বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
শুক্রবার শ্রীলঙ্কার মসজিদে হামলার হুমকি, নিরাপত্তা জোরদার  » «   মোটরসাইকেলে কাভার্ডভ্যানের ধাক্কা, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীর মৃত্যু  » «   প্রেসক্রিপশন ছাড়া অ্যান্টিবায়োটিক বিক্রিতে হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা  » «   নুসরাত হত্যা: তদন্তে বেরিয়ে আসছে পুলিশ কর্মকর্তাদের গাফিলতি  » «   সিলেটের সীমান্ত দিয়ে ঢুকছে রোগাক্রান্ত ভারতীয় গরু  » «   খালেদা জিয়া সরকারের আইনগত সহায়তা পাওয়ার যোগ্য নন: আইনমন্ত্রী  » «   পরীক্ষাকেন্দ্রে ছাত্রীকে যৌন হয়রানি, ইনস্ট্রাক্টর কারাগারে  » «   নিউজিল্যান্ডের পার্মানেন্ট ভিসা পাচ্ছেন মুসলিমরা!  » «   জাফর ইকবাল হত্যাচেষ্টা মামলায় সাক্ষ্য দিলেন মহানগর হাকিম হরিদাস কুমার  » «   কান্নাজড়িত কণ্ঠে স্ত্রী-সন্তান হারানোর বর্ণনা দিলেন সুদেশ  » «   বহুদিন গোসল না করে অফিস করেছি: স্থানীয় সরকারমন্ত্রী  » «   দল বহিষ্কার করতে পারে জেনেই শপথ নিয়েছি: জাহিদুর রহমান  » «   এবার শ্রীলঙ্কায় আদালতের পাশে বোমা বিস্ফোরণ  » «   কবরের জন্য জমি চাইলে বন্দেমাতরম বলতেই হবে: বিজেপি  » «   এবার শপথ নিচ্ছেন বিএনপির জাহিদুর  » «  

যে কারণে ৩০ বছর আগে মারা যাওয়া বাবার দেহাবশেষ তুললেন ছেলে



নিউজ ডেস্ক:: ৩০ বছর আগে লিভার ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন বাবা। এতদিন পর ছেলের শখ হলো বাবার দেহাবশেষের সঙ্গে ছবি তুলবেন। যেই ভাবা সেই কাজ। ইট-সিমেন্টের তৈরি সমাধিস্থল ভেঙে ফেলে বের করে আনলেন বাবার দেহাবশেষ।

এখানেই শেষ নয়। নগ্ন হয়ে দেহাবশেষের সঙ্গে ছবি ওঠালেন।পরে ওই ছবি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়েও ছিলেন। এমন ঘটনা ঘটেছে চীনে।ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইলের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ওই ব্যক্তির নাম সুইয়ান ঝুজু (৩৩)। ডাকনাম সি লুলু। তিনি পেশায় একজন চিত্রকর।

তিনি সমাধিক্ষেত্রের তত্ত্বাবধায়কের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে বাবার সমাধি ভাঙার কাজ শুরু করে। তার এ কাজে কয়েকজন সহযোগিতা করে।পরে সমাধিস্থল থেকে একে একে বের করে আনা হয় দেহাবশেষগুলো। পরে সেগুলো সাজিয়ে একটি পূর্ণাঙ্গ কঙ্কালে রূপ দেয়া হয়। এরপরই বাবার কঙ্কালের পাশে সম্পূর্ণ নগ্ন হয়ে শুয়ে পড়েন। তোলা হয় কয়েকটি ছবি। তার ছবি তোলাতে সহযোগিতা করেন তার স্ত্রী লিন শান।

চীনা সংবাদমাধ্যম বেইজিং নিউজের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সি লুলুর অনেক আগে থেকেই একটি স্বপ্ন ছিল-তার বাবার হাড়গুলো পাশে রেখে ছবি উঠাবেন। মার্চের শেষের দিকে ছবিগুলো তোলা হয়েছে। ছবি তোলার উপলক্ষ হিসেবে চীনের ঐতিহাসিক কুয়িং মিং ফেস্টিভ্যালকে (যাকে ইংরেজিতে টম্ব সুইপিং ডে বলা হয়) বেছে নেন।টম্ব সুইপিং ডে-তে চীনারা তাদের পূর্বপুরুষদের বিশেষভাবে স্মরণ করে থাকেন।

বাবার সঙ্গে বিভিন্ন পোজে ছবিগুলো তোলার পর গত শনিবার চিত্রকর্মবিষয়ক ওয়েবসাইট আর্ট্যান্ড ও চীনের সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম উইবোতে ছড়িয়ে দেন সি লুলু। পোস্ট করার পর ছবিগুলো এ পর্যন্ত ২৮০ লাখ বার দেখা হয়েছে।

তবে সমাধি থেকে বাবার দেহাবশেষ তুলে তা সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ায় তুমুল সমালোচনা শুরু হয়েছে। বেশিরভাগ সমালোচনাকারীই বলছেন, তিনি যা করেছেন তা রীতিমতো মৃতদের প্রতি ‘অসম্মান’ প্রদানের বহিঃপ্রকাশ ও অত্যন্ত ‘লজ্জাজনক’। নিজে রাতারাতি খ্যাতি লাভ করতেই তিনি এমন পন্থা অবলম্বন করেছেন।

একজন লিখেছেন, ‘আপনি যদি খ্যাতি লাভ না করতে এসব করে থাকেন তাহলে ছবিগুলো অনলাইনে দিলেন কেন? ঘরে ঝুঁলিয়ে রাখলেই তো পারতেন।’আরেকজন লিখেছেন, ‘আপনি বাবার দেহাবশেষ সমাধি থেকে তুলে পাশে শুয়ে ছবি তুলেছেন-এ পর্যন্ত সবই ঠিক আছে। আপনি তা করতেই পারেন। তবে আপনি সীমা অতিক্রম করেছেন তখনই যখন ওই ছবি ক্যামেরার সাহায্যে তুলেছেন।’

তবে এ ঘটনায় বেশিরভাগ ব্যক্তি ক্ষুব্ধ হলেও ওই ব্যক্তিকে বাহবা দিয়েছেন কেউ কেউ। তারা এ ঘটনাকে অত্যন্ত ‘হৃদয়স্পর্শী’ বলে অভিহিত করেছেন।এ বিষয়ে চিত্রকর সি লুলুর ভাষ্য, এটা ছিল অসাধারণ। তিনি এটা করার মাধ্যমে তার বাবাকে অনেক কাছ থেকে তার নিজের মতো করে অনুভব করেছেন। কারণ এর আগে তিনি তার এ বাবাকে এত কাছ থেকে অনুভব করতে পারেননি।

নগ্ন হয়ে ছবি তোলা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমি এর মাধ্যমে এটা বোঝাতে চেয়েছি যে, আমরা নগ্নভাবেই পৃথিবীতে এসেছি এবং এভাবেই আমাদের পৃথিবী ত্যাগ করতে হবে।’

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: