মঙ্গলবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
জেএসসি পরীক্ষায় প্রশ্ন ফাঁসে সতর্ক সরকার: শিক্ষামন্ত্রী  » «   #মিটু বিতর্ক: মামলা করলেন প্রতিমন্ত্রী আকবর  » «   সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিতে বিশ্বে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে বাংলাদেশ- প্রধানমন্ত্রী  » «   জিজ্ঞাসাবাদের সময় মৃত্যু হয় খাশোগির, সৌদি স্বীকারোক্তির প্রস্তুতি  » «   শ্রমিক নয়, গণমাধ্যম কর্মী হচ্ছেন সাংবাদিকরা  » «   জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে দু’টি বাড়ি ঘেরাও সিটিটিসির ইউনিটের  » «   ক্লিনটনের যৌন কেচ্ছা নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য হিলারির  » «   সংসদ নির্বাচনের জন্য ৭০০ কোটি টাকার বাজেট অনুমোদন  » «   বাল্যবিবাহের বিশেষ বিধান ‘ধর্ষণে’ প্রযোজ্য নয়  » «   বিশ্বনাথে প্রবাসীর স্ত্রীকে আপত্তিকর অবস্থায় দেখে ফেলায়…  » «   যেসব কারণে ইসির সভা থেকে বেরিয়ে যান কমিশনার মাহবুব  » «   সৌদি রাজপরিবারের বিরুদ্ধে সমালোচনা করলেই গুম-হত্যা!  » «   শাস্তির বিধান রেখে সম্প্রচার আইনের খসড়া অনুমোদন  » «   সম্পাদক পরিষদের তথ্যে ঘাটতি আছে: তথ্যমন্ত্রী  » «   প্রশ্নফাঁস: ঢাবির ঘ ইউনিটের ফল প্রকাশ স্থগিত  » «  

যে কারণে তিন ভাইকে বিয়ে করলেন খাদিজা!



আন্তর্জাতিক ডেস্ক::খাদিজা। জন্ম দক্ষিণ আফগানিস্তানের এক আফিম উৎপাদক কৃষক পরিবারে। মাত্র ছয় বছর বয়সে ফুপাতো ভাইয়ের সাথে বিয়ে হয় খাদিজার। যে কি না খাদিজার থেকে ১৫ বছরের বড়। পাখতুন সমাজের নিয়মানুযায়ী-স্বামীর মৃত্যুর পর তার ঠিক পরের ভাইকে বিয়ে করতে হয় বিধবাকে। এই নীতি মেনেই আফগান এই কিশোরীকে পেরতে হয় পর পর তিনটি দাম্পত্য। বর্তমানে তার বয়স ১৮।

সংবাদমাধ্যম ‘দি ইন্ডিপেন্ডেন্ট’ অনুযায়ী, জন্মের আগেই খাদিজার বাবা তার ফুপাতো ভাইয়ের ছেলের সঙ্গে তার বিয়ে ঠিক করে রেখেছিলেন। সে অনুযায়ী ৬ বছর বয়সে খাদিজার বিয়ে হয় তার থেকে ১৫ বছরের বড় এক তালেবান সদস্য জিয়া উল হকের সঙ্গে। সেই সময় মারজা শহর ছিল তালিবানদের স্বর্গ। বিয়ের আগেই জিয়া তালেবানদের সঙ্গে যুদ্ধে যোগ দেন। পরে মার্কিন সেনার হাতে নিহত হন।

জিয়া মারা যাওয়ার পর ১০ বছর বয়সে তার ছোট ভাই আমিনুল্লাহর সঙ্গে বিয়ে হয় খাদিজার। আমিনুল্লাহ পেশায় পুলিশকর্মী ছিলেন। ২০১৪ সালে তালেবানদের সঙ্গে লড়াই করতে গিয়ে আমিনুল্লাহও মারা যায়। খাদিজার গর্ভে তখন কন্যা সন্তান। ১৪ বছর বয়সে তার প্রথম সন্তান জন্ম নেয়।

প্রয়াত স্বামীদের ছোট ভাই শামসুদ্দিন। পেশায় দোভাষী। চার মাস পর বিধবা খাদিজার পুনর্বিবাহ হয় আমিনুল্লাহর ছোট ভাই শামসুদ্দিনের সঙ্গে।

সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে শামসুদ্দিন জানিয়েছে, সে খাদিজাকে বিয়ে করতে চায়নি। দেশাচারই তাকে বাধ্য করেছে বড় ভাইয়ের বিধবাকে বিয়ে করতে। সে চেয়েছিল, খাদিজা অন্য কাউকে বিয়ে করুক। কিন্তু তখন কিছুই করার ছিল না।

বিয়ের পর শামসুদ্দিন তার পরিবার নিয়ে হেলমন্দ প্রদেশের রাজধানী লস্কর গড়ে চলে যায়। সেখানে সে প্রতিদিন ২৫ মার্কিন ডলারের বিনিময়ে দোভাষীর কাজ করতে থাকে। কিন্তু একদিন সেই চাকরিও চলে যায়। পরে রিকশা চালক হিসেবে কাজ শুরু করেন তিনি।

বর্তমানে খাদিজা ও শামসুদ্দিনের সংসারে এক পুত্রসন্তান রয়েছে। তালেবানরা নিয়মিত ফোন করে সেই শিশুটিকে হত্যার হুমকি দিচ্ছে। তার স্বামীও নিয়মিত প্রাণনাশের হুমকি শোনে। যুদ্ধ আর তালেবান শাসন তাদের সমস্ত স্বপ্নকে এক ফুঁয়ে নিবিয়ে দিয়েছে।

এই কাহিনি একা খাদিজার নয়। এটা আফগান গ্রামাঞ্চলের বেশিরভাগ পরিবারেরই ছবি। খাদিজার হাত ধরে পুত্র-কন্যা নিয়ে বাঁচতে চায় শামসুদ্দিন। আর কোনো স্বপ্ন তার সামনে নেই।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: