বুধবার, ১৬ জানুয়ারী ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৩ মাঘ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
পদ্মা নদীর ওপারেই বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর হবে  » «   স্যাটেলাইটে ধরা পড়ল সুন্দরবনের ৪০ একর বন উধাও!  » «   রহস্য খোলাসা করলেন সৌদি থেকে পালিয়ে আসা সেই তরুণী  » «   সংরক্ষিত আসনে মনোনয়ন ফরম কিনলেন তৃতীয় লিঙ্গের ৮ জন  » «   শাস্তির বদলে পদোন্নতি! লেক দূষণ রোধের ৫০ কোটি টাকা নয়ছয়  » «   ব্রিটিশ পার্লামেন্টে ব্রেক্সিট চুক্তি প্রত্যাখ্যান  » «   প্রধানমন্ত্রীর সই জাল করে টাকা আত্মসাৎ!  » «   আন্তর্জাতিক ক্বিরাত সম্মেলন শুরু ৮ ফেব্রুয়ারি  » «   এমপিদের শপথ গ্রহণের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে রিটের শুনানি বুধবার  » «   গায়েবি মামলা বলতে কিছু নেই : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী  » «   মেধাবীরা আত্মহত্যা করে আর মেধাহীনরা জাতির ভবিষ্যৎ নির্ধারণ করে  » «   ৫০ আসনের ৪৭টিতে অনিয়ম: টিআইবি  » «   টিলাগড় ইকোপার্ক: বাঘ-সিংহ নিয়ে কেবলই আশ্বাস!  » «   কোটা সংস্কার আন্দোলনের চার মামলায় প্রতিবেদন ১৪ ফেব্রুয়ারি  » «   প্রশ্নফাঁস ও কোচিং বাণিজ্য বন্ধসহ ৫ নির্দেশনা দিলেন শিক্ষামন্ত্রী  » «  

মৌলভীবাজারের রেস্ট হাউজটিই ছিল পাক বাহিনীর টর্চার সেল



মৌলভীবাজার সংবাদদাতা:: ছিল রেস্ট হাউজ। তাই এখানে ভালো একটি অবকাঠামো ছিল। ভালো অবকাঠামো থাকায় ৭১-এ পাকিস্তানি বাহিনী এই জায়গাকেই বেছে নেয় তাদের সিলেট অঞ্চলের ব্রিগেড হেড-কোয়ার্টার হিসেবে।

১৯৭১ সালের ভয়াল স্মৃতিবাহী মৌলভীবাজার পৌরসভাধীন বনবীথি আবাসিক এলাকার তখনকার দিনের রেস্ট হাউজ বর্তমানে প্রাথমিক শিক্ষক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র (পিটিআই)। এখানে পাকিস্তানি সেনাদের তৈরি করা পরিখা (বাংকার) আজও সেই বর্বরতার সাক্ষ্য বহন করছে।

পাকিস্থানি বাহিনীর হেড-কোয়ার্টার বানানোর পর পার্শ্ববর্তী এলাকার একটি ইটভাটা থেকে তাদের সহযোগী এ দেশীয় রাজাকারদের সহযোগিতায় জোর করে ইট এনে স্থাপনাকে আরও মজবুত করে। তৈরি করে নির্যাতনের সেল ও বাংকার।

পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের লোকদের এনে এখানে বর্বর নির্যাতন করতো।

এসব ইতিহাস মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে এখনও বিভীষিকাময়। পিটিআই পরিখার প্রতি দেয়ালে ভয়াল নির্মমতার ছবি ছিটিয়ে থাকলেও এ প্রজন্ম তা দেখতে পায় না। স্বাধীনতার ৪৬ বছর পূর্ণ হলেও এই পরিখাকে পরিকল্পিতভাবে সংরক্ষণ ও রক্ষণাবেক্ষণ করা হচ্ছে না। পিটিআই কর্তৃপক্ষ স্ব-উদ্যোগে জায়গাটিকে আলাদা করে রাখলেও সচেতন মহলের দাবির স্মৃতিসৌধ নির্মাণ করা সম্ভব হয়নি।

সরেজমিনে দেখা যায়, প্রাথমিক শিক্ষক প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের (পিটিআই) প্রবেশদ্বারে স্মৃতিবহ এই পরিখাটির ত্রিমুখ পিটিআই ভবনে বেষ্টিত। সামনের দিকটি শুধু খালি। দেয়ালে ছত্রাক আকড়ে আছে। উপরিভাগে বেশ গুছিয়ে ফুলের টব রাখা হয়েছে। তবে তা পিটিআই কর্তৃপক্ষের স্ব-উদ্যোগে।

মৌলভীবাজার প্রাথমিক শিক্ষক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র (পিটিআই) এর প্রশিক্ষক দীপংকর মহান্ত বলেন, আমরা যেটুকু পারি এই জায়গাটিকে আগলে রাখি। সপ্তাহে একবার পরিষ্কার করানো হয়। তবে এটিকে আরও অনেক আগে সংরক্ষণ করে একটি স্মৃতিসৌধ ও মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর করা যেত। আমরা অনেকবার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকেও বলেছি।

এ বিষয়ে মৌলভীবাজার জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার জামাল উদ্দিন জানিয়েছেন, আমরা এই স্থানটিতে একটি স্মৃতি স্থাপনা নিমার্ণের প্রস্তাব মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছি। মন্ত্রণালয় এই ব্যাপারে আন্তরিক হবে বলেই আশা করছি।

তিনি আরও বলেন, এখানে কি পরিমাণ নির্যাতন করা হতো তা কল্পনা করেও অনুধাবন করতে পারবেন না।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: