সোমবার, ২৭ জানুয়ারী ২০২০ খ্রীষ্টাব্দ | ১৪ মাঘ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
লন্ডনে দ্বিতীয় জনপ্রিয় ভাষা বাংলা  » «   ঘুষের টাকাসহ হাতেনাতে সাব-রেজিস্ট্রার আটক  » «   আর কোনো হায়েনার দল বাংলার বুকে চেপে বসতে পারবে না  » «   সিলেটে মুক্তিযুদ্ধের পাণ্ডুলিপি সংগ্রহ করলেন প্রবাসী কল্যাণমন্ত্রী  » «   ফের জাতীয় পার্টির ঢাকা জেলা শাখার সভাপতি সালমা ইসলাম এমপি  » «   বিয়ানীবাজারে ৯৯০ পিস ইয়াবাসহ পেশাদার মাদক ব্যবসায়ী আটক  » «   আয়কর দিবস উপলক্ষে সিলেটে বর্ণাঢ্য র‌্যালি  » «   এবার শ্রীমঙ্গলে ট্রেনের ইঞ্জিনে আগুন  » «   বেলজিয়ামে মসজিদে তালা দেওয়ায় বাংলাদেশিদের প্রতিবাদ  » «   পায়রা উড়িয়ে জাতীয় পার্টির ঢাকা জেলা শাখার সম্মেলন উদ্বোধন  » «   ভারতের অর্থনীতির দুরবস্থা, জিডিপি কমে সাড়ে ৪ শতাংশ  » «   পায়রা উড়িয়ে সম্মেলন উদ্বোধন করলেন শেখ হাসিনা  » «   লন্ডন ব্রিজে আবারও সন্ত্রাসী হামলা, নিহত ২  » «   চীন থেকে মা-বাবার জন্য পেঁয়াজ নিয়ে এলেন মেয়ে  » «   রক্তে ভাসছে ইরাক, নিহত ৮২  » «  

‘রোহিঙ্গা ইস্যুতে নাক গলানোর অধিকার নেই জাতিসংঘের’–মিয়ানমার সেনাপ্রধান



আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: মিয়ানমার সেনাবাহিনীর প্রধান সিনিয়র জেনারেল মিন অং হ্লাং বলেছেন, মিয়ানমারের সার্বভৌমত্বের ব্যাপারে জাতিসংঘের হঠকারী বা নাক গলানোর কোন অধিকার নেই। দেশটির সামরিক বাহিনী পরিচালিত পত্রিকা ‘মিয়াওয়াদি’র এক সংবাদ প্রতিবেদনে একথা জানানো হয়। খবর এএফপি।

রোববার(২৩ সেপ্টেম্বর) দেশটির সেনাসদস্যের উদ্দেশে দেওয়া এক ভাষণে মিন অং হ্লাং বলেন, মিয়ানমারের সার্বভৌম বিষয়ে কোন দেশ, সংগঠন বা গোষ্ঠীর সিদ্ধান্ত নেবার অধিকার রাখে না।রোহিঙ্গা নিধনে জাতিসংঘের অভিযোগ ও গণহত্যার বিচার পরিচালনায় আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের (আসিসি) ঘোষণার প্রেক্ষিতে এই প্রথম মিয়ানমারের সেনাপ্রধান কোন মন্তব্য করলেন।

উল্লেখ্য, গত ১৯ সেপ্টেম্বর মিয়ানমারের সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের ওপর দেশটির সেনাবাহিনীর চালানো মানবতাবিরোধী অপরাধের প্রাথমিক তদন্ত শুরুর ঘোষণা দেয় আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত (আইসিসি)।

এর আগে, জাতিসংঘের স্বাধীন তদন্ত প্রতিবেদনে মিয়ানমারের অন্তত ৬ জন ঊর্ধ্বতন সেনা কর্মকর্তাকে মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে গণহত্যা চালানোর জন্য অভিযুক্ত করা হয়।একইসাথে সহিংসতা থামাতে না পারার জন্য তিরস্কার করা হয় মিয়ানমারের নোবেলজয়ী নেত্রী অং সান সুচির। তবে মিয়ানমার শুরু থেকেই দাবি করে আসছে দেশটিতে কোন ধরনের গণহত্যার ঘটনা ঘটেনি।

মিয়ানমারে সেনাবাহিনীর নিপীড়নের মুখে পড়ে অন্তত সাত লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। কক্সবাজার পরিণত হয়েছে বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ শরণার্থী আশ্রয়স্থলে।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: