্যন্ত আন্দোলন স্থগিত  » «   দরিদ্র বলে এদেশে কিছু থাকবে না : প্রধানমন্ত্রী  » «   এক সপ্তাহের মধ্যে আবরারের পরিবারকে ১০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নির্দেশ  » «   গুলিবিদ্ধ বাংলাদেশি ওমরের মুখে মসজিদে হামলার লোমহর্ষক বর্ননা…  » «   আজ প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকী,আ. লীগের শ্রদ্ধা  » «  

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের নিরাপত্তা যাচাইয়ে আসছেন জাতিসংঘের দূত



নিউজ ডেস্ক:: আসন্ন রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন কতটা নিরাপদ তা খতিয়ে দেখতে ঢাকায় আসছেন জাতিসংঘের মিয়ানমার বিষয়ক বিশেষ দূত ক্রিস্টিন সরনার বার্গনার। রোহিঙ্গা ইস্যুতে বুধবার (৭ নভেম্বর) রাতে ঢাকায় আসছেন তিনি।

সুইডিশ কূটনীতিক বার্গনার বাংলাদেশ সফরে কক্সবাজারের একাধিক শিবির পরিদর্শন করবেন।এছাড়া সরকারের সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে রোহিঙ্গা পরিস্থিতি নিয়ে আলাপ করবেন তিনি।

কূটনৈতিক সূত্র জানিয়েছে, বার্গনার ৭ থেকে ১১ নভেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশ সফর করবেন।এ সময় তিনি কক্সবাজারের একাধিক রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শন করবেন।এছাড়া রোহিঙ্গা ইস্যুতে সরকারের সংশ্লিষ্ট নীতি নির্ধারণী পর্যায়ে আলোচনা করার চেষ্টা চালাবেন।

এদিকে, বাংলাদেশ-মিয়ানমার দুই দেশের জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ গত ৩০ অক্টোবর এক বৈঠক শেষে মধ্য নভেম্বর থেকে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।প্রত্যাবাসন নিয়ে দুই দেশের নেয়া এই সিদ্ধান্তের প্রতি জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক একাধিক সংস্থা ও রাষ্ট্র সমর্থন জানায়নি।

সূত্র বলেছে, যাদের নাম প্রত্যাবাসনের জন্য দেয়া হয়েছে তাদের সঙ্গেও কথা বলবে বার্গনার।রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের পুরো বিষয় মূল্যায়ন করে তিনি জাতিসংঘসহ সংশ্লিষ্টদের তা জানাবেন।

এদিকে, জাতিসংঘের মানবাধিকার বিশেষজ্ঞ ইয়াহি লি স্থানীয় সময় মঙ্গলবার (৬ নভেম্বর) জেনেভায় এক বিবৃতিতে বলেন, ‘রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের জন্য মিয়ানমারে কোনো ধরনের অনুকূল পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছে, এমন কোনো আলামত চোখে পড়ছে না।

তিনি বলেন,‘ফিরে যাওয়া রোহিঙ্গাদের নিরাপত্তার বিষয় এখনো নিশ্চিত করতে পারেনি মিয়ানমার সরকার।আমার কাছে তথ্য আছে যে, প্রত্যাবাসনের জন্য নাম দেওয়া রোহিঙ্গারা আতঙ্কে রয়েছে।’

লি আরও বলেন,‘যারা মিয়ানমার ফিরে যাবেন তাদের জন্য কয়েকটা অবকাঠামো নির্মাণ করা হয়েছে। কিন্তু এতেই কী রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়? নিরাপদে বসবাস, পূর্ণ নাগরিক মর্যাদা, চলাফেরার স্বাধীনতা, কাজ করার স্বাধীনতা এবং স্বাস্থ্য ও শিক্ষা সেবার নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত প্রত্যাবাসন ঝুঁকিপূর্ণ।’

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: