বুধবার, ২২ মে ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
রাজমিস্ত্রি সেজে খুনি ধরলেন এসআই লালবুর রহমান!  » «   আগামী ৫ জুন পবিত্র ঈদুল ফিতর!  » «   বাংলাদেশের সঙ্গে ঝামেলা করতে চাচ্ছে পাকিস্তান: পররাষ্ট্রমন্ত্রী  » «   লুটপাটের উন্নয়নের কথা শুনতে শুনতে জনগণ অতিষ্ঠ: রিজভী  » «   শ্লীলতাহানির বিচার না পেয়ে কিশোরীর আত্মহত্যা, ওসি প্রত্যাহার  » «   ৩৪ পয়েন্টে ওয়াসার পানি পরীক্ষার নির্দেশ  » «   যেভাবে গণনা হবে ভারতে লোকসভা নির্বাচনের ভোট  » «   ঋণখেলাপিদের গণসুবিধার নীতিমালায় স্থিতি অবস্থার আদেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট  » «   স্বামী- স্ত্রী পরিচয়ে পতিতাবৃত্তি, সাংবাদিক পরিচয়ে ব্লাকমেইল!  » «   পাকিস্তানের নাগরিকদের ভিসা বন্ধ করল বাংলাদেশ  » «   সৌদি আরবের মক্কা ও জেদ্দা নগরীতে হুতিদের মিসাইল হামলা  » «   সারাদেশের পাস্তুরিত দুধ পরীক্ষার নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট  » «   আত্মহত্যাচেষ্টার আগে শোভন-রাব্বানীর উদ্দেশে ফেসবুকে যা লিখলেন দিয়া  » «   এক সময়ের কোটিপতি এখন ভাঙারি দোকানের শ্রমিক!  » «   বগুড়া-৬ আসনে বিএনপির মনোনয়ন দৌঁড়ে এগিয়ে সিরাজ  » «  

রাখাইনের ‘বিভীষিকা’ সম্পর্কে জানেন না সুচি



আন্তর্জাতিক ডেস্ক::ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসন বলেছেন, রাখাইন রাজ্যে সংঘটিত বিভীষিকাময় ঘটনা সম্পর্কে পুরোপুরি জানেন না মিয়ানামারের কার্যত নেত্রী অং সান সুচি। রাখাইন রাজ্য ও মুসলিম অধ্যুষিত গ্রামগুলো সফর এবং সুচির সঙ্গে বৈঠকের পর বিবিসি’র কাছে জনসন এ মন্তব্য করেন।

মিয়ানমার সফরের আগে বরিস জনসন বাংলাদেশ সফর করেন এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠকে বসেন। পরে তিনি চট্টগ্রামের রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরিগুলো ঘুরে দেখেন।

ইয়াঙ্গুনে সুচির সঙ্গে বৈঠকের পর বরিস জনসন বলেন, সত্যি কথা বলতে কী, আমি আসলেই মনে করি না যে, রাখাইনের বিভীষিকাময় ঘটনা সম্পর্কে সুচি পুরোপুরি জানেন। আমি মনে করি না যে, আমরা যা দেখেছি তিনি হেলিকপ্টারে চড়ে তা দেখেছেন। আমি তার নেতৃত্বের প্রতি আস্থাশীল কিন্তু মিয়ানমারে যা ঘটেছে তা দেখে আমি অত্যন্ত দুঃখিত।

রাখাইনের ঘটনা সম্পর্কে পূর্ণাঙ্গ তদন্তের দাবি করেন ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী। এছাড়া, রোহিঙ্গা মুসলমানদের নিরাপদে দেশ ফেরার সুষ্ঠু পরিবেশ তৈরির ওপরও গুরুত্বারোপ করেন জনসন।

গত কয়েক মাস ধরে রাখাইন পরিস্থিতি নিয়ে ব্রিটিশ সরকারের মধ্যে উদ্বেগ বেড়েছে। মিয়ানমারের উগ্রবাদী বৌদ্ধ সন্ত্রাসী ও দেশটির সামরিক বাহিনীর বর্বর হামলার মুখে হাজার হাজার রোহিঙ্গা মুসলমান মারা গেছেন। এছাড়া, লাখ লাখ রোহিঙ্গা মুসলমান টিকতে না পেরে প্রতিবেশী বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছেন। তবে এ পর্যন্ত ব্রিটেনসহ পশ্চিমা দেশগুলোর পক্ষ থেকে মিয়ানমার সরকারের ওপর বড় রকেমর কোনো চাপ সৃষ্টি করা হয় নি। পার্সটুডে

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: