শনিবার, ২০ জুলাই ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ শ্রাবণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
জনসমাগম দেখলেই আতঙ্কে ভোগে আ’লীগ সরকার: ফখরুল  » «   ছেলেধরা সন্দেহে গণপিটুনিতে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জে নিহত ২  » «   দুর্নীতি শব্দটি কীভাবে আসলো আই হ্যাভ নো আইডিয়া: ইকবাল মাহমুদ  » «   সেই প্রিয়া সাহাকে নিয়ে মিললো চাঞ্চল্যকর তথ্য  » «   লবণ সংকটে কোরবানির চামড়া নিয়ে উদ্বেগ  » «   দেশদ্রোহী হিসেবে প্রিয়ার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে: সেতুমন্ত্রী  » «   মিন্নিকে আইনি সহায়তা দিতে ঢাকা থেকে ৪০ আইনজীবী যাচ্ছেন বরগুনায়!  » «   আলো-পানি ছাড়াই রাত কাটল আটক প্রিয়াঙ্কার  » «   মক্কা-মদিনায় ফ্রি ইন্টারনেট ও সিম পাচ্ছেন হাজিরা!  » «   পানিতে সাপের কামড়ে মৃত্যু ,পানিতেই জানাজা-দাফন  » «   নেত্রকোনায় শিশুর কাটা মাথা কাণ্ডে যা জানলো পুলিশ  » «   লন্ডনে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী, আজ দূত সম্মেলন  » «   ব্রিটিশ ট্যাংকার আটক করেছে ইরান, উত্তেজনা চরমে  » «   নিজেদের বিমান বাহিনী থেকে সুরক্ষা পেতেই এরদোগানের এস-৪০০ ক্রয়!  » «   জাপানে অ্যানিমেশন স্টুডিওতে অগ্নিসংযোগ, নিহত ১২  » «  

মুক্তামনির মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক



নিউজ ডেস্ক:: বিরল রোগ হেমানজিওমায় আক্রান্ত সাতক্ষীরার শিশু মুক্তামনির মৃত্যুতে গভীর শোক জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একই সঙ্গে তার পরিবারের শোকাহত সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন তিনি।
বুধবার (২৩ মে) বিকেলে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক ইউনিটের প্রধান সমন্বয়কারী ডা. সামন্তলাল সেন বাংলানিউজকে এ কথা জানান।

তিনি বলেন, ‘বিকেলে পাঁচটার দিকে মেসেজের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন- মুক্তামনির না ফেরার দেশে চলে যাওয়ায় তিনি খুবই মর্মাহত ও শোকাহত। মুক্তামনির পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন তিনি। একই সঙ্গে মুক্তামনিকে যাতে আল্লাহ জান্নাতবাসী করেন সেজন্য দোয়া করেছেন প্রধানমন্ত্রী।’

এর আগে সকাল ৭টার দিকে ১২ বছরের শিশু মুক্তামনি না ফেরার দেশে পারি জমায়; দীর্ঘদিন ধরে বিরল রোগ হেমানজিওমায় ভুগছিল সে।

সাতক্ষীরা সদর উপজেলার কামারবায়সা গ্রামের দরিদ্র ইব্রাহিম হোসেনের মেয়ে মুক্তামনি ঢামেক হাসপাতালে আসে ২০১৭ সালের ১১ জুলাই।

হাতে বড় আকৃতির ফোলা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তির পর চিকিৎসকরা তার রোগ শনাক্ত করেন রক্তনালীর এক ধরনের টিউমার হিসেবে, যাকে চিকিৎসা বিজ্ঞানের পরিভাষায় বলা হয় হেমানজিওমা।

ঢামেক হাসপাতালের চিকিৎসকের একটি দল মুক্তামনির হাতে ছয় দফা জটিল অস্ত্রোপচার করেন। তার চিকিৎসার দায়িত্ব নেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পাশাপাশি তার চিকিৎসার খোঁজ-খবরও নিয়েছেন তিনি।

কিছুটা ভালো বোধ করলে গত বছরের ২২ ডিসেম্বর তাকে বাড়ি ফেরার অনুমতি দেওয়া হয়। কিন্তু গত কিছুদিন ধরে মুক্তামনির অবস্থার অবনতি হতে থাকে। হাতের ক্ষতস্থানে আবারও পচনের লক্ষণ দেখা যায়, সেই সঙ্গে জ্বর। অবস্থা এতোটাই খারাপ হয়ে যায় যে দাঁড়ানোর মত শক্তিও পায়নি মেয়েটি।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: