সোমবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩০ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
শাস্তির বিধান রেখে সম্প্রচার আইনের খসড়া অনুমোদন  » «   সম্পাদক পরিষদের তথ্যে ঘাটতি আছে: তথ্যমন্ত্রী  » «   প্রশ্নফাঁস: ঢাবির ঘ ইউনিটের ফল প্রকাশ স্থগিত  » «   আমেরিকার সতর্কতার জবাবে পাল্টা ব্যবস্থার হুমকি সৌদির  » «   বন্দরবাজারে স্বেচ্ছাসবক দলের মিছিলে পুলিশের বাধা, আটক ১  » «   সন্ত্রাসীদের হুমকি নভেম্বরেই খুন করা হবে মোদিকে!  » «   শাহবাগ-সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসভা বন্ধে আইনি নোটিশ  » «   ফেক এনকাউন্টার: ভারতে সাত সেনা সদস্যের যাবজ্জীবন  » «   আবারো নির্বাচন কমিশনের সভা বর্জন করলেন কমিশনার মাহবুব  » «   বিতর্কিত ৯টি ধারা সংশোধনের দাবিতে সম্পাদক পরিষদের মানববন্ধন  » «   সংসদ নির্বাচনের প্রস্তুতিতে আজ ইসির গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক  » «   পৃথিবী বাঁচাতে হলে বন্ধ করতে হবে মাংস খাওয়া!  » «   শাহজালালে ৭ কেজি সোনাসহ মালয়েশিয়ার নাগরিক আটক  » «   ইরানের ‘সরকার পরিবর্তন’ করতে চায় যুক্তরাষ্ট্র: রুহানি  » «   দুর্গা পূজা উপলক্ষে সব মানুষের শান্তি কামনা রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর  » «  

রোহিঙ্গা নারীদের যৌনতার ফাঁদ…



নিউজ ডেস্ক::রোহিঙ্গা যুবতী, নারীদের নিয়ে গভীর উদ্বেগ দেখা দিয়েছে। এতদিন খবর মিলছিল যে, তাদেরকে দিয়ে যৌন ব্যবসা করানো হচ্ছে। কিন্তু এখন তার চেয়েও ভয়াবহ তথ্য বেরিয়ে এসেছে।

বলা হয়েছে, তাদেরকে বিদেশে পাচার করা হচ্ছে যৌনদাসী হিসেবে। মিয়ানমারে সেনাবাহিনীর নৃশংসতা থেকে জীবন বাঁচাতে পালিয়ে এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে ৮ লাখ ৩০ হাজারেরও বেশি রোহিঙ্গা। তার মধ্যে নারীদের দিকে শকুনের চোখ পড়েছে।

তাদেরকে যৌন ব্যবসায় নামাচ্ছে একটি চক্র। এ বিষয়টি সামনে এনে জাতিসংঘের অভিবাসন বিষয়ক আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর মাইগ্রেশন (আওএম) জরুরি ভিত্তিতে রোহিঙ্গা নারীদের রক্ষায় পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানিযেছে।

বিভিন্ন সাহায্য বিষয়ক এজেন্সির মতে, এসব নারীকে পাচার করা হচ্ছে। বিপথে পরিচালিত করা হচ্ছে। আর এই ধারা ক্রমশ বাড়ছেই। এমনিতেই আশ্রয় শিবিরগুলোতে যৌন ব্যবসা ও যৌন দাসী বানানোর খবর প্রচলিত আছে।

দ্য সানডে টেলিগ্রাফের মতে, রোহিঙ্গা নারীদেরকে বিদেশে পাচার করা হচ্ছে এ বিষয়টিতে অবগত আইওএম। যেসব দাতব্য সংস্থা ও বেসরকারি সংস্থা বাংলাদেশে শরণার্থীদের সহায়তা করছে তাদের সঙ্গে জড়িত আইওএম।

আইওএমের জরুরি বিভাগের তথ্য বিষয়ক কর্মকর্তা অলিভিয়া হেডন বলেন, তারা পাচার বিরোধী কর্মকান্ড রোধে তহবিল সংগ্রহের চেষ্টা করছেন। একই সঙ্গে লিঙ্গগত সহিংসতা প্রতিরোধেও কাজ করছেন।

উল্লেখ্য, মিয়ানমারে সেনাবাহিনীর নৃশংসতার ফলে বর্তমান রোহিঙ্গা সঙ্কটের সৃষ্টি। এ ঘটনাকে জাতিসংঘ জাতি নিধন হিসেবে অভিহিত করেছে। সেপ্টেম্বরে মানবাধিকার বিষয়ক প্রধান জায়েদ রা’দ আল হোসেন জাতিসংঘ মানবাধিকার বিষয়ক পরিষদে বলেছেন, মিয়ানমারে জাতি নিধন চলছে। সূত্র: মানবজমিন।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: