শনিবার, ২০ জুলাই ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ শ্রাবণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
নিজেদের বিমান বাহিনী থেকে সুরক্ষা পেতেই এরদোগানের এস-৪০০ ক্রয়!  » «   জাপানে অ্যানিমেশন স্টুডিওতে অগ্নিসংযোগ, নিহত ১২  » «   খাদ্য ঘাটতি পূরণ করেছি, এখন লক্ষ্য পুষ্টি: প্রধানমন্ত্রী  » «   রিফাত হত্যায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে মিন্নি  » «   বাংলাদেশের পতাকার আদলে অন্তর্বাস বিক্রি করছে অ্যামাজন  » «   রিফাত হত্যাকাণ্ড: এবার রিশান ফরাজীও গ্রেফতার  » «   বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি কেলেঙ্কারি: সিস্টেম লস নয় দুর্নীতি  » «   বন্যার কারণে জাতীয় ও উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন পরীক্ষা স্থগিত  » «   হঠাৎ কিশোর গ্যাং নিয়ন্ত্রণে শক্ত পদক্ষেপ, মাঠে নামছে র‌্যাব  » «   ধসে পড়া ভবনে মিললো বাবা-ছেলের মরদেহ  » «   ইসরাইলের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের তীব্র নিন্দা  » «   ‘নয়ন বন্ডের বাড়িতে বসেই স্বামীকে হত্যার পরিকল্পনা করেন মিন্নি’  » «   সিলেটের ২ জনসহ দেশসেরা ১২ শিক্ষার্থীকে পুরস্কার দিলেন প্রধানমন্ত্রী  » «   বেনাপোল ও বনলতা এক্সপ্রেস ট্রেনের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী  » «   উপজেলা নির্বাচন: সিলেটে আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীদের বহিষ্কারের তালিকা  » «  

মৌলভীবাজারে চিরকুট লিখে যুবতীর আত্মহত্যা



নিউজ ডেস্ক:: মৌলভীবাজার সদর উপজেলার নাজিরাবাদ ইউনিয়নের আগনসী গ্রামে তানিয়া আক্তার রেলেনা(২০) নামে এক যুবতী গলায় ওড়না দিয়ে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে। নিহত যুবতীর পাশে একটি চিরকুট পায় তার পরিবারের লোকজন। মৃত যুবতী আগনসী গ্রামের মৃত আহাদ মিয়ার মেয়ে। গত ১৩ নভেম্বর মঙ্গলবার সকালে নিজ ঘরের তীরের সাথে ওড়না পেঁছানো ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পায় তানিয়াকে স্থানীয়রা। তাকে তারা মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা হাসপাতালে নিয়ে আসেন, হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত বলে ঘোষনা দেন।

সদর থানার পুলিশ খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করে সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছেন। মৃত তানিয়ার পরিবারের লোকজন পুলিশের কাছে একটি চিরকুট দেয়। তাহাদের কথা, এই চিরকুট মৃত তানিয়ার হাতের লিখা। তাতে লিখা ছিল- “বাভুল আমার জীবন নষ্ট করে দিছে আর কেউ নেই মোবাইলে রেকট আছে দেক” মৌলভীবাজার মডেল থানার ওসি সুহেল আহমদ জানান মৃতের সাথে সুইসাইড লিষ্ট উদ্ধার করা হয়েছে। এই চিরকুট মৃত তানিয়ার হাতের লিখা কি না তা খতিয়ে দেখা হবে। এ ঘটনায় আত্মহত্যার প্ররোচনার দায়ে নিয়মিত মামলা দায়ের হবে।

যুবতী তানিয়ার এ মৃত্যু আমাদের, অনেক কিছুর দিকেই ইশারা দেয়। প্রথমতঃ আমাদের পুরনো ধ্যান ধারনার সমাজের বিষয়ে এ চিরকুট এক বলিষ্ট প্রতিবাদ। কোন খোঁজ খবর না নিয়েই সম্পূর্ণ অনুমান থেকে বলা যায় যে, অল্প শিক্ষিত তানিয়া কোন এক বাভুলের সাথে সখ্যতায় জড়িয়ে পড়ে। যা, তানিয়ার এ বয়সে খুবই স্বাভাবিক একটি বিষয়। কিন্তু এই জড়িয়ে পড়াকে আমাদের অন্ধ বধির ধর্মান্ধ সমাজ ব্যবস্থা কোন ভাবেই মেনে নেয় না।

দ্বিতীয়তঃ হয়তো বাভুল তানিয়ার সাথে মিথ্যে ভালবাসার খেলা খেলেছে। শেষমেষ তানিয়াকে ধোকা দিয়েছে। ফলে এক পর্যায়ে তানিয়া সমাজের ভয়ে আত্মহত্যার এ পথ নিতে বাধ্য হয়েছে।এটি সম্পূর্নটাই আমাদের অনুমান।আজ যদি আমাদের সমাজ তানিয়া-বাভুলের এ সম্পর্ককে সহজভাবে নিত এবং সংঘটিত কোন অনৈতিকার সুবিচারের দায়ীত্ব সরকার নিত, তা’হলে কি তানিয়া মৃত্যুর পথ বেচে নিতো? নিশ্চয়ই না।

আমরা আশা করবো দ্বায়ীত্বপ্রাপ্ত ও সংশ্লিষ্ট মানুষজন এ অপ্রিয় অবাঞ্চিত মৃত্যু ঘটনার জট খুলতে সক্ষম হবেন এবং কি কারণে তানিয়া মৃত্যুকে বেচে নিলো মূল সে ঘটনা জনসমক্ষে নিয়ে আসবেন।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: