মঙ্গলবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ পৌষ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
আমার কিছু হলে দায়ী আপনারা মামা-ভাগ্নে: সিইসিকে গোলাম মাওলা রনি  » «   ভুলভ্রান্তি হলে ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন: শেখ হাসিনা  » «   মাহবুব তালুকদারের বক্তব্য অসত্য: সিইসি  » «   ভোটের ফলাফল প্রকাশে বিশেষ সতর্কতা অবলম্বনের নির্দেশ  » «   ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় মইনুলের জামিন  » «   বাংলাদেশের বিজয় দিবসকে অবজ্ঞা শেহবাগের!  » «   সারাদেশে ১ হাজার ১৬ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন  » «   প্রার্থিতা নিয়ে রিট খারিজ, নির্বাচন করতে পারবেন না খালেদা জিয়া  » «   জামায়াতের ২২ প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিলে রুল  » «   সিলেটে প্রাধান্য উন্নয়ন ও গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার  » «   বিএনপির ইশতেহার ঘোষণা করছেন ফখরুল  » «   আপিলেও ভোটের পথ খুলল না ইলিয়াসপত্নী লুনার  » «   যেসব ‘বিশেষ’ অঙ্গীকার থাকছে আ. লীগের নির্বাচনি ইশতেহারে  » «   আ.লীগের নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করছেন শেখ হাসিনা  » «   সিলেটে বিএনপি নেতাকর্মীদের মারধর ও ধরপাকড়ের অভিযোগ  » «  

রমজানের কাজা রোজা যেভাবে আদায় করবেন



islambg_595152296ইসলাম ডেস্ক::অনেকেই শারিরীক অসুস্থতাসহ নানাবিধ শরয়ী কারণে রমজানের রোজা রাখতে পারেননি। এখন সময় সুযোগ ও সামর্থ্য হয়েছে ওই রোজাগুলোর কাজা আদায় করার। ফলে অনেকই জানতে চাচ্ছেন, তারা রমজানের কাজা রোজাগুলো কীভাবে আদায় করবেন।

রমজানের কাজা রোজা আদায়ের বিষয়ে সব ইমাম একমত যে, কোনো ব্যক্তি যে কয়দিনের রোজা রাখতে পারেনি সে কয়দিনের রোজা কাজা আদায় করবে। এভাবে রোজা কাজা আদায়ের বিষয়ে পবিত্র কোরআনে কারিমে ইরশাদ হয়েছে, ‘আর তোমাদের মধ্যে যে ব্যক্তি অসুস্থ থাকবে অথবা সফরে থাকবে সে অন্য দিনগুলোতে এ সংখ্যা পূর্ণ করবে।’ -সূরা আল বাকারা: ১৮৫

ইসলামি শরিয়তের বিধান হলো, কাজা রোজা আদায়ের ক্ষেত্রে লাগাতারভাবে রোজা রাখা ফরজ নয়। ইচ্ছা করলে লাগাতারভাবে রোজা রাখা যায়; আবার ইচ্ছা করলে আলাদা আলাদাভাবেও রোজা রাখা যা।

আসলে রোজা পালনকারীর সামর্থ্য ও সাধ্যানুযায়ী বিষয়টি নির্ধারিত হবে। ইচ্ছে হলে প্রতি সপ্তাহে একদিন অথবা প্রতি মাসে একদিন রোজা রাখতে পারেন। উল্লেখিত পবিত্র কোরআনের আয়াতে কাজা রোজা পালনের ক্ষেত্রে লাগাতারভাবে রোজা রাখার কোনো শর্ত করা হয়নি। বরং শুধু যে কয়দিন রোজা ভঙ্গ করা হয়েছে সে সম সংখ্যক দিন রোজা রাখা ফরজ করা হয়েছে। -আল মাজমু: ৬/১৬৭ ও আল মুগনি: ৪/৪০৮

যদি লাগাতারভাবে কেউ রোজা রাখে সেটা উত্তম। তবে রোজার কাফফারার ক্ষেত্রে ধারাবাহিকভাবে ৬০ দিন রোজা রাখতে হবে। এখানে মাঝে রোজার বিরতি দিলে পুনরায় নতুন করে দিন গণনা শুরু করতে হবে এবং ৬০টি রোজা পূর্ণ করতে হবে।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: