রবিবার, ১৬ জুন ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ২ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
বিকল্প কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা না থাকায় ভালো নেই সুনামগঞ্জের হাওরাঞ্চলের মানুষ  » «   সীমান্তে বাংলাদেশি হত্যা ‘অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যু’: বিএসএফ মহাপরিচালক  » «   সর্বোচ্চ চেষ্টা’ করেও ওসি মোয়াজ্জেমকে ধরতে পারছে না পুলিশ  » «   পৃথিবীর ইতিহাসে সর্বোচ্চ তাপমাত্রার রেকর্ড কুয়েতে  » «   রোহিঙ্গা সংকট সমাধান না হলে অস্থিতিশীল হবে এশিয়া: রাষ্ট্রপতি  » «   অবশেষে ইমরান-মোদির সৌজন্য সাক্ষাৎ  » «   এমপিও পাবেন মাদরাসার সাড়ে ২১ হাজার শিক্ষক  » «   বাজেট সমালোচকদের যে গল্প শোনালেন প্রধানমন্ত্রী  » «   সুনামগঞ্জে পরিবহন সেক্টরে নৈরাজ্য ঠেকাতে প্রতিবাদ  » «   পশ্চিমবঙ্গে থাকতে হলে বাংলায় কথা বলতে হবে: মমতা  » «   ইকোসকে বিপুল ভোটে জয় পেল বাংলাদেশ  » «   মোবাইলে ১০০ টাকার কথা বললে ২৭ টাকা কেটে নেবে সরকার  » «   সাক্ষ্য দিতে চাওয়ায় প্রাণটাই কেড়ে নিল আসামিরা  » «   পশ্চিমবঙ্গকে বাংলাদেশ নয়; গুজরাট বানানো ভাল : দিলীপ ঘোষ  » «   বাজেটের প্রভাব: দাম বাড়বে যেসব জিনিসের  » «  

মৌসুমী হামিদের প্রথম প্রেম



4বিনোদন ডেস্ক: আমি তখন খুলনা আজম খান কমার্স কলেজে পড়ি। ছেলেটির সঙ্গে একই ব্যাচে কোচিংয়ে পড়তাম। ছেলেটির নাম না বলি। টানা চার বছর আমাদের প্রেম ছিল।
কোচিংয়ে পড়ার সময় প্রথম প্রথম আমাদের দুজনের মধ্যে চরম শত্রুতা ছিল। কথা বলা তো দূরের কথা, সামনা সামনি পড়ে গেলে দুজনই উল্টো দিকে হাঁটা দিতাম। এভাবে চলতে চলতে তিন বছরের মাথায় শত্রুতা থেকে দুজনের বন্ধুত্ব হয়ে গেল। আমরা একে অপরকে ‘তুই’ সম্বোধন করতাম। আমরা দুজনই নিজেদের ব্যক্তিগত সব বিষয়ই একে অপরের সঙ্গে শেয়ার করতাম। কীভাবে জানি, একসময় প্রেম হয়ে গেল।
মফস্বল শহর। সব সময় আমরা একসঙ্গে ঘুরতে পারতাম না। দু-তিন মাস পরপর আমরা একসঙ্গে বের হতাম। রিকশায় চুপি চুপি সারা শহর ঘুরে বেড়াতাম। ঠিক চার বছরের মাথায় আমাদের প্রেম ভেঙে যায়। কিন্তু বন্ধুত্ব নষ্ট হয়নি। ছেলেটি এখন এমবিএ পড়ছে। এখনো খুলনায় গেলে দেখা হয়, আড্ডা হয়।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: