শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৩ কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
দ্য হান্ড্রেডের ড্রাফটে আরও ৫ বাংলাদেশি ক্রিকেটার  » «   বাংলা একাডেমির সুপারিশে বদলে গেল বাংলা বর্ষপঞ্জি  » «   ওসমানীনগরে নামাজের সময় মাছ বিক্রি বন্ধ  » «   মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদে হংকং ‘ডেমোক্রেসি অ্যাক্ট’ পাস  » «   গুগল ম্যাপে আবরারের নামে হল, খুনিদের নামে শৌচাগার  » «   গণশপথ নিয়ে আন্দোলনের ইতি টানলেন বুয়েট শিক্ষার্থীরা  » «   দক্ষিণ আফ্রিকায় মসজিদে যাওয়ার পথে গুলিতে বাংলাদেশির মৃত্যু  » «   তুরস্কের বিরুদ্ধে লড়তে কুর্দিদের ‘প্রশিক্ষণ দিয়েছিল’ যুক্তরাষ্ট্র  » «   অপরাধ প্রতিরোধে সাংবাদিকরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন: পুলিশ সুপার  » «   আবরার হত্যা: ২০ জনকে আসামি করে চার্জশিট হচ্ছে  » «   কানাইঘাটে ১১টি ভারতীয় গরু আটক  » «   জাবির গণরুম: ম্যানার শেখানোর নামে নবীন শিক্ষার্থী নির্যাতন  » «   কতগুলো বাটপার আছে যারা জাতীয় নেতা: ভিপি নুর  » «   ১৫ দিনে পাসপোর্ট না হলে কারণ জানিয়ে দিতে হবে আবেদনকারীকে  » «   ভারতে পালানোর সময় আবরার হত্যার আসামি সাদাত গ্রেফতার  » «  

মৌলভীবাজারে মায়ের ‘পরকীয়া’ দেখে ফেলায় মেয়ে খুন



নিউজ ডেস্ক:: মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলায় পরকীয়া দেখে ফেলায় মেয়েকে খুন করার অভিযোগ উঠেছে মায়ের বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত মায়ের নাম জেলি বেগম। তিনি উপজেলার বড়ধামাই গ্রামের বাসিন্দা কাতার প্রবাসী কাজল মিয়ার স্ত্রী। দুইমাস আগের এই ঘটনায় নিহত স্কুলছাত্রী শাহিনা জান্নাত অপির (১২) চাচী সুকেদা বেগম আদালতে পিটিশন মামলা দায়ের করেছেন। আদালত মামলার প্রতিবেদন দাখিল করতে থানার ওসিকে নির্দেশ দিয়েছেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, গত ১৮ জুন রাতে অপি আত্মহত্যা করেছে বলে স্বজনদের মধ্যে প্রচার করেন মা জেলি বেগম। জেলা ম্যাজিস্ট্রেট বরাবরে জেলি বেগমের আবেদনের প্রেক্ষিতে ময়নাতদন্ত ছাড়াই পরদিন ১৯ জুন স্কুলছাত্রী অপির মরদেহ দাফন করা হয়। জেলি ‘আত্মহত্যায়’ মেয়ে মারা গেছে দাবি করে থানায় ইউডি মামলা করলেও প্রতিবেশীরা দাবি করেন ঘটনাটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড।

জানা গেছে, ঘটনার রাতে পরকীয়ার বিষয়টি প্রবাসে থাকা বাবাকে বলে দেয়ার হুমকি দিলে মা জেলি বেগম ক্ষিপ্ত হয়ে অপিকে লোহার রড দিয়ে বেধড়ক পেটাতে থাকেন। এক পর্যায়ে সে মারা যায়। পরে মা জেলি বেগম গলায় ওড়না পেছিয়ে বাথরুমের বর্গায় মেয়ের মরদেহ ঝুলিয়ে সে আত্মহত্যা করেছে বলে এলাকায় প্রচার করেন। অপির শরীরে মারপিটের অসংখ্য দাগ থাকা স্বত্ত্বেও স্থানীয় প্রভাবশালী মহলের সঙ্গে জেলি বেগমের গভীর সখ্যতা থাকায় তাদের মাধ্যমে থানা পুলিশকে অন্ধকারে রেখে তিনি ময়নাতদন্ত ছাড়াই মেয়ের মরদেহ দাফন করেন।

জুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জাহাঙ্গীর হোসেন সরদার জানান, বিজ্ঞ আদালত স্কুলছাত্রী অপির মৃত্যু সংক্রান্ত ইউডি মামলার প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন। ইতোমধ্যে তা আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: