মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১০ বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
শ্রীমঙ্গলে থামছে না অসাধু ব্যবসায়ীদের অবৈধভাবে বালু উত্তোলন, নিশ্চুপ প্রশাসন!  » «   জাজিরা প্রান্তে বসল ১১তম স্প্যান, দৃশ্যমান ১৬৫০ মিটার  » «   দক্ষিণ সুরমায় ইজতেমার অনুমোদন এখনো মেলেনি  » «   সিলেটের ৯টি উপজেলায় ভোটার তালিকা হালনাগাদ শুরু  » «   শোকে স্তব্ধ শ্রীলঙ্কায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৩১১  » «   জিন তাড়ানোর বাহানায় যৌন সম্পর্ক গড়তো সেই পিয়ার  » «   ভারতের মিডিয়া ও বিজেপির প্রতি ক্ষুব্ধ শ্রীলঙ্কার নেটিজেনরা  » «   পড়াশোনা না করলে জীবনের অর্থ সংকীর্ণ হয়ে ওঠে: শিক্ষামন্ত্রী  » «   এমডিকে ‘ওয়াসার সুপেয় পানির’ শরবত খাওয়াবেন জুরাইনবাসী  » «   হুমকি না থাকলেও সতর্ক আছে বাংলাদেশ : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী  » «   নকল তামাক পণ্য : হুমকিতে জনস্বাস্থ্য, রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার  » «   ৬ দিনের সফরে সিলেটে পৌঁছেছেন সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নাহিদ  » «   শাহজালাল বিমানবন্দরের টয়লেট থেকে ৪ কেজি স্বর্ণ উদ্ধার  » «   ফেঞ্চুগঞ্জে ঘরে ঢুকে হত্যাচেষ্টা, ছুরিসহ আটক  » «   শ্রীলংকায় বোমা হামলায় সুনামগঞ্জের শিশু জায়ান নিহত  » «  

রোহিঙ্গাদের স্থায়ীভাবে আশ্রয় দেওয়ার পরিকল্পনা নেই: পররাষ্ট্র সচিব



নিউজ ডেস্ক:: মিয়ানমার থেকে সহিংসতার শিকার হয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের স্থায়ীভাবে আশ্রয় দেওয়া বা গ্রহণ করার কোনও পরিকল্পনা সরকারের নেই বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্র সচিব শহিদুল হক।বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে এ কথা বলেন তিনি।

গত বছরের আগস্টে নিরাপত্তা বাহিনীর তল্লাশি চৌকিতে হামলার পর রাখাইনে পূর্ব পরিকল্পিত ও কাঠামোবদ্ধ সহিংসতা জোরালো করে মিয়ানমার সেনাবাহিনী। নিপীড়নের মুখে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে সাত লাখ রোহিঙ্গা।এক বছরেও মিয়ানমারের এই পরিস্থিতির উল্লেখযোগ্য কোনও পরিবর্তন ঘটেনি। এখনও আশার আলো দেখার মতো, নিজ দেশে ফিরে যাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী হওয়ার মতো অবস্থায় নেই বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর লাখ লাখ মানুষ। তারও আগে থেকে বাংলাদেশে রয়েছেন আরও কয়েক লাখ রোহিঙ্গা। সম্প্রতি জাতিসংঘ জানিয়েছে, বাংলাদেশে অবস্থান করা রোহিঙ্গাদের সংখ্যা দশ লাখের বেশি। বাংলাদেশ সরকারের দাবি, রোহিঙ্গাদের সংখ্যা ১১ লাখের বেশি।

বুধবার ভিয়েতনামের রাজধানী হ্যানয়ে অনুষ্ঠিত বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরামে শহিদুল হক বলেন,রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের বাসিন্দা।আমরা তাদের স্থায়ীভাবে আশ্রয় দেওয়ার কথা ভাবছি না।মানবিক এই সংকট মোকাবিলায় উন্নত দেশগুলোকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।তিনি বলেন, অন্যান্য দেশ কিংবা মিয়ানমার তাদের না নেওয়া পর্যন্ত রোহিঙ্গা শিবিরেই থাকতে হবে তাদের।

গত বছর নভেম্বরে বাংলাদেশ ও মিয়ানমার প্রত্যাবাসন চুক্তিতে রাজি হলেও এখনও কোনও রোহিঙ্গাকে ফিরিয়ে নেওয়া হয়নি। এদিকে এখনও মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসছে রোহিঙ্গারা।শহীদুল হক বলেন, কয়েক মাসের মধ্যেই রোহিঙ্গাদের কক্সবাজার ক্যাম্প থেকে ভাসনচরে নিয়ে যাওয়া হবে। তবে সেটা অস্থায়ী।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: