রবিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ আশ্বিন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
আইটেম গানে নাচবেন শাকিব-মিম  » «   মডেল থেকে জঙ্গি : ল্যাপটপে চাঞ্চল্যকর তথ্য!  » «   ‘উত্তর কোরিয়ার পাগলকে শিক্ষা দিতে যাচ্ছি’  » «   বাড্ডায় অগ্নিকাণ্ডে নিহত ১, দগ্ধ ২  » «   সাপাহারে দূর্গা পূজার প্রতিমা তৈরীর কাজ শেষ: বাঁকী প্রতিমার সাজ সজ্জা  » «   দিনাজপুরে বজ্রপাতে ৮ জনের মৃত্যু  » «   এবার ধর্ষণের অভিযোগে ফলপ্রিয় ‘ফলাহারি বাবা’ গ্রেফতার  » «   ‘হালে পানি না পেয়ে প্রধানমন্ত্রীর নিখুঁত প্রচেষ্টায় খুঁত ধরার অপচেষ্টা বিএনপির’  » «   মেক্সিকোয় ভূমিকম্পে ৮ বিদেশি নাগরিক নিহত  » «   আবেগ লুকিয়ে রাখা মোটেও বুদ্ধিমানের কাজ নয়  » «   খুলনায় ‘চিংড়িতে জেলি’ পুশের অভিযোগ  » «   আমেরিকায় একই ফ্রেমে বাংলাদেশের ৮ তারকা  » «   পাকিস্তানি ব্যাংকে দুর্নীতি: কয়েকজন বাংলাদেশি জড়িত  » «   তথ্য প্রযুক্তিতে বাংলাদেশ অনেক দূর এগিয়ে গেছে: ড. জাফর ইকবাল  » «   উ. কোরিয়ায় কম্পন, ফের পারমাণবিক পরীক্ষা!  » «  

মৃত্যুর পরে কী হয়?



নিউজ ডেস্ক::
‘মৃত্যু’ শব্দটাই এমন এক অর্থ বহন করে, যা সব কিছুর শেষকে ইঙ্গিত করে। কিন্তু সৃষ্টিতে কোনও কিছুরই অন্ত নেই। সৃষ্টি অনাদি এবং অনন্ত। পদার্থ বিজ্ঞান আমাদের জানিয়েছে, সবকিছুই শক্তির রূপভেদ।

আমাদের কাছে মৃত্যু এক প্রহেলিকা। এক রহস্য। মৃত্যুর এই বিশেষ চরিত্রের পিছনে রয়েছে একটাই কারণ। সেটা হল এই যে, মৃত্যুর পরের অবস্থা জীবেনের কাছে অজ্ঞাত। কিন্তু এ কথা অস্বীকার করার উপায় নেই যে, মৃ্ত্যু জীবনেরই একটি অঙ্গ। জন্মগ্রহণের সঙ্গে সঙ্গে মৃত্যুও নিশ্চিত হয়ে যায়। সেদিক থেকে দেখলে মৃত্যু কোনও ‘অ-স্বাভাবিক’ বিষয়ই নয়। অথচ মৃত্যুকে ঘিরে আমাদের জল্পনা-কল্পনার অধিকাংশ জায়গা জুড়েই থাকে ভয়। মৃ্ত্যু কি আদৌ ভয়ের বিষয়?

ভেবে দেখুন, আমরা মৃ্ত্যুকে ভয় পাই। কিন্তু বেঁচে থাকতে তো পাই না! অথচ যুক্তি দিয়ে দেখলে বোঝা যায়, বেঁচে থাকারই একটা অনিবার্য ধাপ মৃত্যু। এমন অনেকেই রয়েছেন, যাঁরা মৃত্যুভয়ে ভীত হয়েই জীবন কাটান। এমন জীবনের কোনও মানে হয়? এ তো শুধু টিকে থাকা! কিন্তু মৃত্যুকে যদি জীবনের এক অবিচ্ছেদ্য অংশ হিসেবে দেখি, তা হলে সেই ভয়ের ভার অনেকটাই কমে যায়। জীবনকে যথাযথ স্বাদে উপভোগ করা যায়।

কিন্তু মৃত্যু কি সত্যিই অজানা? আমাদের চৈতন্যকে যদি এই প্রশ্ন করা যায়, তো সেখান থেকে উত্তর আসতেই পারে, না তেমনটা নয়। কিন্তু এই ‘সত্য’ আমাদের ‘মনে থাকে না’। আমাদের চৈতন্য যে সর্বব্যাপ্ত মহাচৈতন্যের অংশ, সেখানে কিছুই ‘অজানা’ নয়। মৃত্যুও সেই ‘জানা’-র মধ্যেই একটা বিষয়। তাই মৃত্যু-পরবর্তী অবস্থাও আপনার ‘অজানা’ নয়। আমি শুধু আপনাদের মনে করিয়ে দিতে চাই। আমার বক্তব্য আর যাই হোক, কোনও ‘নতুন’ কিছু নয়।

আত্মার অবিনশ্বরতা সম্পর্কে উপনিষদের ঋষিরা বিস্তারিত বলেছেন। কিন্তু আত্মাও কি শেষ সত্য? তার চাইতেও বড় কেনও সত্য কি নেই, যা প্রকৃতই অবিনশ্বর?
‘মৃত্যু’ শব্দটাই এমন এক অর্থ বহন করে, যা সব কিছুর শেষকে ইঙ্গিত করে। কিন্তু সৃষ্টিতে কোনও কিছুরই অন্ত নেই। সৃষ্টি অনাদি এবং অনন্ত। পদার্থ বিজ্ঞান আমাদের জানিয়েছে, সবকিছুই শক্তির রূপভেদ। এবং শক্তির কোনও ‘অন্ত’ হতে পারে না।

শক্তি বা এনার্জির ফ্রিকোয়েন্সি বা তরঙ্গের হেরফের ঘটে মাত্র। আইনস্টাইনের বিখ্যাত আপেক্ষিকতাবাদ আমাদের জানায়, এনার্জিকে তৈরি করা যায় না, ধ্বংসও করা যায় না। তার রূপান্তর ঘটানো যায় মাত্র। সেই সূত্র ধরে বলা যায়, সব কিছুই বর্তমান। মহাবিশ্ব থেকে কিছুই ‘হারিয়ে’ যায় না। তাই মৃত্যুও কোনও কিছুর অন্ত নয়। সে জীবনেরই একটা রূপান্তর মাত্র। জীবন থেকে মৃত্যু যদি একটা বৃত্ত হয়ে থাকে, তা হলে মৃত্যুর পর থেকে আরম্ভ হয় আর একটা বৃত্ত।

জীবনের বৃত্ত থেকে বেরিয়ে মৃত্যু-পরবর্তী বৃত্তে প্রবেশ করে কী ঘটে চৈতন্যের? সে এক যাত্রাপথকে অতিক্রম করে। যাঁরা নিয়ার ডেথ এক্সপেরিয়েন্স-কে প্রত্যক্ষ করেছেন, তাঁরা এই বিষয়ের সব থেকে বড় সাক্ষী। আমার অন্বেষণে আমি তাঁদের সাক্ষ্যকেই একটা বড় সূত্র বলে মানি। তাঁদের অভিজ্ঞতা থেকে তিনটি ‘ফেজ’-এর কথা জানা যায়। এই তিনটি ফেজ আসলে উপলব্ধির তিনটি স্তর। এই উপলব্ধি হল বিযুক্ততার উপলব্ধি।

এই তিন স্তরে তিনটি বিচ্ছিন্নতার বিষয় ঘটে:-

১. প্রথমে জানা যায়, আমাদের দেহ ‘আমি’ নয়।

২. দ্বিতীয় স্তরে জানা যায়, আমাদের মনও ‘আমি’ নয়।

৩. তৃতীয় স্তরে জানা যায়, আমাদের আত্মাও ‘আমি’ নয়।
তা হলে ‘আমি’ কে? কোথা থেকে আমরা আসছি এবং কোথায় চলে যাচ্ছি? এই প্রশ্ন দু’টির উত্তর খুঁজতে বসলেই ‘মৃত্যু’-র পরের অবস্থার কথা উঠে আসে।
নিয়ার ডেথ এক্সপেরিয়েন্স-প্রাপ্ত ব্যক্তিদের অভিজ্ঞতা থেকে জানা যায়:

১. প্রথম স্তরে মৃত্যুর পরে আমাদের দেহ থেকে আমরা বিচ্ছিন্ন হই। এবং দেহের কিছুটা উপরে ভাসমান অবস্থায় বিরাজ করি। এই অবস্থায় এই বোধ জন্মায় যে, আমাদের দেহ আর ‘আমি’ এক জিনিস নয়। কোনো দুর্ঘটনায় চৈতন্য হারিয়ে অথবা কোনও কোনও অনেকই এই অভিজ্ঞতা প্রাপ্ত হয়েছেন। এই জাতীয় অভিজ্ঞতা সব সময়েই মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যায় না।

২. দ্বিতীয় স্তরে কেউ যদি দেহ ত্যাগ করেন এবং তাঁর মৃত্যু হয়, তিনি সেই ফেজ-এ প্রবেশ করেন, যেখানে চৈতন্য মন থেকেও বিচ্ছিন্ন হয়। মনের প্রকাশ চিন্তায়। চিন্তাই আমাদের জগৎকে তৈরি করে। এই পর্যায়ে চৈতন্য সেই জগৎ থেকে বিচ্ছিন্ন হয় এবং নিজেকে বিযুক্ত অবস্থায় দেখতে পায়। এই স্তরে আরও একটা ঘটনা ঘটে, যিনি যে ধর্মের মানুষ, যে বিশ্বাসের মধ্যে জীবন কাটিয়েছেন, তিনি সেই বিশ্বাস অনুযায়ী অভিজ্ঞতাপ্রাপ্ত হবেন। খ্রিষ্ট-বিশ্বাসী জিশুকে, কৃষ্ণ-বিশ্বাসী কৃষ্ণকে দেখতে পাবেন। স্বর্গ বা নরকের যে ধারণা তাঁরা পোষণ করে এসেছেন, তেমন স্বর্গ বা নরক তাঁদের সামনে প্রতীয়মান হবে। যিনি নাস্তিক, তাঁর কাছে এই স্তরটি একটি পাসিং ফেজ হিসেবেই থাকবে। তিনি পরবর্তী স্তরের দিকে এগিয়ে যাবেন।

৩. এই দুই স্তরের সমান্তরালে আসবে তৃতীয় স্তর। মনে রাখতে হবে, এই স্তরগুলি ‘পর পর’ ঘটে না। এগুলি সমান্তরাল। কারণ ‘সময়’ বলে কিছুই হয় না। কোনও ঘটনা আগে বা পরে ঘটে না। আমরা জীবদ্দশায় ঘটনা দিয়ে সময়ের ক্রমিকতা তৈরি করি। সেটা একেবারেই ইলিউশন। মৃত্যু-পরবর্তী তৃতীয় স্তরে এক আলোকসম্ভব অস্তিত্বের মুখোমুখি হই আমরা। এই অস্তিত্বই মহাচৈতন্য। আমরা বুঝতে পারি, আমদের আত্মা বলে যে বিষয়কে আমরা লালন করে এসেছি, তা-ও ‘আমার’ নয়। সে সেই আলোকসম্ভব মহাঅস্তিত্বেরই অংশ। আমাদের আত্মা বলে আলাদা কিছু হয় না। তা বিশ্বাত্মা। তার আমি-তুমি-সে-তাহারা ভেদ নেই। তার ক্ষয় নেই, নাশ নেই। সূত্র-এবেলা

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: