শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৩ কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
দ্য হান্ড্রেডের ড্রাফটে আরও ৫ বাংলাদেশি ক্রিকেটার  » «   বাংলা একাডেমির সুপারিশে বদলে গেল বাংলা বর্ষপঞ্জি  » «   ওসমানীনগরে নামাজের সময় মাছ বিক্রি বন্ধ  » «   মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদে হংকং ‘ডেমোক্রেসি অ্যাক্ট’ পাস  » «   গুগল ম্যাপে আবরারের নামে হল, খুনিদের নামে শৌচাগার  » «   গণশপথ নিয়ে আন্দোলনের ইতি টানলেন বুয়েট শিক্ষার্থীরা  » «   দক্ষিণ আফ্রিকায় মসজিদে যাওয়ার পথে গুলিতে বাংলাদেশির মৃত্যু  » «   তুরস্কের বিরুদ্ধে লড়তে কুর্দিদের ‘প্রশিক্ষণ দিয়েছিল’ যুক্তরাষ্ট্র  » «   অপরাধ প্রতিরোধে সাংবাদিকরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন: পুলিশ সুপার  » «   আবরার হত্যা: ২০ জনকে আসামি করে চার্জশিট হচ্ছে  » «   কানাইঘাটে ১১টি ভারতীয় গরু আটক  » «   জাবির গণরুম: ম্যানার শেখানোর নামে নবীন শিক্ষার্থী নির্যাতন  » «   কতগুলো বাটপার আছে যারা জাতীয় নেতা: ভিপি নুর  » «   ১৫ দিনে পাসপোর্ট না হলে কারণ জানিয়ে দিতে হবে আবেদনকারীকে  » «   ভারতে পালানোর সময় আবরার হত্যার আসামি সাদাত গ্রেফতার  » «  

‘মোদি হলেন সন্ত্রাসী,’ হাউসটনে বিক্ষোভে শিখ-কাশ্মীরিরা (ভিডিও)



আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: হাজার হাজার কাশ্মীরি, শিখ ও মানবাধিকার সংস্থার কর্মীরা টেক্সাসের হাউসটনে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন। এতে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করা পাকিস্তানিরাও অংশ নিয়েছেন।অধিকৃত কাশ্মীরে সাংবিধানিক স্বায়ত্তশাসনের অধিকার কেড়ে নেয়ার পর সেখানে মোদির নেতৃত্বাধীন হিন্দুত্ববাদী ভারত সরকারের মানবাধিকার লঙ্ঘনের নিন্দা জানানো হয়েছে বিক্ষোভ থেকে।-খবর এক্সপ্রেস ট্রিবিউন ও এবিসিথার্টিনের

হিমালয় অঞ্চলটিতে পাশবিক বলপ্রয়োগ ও কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করে রেখেছে ভারত সরকার। গত ৫ আগস্ট উপত্যকাটিকে ভারতের সঙ্গে একীভূত করার পর সেখানে যোগাযোগ অচলাবস্থা জারি করেছে তারা।মুসলমান অধ্যুষিত রাজ্যটিতে ধরপাকড়, গভীর রাতে বাড়িতে বাড়িতে অভিযান চালিয়ে যুবকদের ধরে নিয়ে যাওয়াসহ বর্বর নৃশংসতা চালাচ্ছে ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনী।

রোববার হাউসটনের একটি ফুটবল মাঠে ‘হাউডি মোদি’ নামের এই জনসমাবেশের আয়োজন করা হয়েছে। এতে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী মোদির পাশাপাশি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও উপস্থিত ছিলেন।এবিসি নিউজের খবরে বলা হয়েছে, আন্তঃধর্মীয় মানবাধিকার সংস্থা জাস্টিস ফর অল ও তার মিত্ররা স্টেডিয়ামের বাইরে একটি বিশাল বিক্ষোভের আয়োজন করেছে। এতে ‘মোদি, তুই ফিরে যা’, ‘মোদি হলেন সন্ত্রাসী’ বলে স্লোগান দিতে দেখা গেছে অংশগ্রহণকারীদের।হাউসটন, ডালাস, অস্টিন ও সেন্ট অ্যান্টোনিওসহ বিভিন্ন শহর থেকে মুসলমান এবং শিখরা এসে বিক্ষোভে অংশ নেন।

মোদির জনসমাবেশকে রুখে দিতে তারা স্লোগানে স্লোগানে মুখরিত করে তোলেন এনআরজি স্টেডিয়ামের বাইরের সড়ক।হাউসটনে রোববারের স্লোগানে শিখ সম্প্রদায়ের লোকজনও দলে দলে অংশ নিয়েছেন। অর্ধশত বাসযোগে ৪০ হাজার বিক্ষোভকারী জড়ো হয়ে মোদির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

ভেন্যুর চারপাশে ভারত, মোদিবিরোধী ফেস্টুন ও ব্যানার দিয়ে ভরিয়ে দেয়া হয়। উইফরনিউজের খবরে বলা হয়েছে, ২০ হাজার পাকিস্তানি ও বিচ্ছিন্নতাবাদী শিখ ধর্মীয় লোকজন মোদির বিরুদ্ধে বিক্ষোভে জড়ো হয়েছেন।মোদির বিরুদ্ধে যখন তারা স্লোগান দিচ্ছিলেন, তখন তিনি মঞ্চেই ছিলেন। মোদিকে তারা ভারতীয় সন্ত্রাসবাদের চেহারা হিসেবে উল্লেখ করেন।

সমাবেশে দেয়া বক্তৃতায় মোদিকে উদ্দেশ্য করে ট্রাম্প বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম নিবেদিত, সর্বাধিক অনুগত বন্ধু ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে টেক্সাসের এই অনুষ্ঠানে আসতে পেরে আমি রোমাঞ্চিত বোধ করছি।জবাবে মোদি বলেন, হোয়াইট হাউসের সত্যিকার বন্ধু ভারত। তিনি ট্রাম্পকে উষ্ণ, বন্ধুসুলভ, সহজগম্য, উদ্যমী ও বুদ্ধিদীপ্ত নেতা হিসেবে উল্লেখ করেন।

ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা থেকে সর্বাধিনায়ক, পরিচালকমণ্ডলীর সভাকক্ষ থেকে শুরু করে ওভাল অফিস, স্টুডিও থেকে বৈশ্বিক মঞ্চ- সব জায়গায় তিনি স্থায়ী প্রভাব ফেলতে সক্ষম হয়েছেন।মোদিবিরোধী বিক্ষোভকারীরা বলেন, মোদির শাসনামলে ভারতে নৃতাত্ত্বিক সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে সহিংসতা ভারতকে গণহত্যার নজরদারির তালিকায় রেখেছে।পাঁচ বছর আগে তিনি ক্ষমতায় আসার পর থেকে দেশটিতে সামাজিক ও ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে সহিংসতা মারাত্মক রূপ নিয়েছে।

সাঈদ আলী নামে এক বিক্ষোভকারী বলেন, কাশ্মীরে আট লাখ সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। সেখানকার অধিবাসীদের স্বাধীনতা কেড়ে নেয়া হয়েছে। তারা ঘর থেকে বের হতে পারছেন না।বিক্ষোভকারীরা বলেন, শিশুদের কারাগারে আটকে রাখা হয়েছে। উপত্যকাটির বাসিন্দাদের ওপর নিপীড়ন চালাচ্ছে পুলিশ। আর ভারতীয় সেনারা তাদের গুলি করে হত্যা করছে। রাজ্যটির ইন্টারনেট ও টেলিফোন সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেয়া হয়েছে।

মোদিকে হাউসটনে স্বাগত জানানো হয়নি- সেই খবর তার কানে পৌঁছাতে চাচ্ছেন বলে দাবি করেন বিক্ষোভকারীরা। গুরপাটওয়ান্ত পান্নু নামে একজন বলেন, মোদির জন্য আমেরিকা নয়। আমেরিকা ন্যায়সঙ্গত জীবন ও সম্পদের পক্ষে। কিন্তু ঠিক তার বিপরীত হচ্ছে মোদি।

তিনি বলেন, মোদি অন্ধ ও বধির। কারণ তিনি যদি কিছু দেখতেন, তা হলে কাশ্মীরে ৮০ লাখ লোককে তিনি হত্যা করতে যাচ্ছেন বলেও ইতিমধ্যে দেখতে পেতেন।এর আগে মার্কিনভিত্তিক কাশ্মীরি মানবাধিকারকর্মীরা মোদির বিরুদ্ধে হাউসটনে একটি মামলা করেন। এতে কাশ্মীরে তার বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগ আনা হয়েছে।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: