রবিবার, ১৯ মে ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
ভর্তুকি দিয়ে হলেও চাল রপ্তানির উদ্যোগ নেওয়া হবে: অর্থমন্ত্রী  » «   ভেঙ্গে যাচ্ছে সিলেট জেলা বিএনপির কমিটি!  » «   বিদেশে অবস্থানরত শ্রমিকদের প্রতি মিশনগুলোর ধারণা নেতিবাচক: পররাষ্ট্রমন্ত্রী  » «   হিজাব পরে অস্ট্রিয়ার অমুসলিম নারী সাংসদের অভিনব প্রতিবাদ  » «   গাড়ি নষ্ট, রিকশায় চড়ে অভিযানে মেয়র আরিফ  » «   মুক্তিযোদ্ধাদের ন্যূনতম বয়সের পরিপত্র অবৈধ: হাইকোর্ট  » «   কৃষক রক্ষা না করলে অভিশাপ নেমে আসবে: রিজভী  » «   ১৫তম শিক্ষক নিবন্ধনের ফল প্রকাশ, পাসের হার ২০.৫৩%  » «   মুক্তিযোদ্ধা, এতিম ও আলেমদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর ইফতার আজ  » «   রাতভর ধ্যানের পর বদ্রিনাথের পথে মোদি, রেকর্ড সংখ্যায় ভোট দেওয়ার আহ্বান  » «   জুলাই থেকে ১০ বছর মেয়াদি ই-পাসপোর্ট দেয়া হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী  » «   ফখরুলের আসনে মান্নাকে উপনির্বাচন করার প্রস্তাব  » «   বিমান ছিনতাই চেষ্টা: শিমলার হদিস পাচ্ছে না পুলিশ  » «   এবারের ঈদযাত্রা স্বস্তিদায়ক হবে: ওবায়দুল কাদের  » «   লন্ডনের ডেপুটি স্পিকার নির্বাচিত হলেন সিলেটের আহবাব  » «  

মুক্তামনির মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক



নিউজ ডেস্ক:: বিরল রোগ হেমানজিওমায় আক্রান্ত সাতক্ষীরার শিশু মুক্তামনির মৃত্যুতে গভীর শোক জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একই সঙ্গে তার পরিবারের শোকাহত সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন তিনি।
বুধবার (২৩ মে) বিকেলে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক ইউনিটের প্রধান সমন্বয়কারী ডা. সামন্তলাল সেন বাংলানিউজকে এ কথা জানান।

তিনি বলেন, ‘বিকেলে পাঁচটার দিকে মেসেজের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন- মুক্তামনির না ফেরার দেশে চলে যাওয়ায় তিনি খুবই মর্মাহত ও শোকাহত। মুক্তামনির পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন তিনি। একই সঙ্গে মুক্তামনিকে যাতে আল্লাহ জান্নাতবাসী করেন সেজন্য দোয়া করেছেন প্রধানমন্ত্রী।’

এর আগে সকাল ৭টার দিকে ১২ বছরের শিশু মুক্তামনি না ফেরার দেশে পারি জমায়; দীর্ঘদিন ধরে বিরল রোগ হেমানজিওমায় ভুগছিল সে।

সাতক্ষীরা সদর উপজেলার কামারবায়সা গ্রামের দরিদ্র ইব্রাহিম হোসেনের মেয়ে মুক্তামনি ঢামেক হাসপাতালে আসে ২০১৭ সালের ১১ জুলাই।

হাতে বড় আকৃতির ফোলা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তির পর চিকিৎসকরা তার রোগ শনাক্ত করেন রক্তনালীর এক ধরনের টিউমার হিসেবে, যাকে চিকিৎসা বিজ্ঞানের পরিভাষায় বলা হয় হেমানজিওমা।

ঢামেক হাসপাতালের চিকিৎসকের একটি দল মুক্তামনির হাতে ছয় দফা জটিল অস্ত্রোপচার করেন। তার চিকিৎসার দায়িত্ব নেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পাশাপাশি তার চিকিৎসার খোঁজ-খবরও নিয়েছেন তিনি।

কিছুটা ভালো বোধ করলে গত বছরের ২২ ডিসেম্বর তাকে বাড়ি ফেরার অনুমতি দেওয়া হয়। কিন্তু গত কিছুদিন ধরে মুক্তামনির অবস্থার অবনতি হতে থাকে। হাতের ক্ষতস্থানে আবারও পচনের লক্ষণ দেখা যায়, সেই সঙ্গে জ্বর। অবস্থা এতোটাই খারাপ হয়ে যায় যে দাঁড়ানোর মত শক্তিও পায়নি মেয়েটি।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: