শুক্রবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
বিএনপির বিরুদ্ধে গায়েবি মামলার প্রমাণ নেই : আমু  » «   অংশ্রহণমূলক নির্বাচনের জন্য সহযোগিতা করতে প্রস্তুত ইইউ  » «   কমলগঞ্জে ট্রাক চাপায় তরুণী নিহত,চালক পালাতক  » «   বি. চৌধুরীর চায়ের দাওয়াতে যাচ্ছে ন্যাপ–এনডিপি  » «   নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে জাতীয় নির্বাচনের তফসিল: ইসি সচিব  » «   ঈশ্বর, মৃত্যু-পরবর্তী জীবন ও স্বর্গ নিয়ে যা ভাবতেন স্টিফেন হকিং  » «   আইয়ুব বাচ্চুর মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক  » «   সাম্প্রদায়িক সম্প্রতির দৃষ্টান্ত: এক উঠোনে মসজিদ-মন্দির  » «   খাশোগি হত্যা: যুক্তরাষ্ট্রকে সাড়ে ৭ হাজার কোটি টাকা দিল সৌদি  » «   দুর্গাপূজা যেভাবে হলো হিন্দুদের প্রধান ধর্মীয় উৎসব  » «   সিলেটে ফোনে কথা বলা অবস্থায় যুবকের হঠাৎ মৃত্যু  » «   ইরান কখনো পরমাণু বোমা বানাবে না: রুহানি  » «   সিলেটে সমাবেশের অনুমতি পেয়েছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট  » «   বাংলাদেশে আরো সৌদি বিনিয়োগ চান প্রধানমন্ত্রী  » «   কানাডায় প্রকাশ্যে গাঁজা বিক্রি শুরু, ক্রেতাদের ভিড়  » «  

রওশনের লজ্জা!শেখ হাসিনার কাছে যা জানতে চায় রওশন এরশাদ!



নিউজ ডেস্ক::সিদ্ধান্তটি আচমকাই নিয়েছিলেন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। ৫ই জানুয়ারির আগের ইতিহাস। দেশ তখন অগ্নিগর্ভ। অংশগ্রহণমূলক, না একতরফা নির্বাচন? জাতীয় পার্টির নির্বাচনে অংশ নেয়া নিয়ে সংশয় ছিলো সামান্যই। দলটি ইতিমধ্যে মনোনয়নপত্রও দাখিল করেছিলো। কিন্তু হঠাৎই বেঁকে বসেন এরশাদ।

জানালেন, তার দল নির্বাচনে অংশ নেবে না। বলাবলি আছে, ঢাকায় নিযুক্ত এক বিদেশি অতিথি এ ব্যাপারে এরশাদকে প্রভাবিত করেছিলেন।

এ সিদ্ধান্তের পরিণতি অবশ্য শুভ হয়নি এরশাদের জন্য। তার ঠাঁই হয় হাসপাতালে। এরশাদ যখন বাধ্যতামূলক চিকিৎসা নিচ্ছিলেন, তখন তার দলের এক অংশের নেতারা শরণাপন্ন হন রওশনের। তাকে বুঝান নির্বাচনে থেকে গেলে কী কী লাভ হবে। সব মহলের সঙ্গে তার যোগাযোগও করিয়ে দেন। হঠাৎ স্বামীর সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে বিদ্রোহী হয়ে ওঠেন রওশন। নির্বাচনে থেকে যায় জাতীয় পার্টি। এমনকি এরশাদের মনোনয়নপত্রও প্রত্যাহার হয় না। ভাইয়ের পক্ষে শক্ত অবস্থান নিয়ে মূল্য চুকাতে হয় জিএম কাদেরকে।

নির্বাচনের পর অবশ্য এরশাদকে বলা যায়, রক্ষাই করেন রওশন। রওশন হন বিরোধী দলের নেতা। এরশাদ প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত। মন্ত্রিসভায়ও জায়গা হয় জাপা নেতাদের। আবার তারা প্রধান বিরোধীদলও। পৃথিবীর ইতিহাসে নতুন এক সরকার ব্যবস্থা কায়েম হয়। কিন্তু এতদিন পর এসে রওশন খোদ সংসদেই জানালেন তার লজ্জার কথা। জিএম কাদের বরাবরই এর বিরুদ্ধে বলে গেছেন। এরশাদ কখনো এদিকে, কখনো ওদিকে। কিন্তু মঙ্গলবার রাতে রওশন এরশাদ সংসদে যা বলেছেন, তা রীতিমতো বিস্ময়কর।

‘আমরা সরকারি দল, না বিরোধী দল কোনটা আমরা? দেশে-বিদেশে নিজেদের পরিচয় দিতে পারি না। সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে লজ্জা লাগে। কারণ সবাই জানতে চায়, জাতীয় পার্টি সরকারি দল, না বিরোধী দল। প্রধানমন্ত্রীকে বলেছিলাম, আমাদের মন্ত্রীগুলোকে উইথড্র করে দেন। বিরোধীদলের ভূমিকা পালন করতে দেন। কিন্তু আমি জানি না, কেন সেটা হয়নি।’

রওশন এরশাদ মঙ্গলবার রাতে যে অনুভূতি প্রকাশ করলেন এমন কথা তিনি অতীতে আর বলেননি। কেন হঠাৎ করে তিনি এটা
বলতে গেলেন তা একটা প্রশ্ন। কিন্তু পর্যবেক্ষকরা আরো একবার বিস্মিত হয়েছেন এটা ভেবে যে, বিরোধীদল বিরোধীদলের ভূমিকা পালন করতে পারবে কি না তা এখন নির্ভর করে সরকারি দলের ওপর। অদ্ভুত! কে না জানে, চলতি বছরের ডিসেম্বরেই আগামী সংসদ নির্বাচন। নির্বাচনের আগে হয়তো জাতীয় পার্টিকে বিরোধীদলের ভূমিকায় দেখাও যেতে পারে। জাপা মন্ত্রীরা ২-৪ মাসের জন্য সেক্রিফাইস করতেও পারেন। সরকার তাদের সে সুযোগ দিতেও পারে। রাজনীতিতে শেষ কথা বলে কিছু নেই। সূত্র: মানবজমিন।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: