রবিবার, ২১ জুলাই ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ শ্রাবণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
চরমভাবে অবহেলিত প্রাথমিক শিক্ষা ও শিক্ষকরা  » «   এমপিও শিক্ষকদের বেতন দিচ্ছে না ব্যাংক!  » «   ইসরাইলের মরুভূমিতে ১২০০ বছরের পুরোনো মসজিদের খোঁজ  » «   জনসমাগম দেখলেই আতঙ্কে ভোগে আ’লীগ সরকার: ফখরুল  » «   ছেলেধরা সন্দেহে গণপিটুনিতে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জে নিহত ২  » «   দুর্নীতি শব্দটি কীভাবে আসলো আই হ্যাভ নো আইডিয়া: ইকবাল মাহমুদ  » «   সেই প্রিয়া সাহাকে নিয়ে মিললো চাঞ্চল্যকর তথ্য  » «   লবণ সংকটে কোরবানির চামড়া নিয়ে উদ্বেগ  » «   দেশদ্রোহী হিসেবে প্রিয়ার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে: সেতুমন্ত্রী  » «   মিন্নিকে আইনি সহায়তা দিতে ঢাকা থেকে ৪০ আইনজীবী যাচ্ছেন বরগুনায়!  » «   আলো-পানি ছাড়াই রাত কাটল আটক প্রিয়াঙ্কার  » «   মক্কা-মদিনায় ফ্রি ইন্টারনেট ও সিম পাচ্ছেন হাজিরা!  » «   পানিতে সাপের কামড়ে মৃত্যু ,পানিতেই জানাজা-দাফন  » «   নেত্রকোনায় শিশুর কাটা মাথা কাণ্ডে যা জানলো পুলিশ  » «   লন্ডনে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী, আজ দূত সম্মেলন  » «  

মুক্তি পেয়ে নতুন যে বাড়িতে থাকবেন খালেদা



নিউজ ডেস্ক:: কারাগার থেকে বের হতে পারলে ফিরোজার একেবারে পাশেই খালেদা জিয়ার নিজের নামে বরাদ্দকৃত বাড়িটিতে উঠতে পারবেন তিনি। ১৯৬ নম্বর গুলশান এভিনিউতে দেড় বিঘা জমির ওপর নির্মিত বাড়িটি বিচারপতি সাত্তার সরকারের সময়ে খালেদা জিয়ার নামে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছিল।

তিন বেড, বিশাল ড্রয়িং, লিভিং রুম ও সুইমিং পুলসহ অত্যাধুনিক সুযোগ-সুবিধাও রয়েছে ওই বাড়িতে। অন্যদিকে ডুপ্লেক্স হলেও গুলশানে আগে যে বাড়িতে খালেদা জিয়া ছিলেন, সেখানে লিফট নেই। ফলে পায়ের অসুখের কারণে নিজের ওই একতলা বাড়িতে ওঠার সম্ভাবনাই বেশি খালেদার।

এই বাড়িতে বর্তমানে কয়েক লাখ টাকা মাসিক ভাড়া দিয়ে থাকছেন ব্রিটিশ আমেরিকান ট্যোবাকোর সিইও (প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা)। তিনি অনেকদিন ধরে এই বাড়িটি ভাড়া নিয়ে আছেন। ঠিক এ বাড়ির পাশেই ‘ফিরোজা’য় ভাড়া থাকছিলেন খালেদা জিয়া।

গুলশান ২-এর ৭৯ নম্বর রোডের ‘ফিরোজা’ নামের বাড়িটির মালিক বিএনপি নেতা সাবেক প্রতিমন্ত্রী মেজর (অব.) কামরুল ইসলামের ছেলে তানভীর ইসলাম। শহীদ মঈনুল হোসেন রোডের বাড়ি থেকে তাকে ওই বাড়িতে থাকার সুযোগ করে দেন তানভীর ইসলামের বাবা কামরুল ইসলাম। কিছুদিন ভাই শামীম এস্কান্দারের বাড়িতে থেকে ২০১২ সালের ২১ এপ্রিল ওই বাড়িতে ওঠেন খালেদা জিয়া।

কিন্তু দুর্নীতি মামলায় কারাগারে যাওয়ায় গত বছরের ফেব্রুয়ারি থেকে খালেদা ফিরোজায় নেই। বাড়িটিতে এখন সুনসান নীরবতা। বাড়ির পাহাড়াদার কর্মচারীদের বেতন নেই অনেকদিন। এছাড়া কয়েক মাস হয়েছে মালিককে বাড়িটির ভাড়াও দেওয়া হচ্ছে না। এমন পরিস্থিতিতে বাড়িটিকে ঘিরে গত কয়েক মাস ধরেই নানা আলোচনা তৈরি হয়।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: