শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
কাশ্মীর বিদ্রোহী নেতার নামে পাকিস্তানের ডাকটিকিটি প্রকাশ  » «   সংসদ নির্বাচনে হুমকি ‘সাইবার ক্রাইম’, গুজব ঠেকাতে সজাগ পুলিশ  » «   তাঞ্জানিয়ায় ফেরি ডুবি, নিহত বেড়ে ১৩৬  » «   আইনগত অনুমোদন পেলেই সংসদ নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার: সিইসি  » «   সরকারি চাকরিজীবীদের কার জন্য কত টাকা গৃহঋণ  » «   গণেশের ছবি দিয়ে বিজ্ঞাপন: হিন্দুদের কাছে ট্রাম্পের দলের দুঃখ প্রকাশ  » «   প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন পেলো কোটা বাতিলের সুপারিশ  » «   রেলের আধুনিকায়নে দুই হাজার কোটি টাকার প্রকল্প  » «   কেন মুনকে বিশেষ সেই ‘পবিত্র পর্বতে’ নিয়ে গেলেন কিম?  » «   সুখোই কিনলে ভারতকেও নিষেধাজ্ঞায় পড়তে হবে!  » «   প্রধানমন্ত্রী নিউইয়র্কের পথে লন্ডন পৌঁছেছেন  » «   তাঁতশিল্প আধুনিকায়নে বিশেষ উদ্যোগ, বাড়ছে ঋণ  » «   আফগানিস্তানে বাস-ট্রাক সংঘর্ষে নিহত ১৫  » «   রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়িয়ে দুই পুরস্কার পাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী  » «   ডিজিটাল পাঠ্যবই শিক্ষার্থী ও শিক্ষক উভয়ের জন্য সহায়ক হবে: শিক্ষামন্ত্রী  » «  

মিসরে ঢুকতে দেয়া হয়নি ওসামার ছেলেকে



মিসরে ঢুকতে দেয়া হয়নি ওসামার ছেলেকে

সাবেক আল কায়েদা প্রধান ওসামা বিন লাদেনের ছেলে ওমার বিন লাদেনকে মিসরে ঢুকতে দেয়া হয়নি। রোববার বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ তার মিসরে প্রবেশে বাধা দিয়েছে। খবর রয়টার্সের।

মিসরে প্রবেশ নিষেধ এমন তালিকায় ওমারের নাম রয়েছে। এ কারণেই তার ওপর এমন নিষেধাজ্ঞা। তবে ওই তালিকায় ওমারের নাম কি করে এলো সে বিষয়ে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ কোনো তথ্য দিতে পারেনি।

ওমারের বয়স ৩৪ বছর। তিনি ওসামার চতুর্থ সন্তান ছিলেন। বাবা কুখ্যাত জঙ্গি ছিলেন আর সেকারণেই আজও তার খেসারত দিতে হচ্ছে তাদের। শনিবার স্ত্রী জেইনা আল সাবার সঙ্গে দোহা থেকে মিসরের উদ্দেশে রওনা দিয়েছিলেন ওমার। কায়রো আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নামতেই বিপত্তিতে পড়তে হয়েছে তাদের।

বিমানবন্দরে ওমারের পাসপোর্ট দেখে নিরাপত্তারক্ষীরা তাকে আটক করেন। তাকে বলা হয় যে, তার নাম দেশে প্রবেশে নিষিদ্ধ ব্যক্তিদের তালিকায় রয়েছে। তাই বিমানবন্দর থেকে বেরোতে পারবেন না তিনি। কারণ জানতে চাইলে উপযুক্ত কোনো জবাবও মেলেনি। উল্টে এক রকম জোর করেই তাদের তুরস্কে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।

এর আগেও একবার মিসরে হেনস্থা হতে হয়েছিল তাদের। শুধু মিসরেই নয় ব্রিটেনে প্রবেশের অনুমতিও পাননি ওমার। ব্রিটিশ নাগরিক স্ত্রী জেইনার সঙ্গে ব্রিটেনে থাকতে চাইলেও তার আবেদন খারিজ করে দেওয়া হয়। তাকে ব্রিটেনে থাকার অনুমতি দিলে সাধারণ মানুষ বিক্ষোভ দেখাতে পারেন বলেও উল্লেখ করা হয়।

তবে ইউরোপীয় ইউনিয়নের বাকি দেশগুলিতে প্রবেশের অনুমতি পেয়েছেন তিনি। বারবার হেনস্থার শিকার হয়ে কয়েক বছর আগে নিজে থেকেই এগিয়ে আসেন ওমার। সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন, লাদেনের ছেলে মানেই কি সন্ত্রাসবাদী? পুরনো ধ্যান ধারণা ত্যাগ করতে হবে। সন্ত্রাসবাদের সঙ্গে কোনো ভাবেই সম্পৃক্ত নন বলেও দাবি করেন ওমার।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানিয়েছিলেন, ১৯৯৬ সাল থেকে কিছু বছর আফগানিস্তানে কাটিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু ২০০০ সালের পর বাবার সঙ্গে কোনও সম্পর্ক ছিল না তার। ভাই-বোনদের কেউই আল কায়দার সঙ্গে যুক্ত নয়। তা সত্ত্বেও কুখ্যাত বাবার সন্তান হওয়ার মাসুল গুনতে হচ্ছে তাদের।

 

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: