মঙ্গলবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
মির্জাপুরে ট্রাক উল্টে একই পরিবারের ৩ জন নিহত  » «   আস্তানায় বেশ কয়েকজন জঙ্গি ও গোলাবারুদ রয়েছে: সিটিটিসি প্রধান  » «   জেএসসি পরীক্ষায় প্রশ্ন ফাঁসে সতর্ক সরকার: শিক্ষামন্ত্রী  » «   #মিটু বিতর্ক: মামলা করলেন প্রতিমন্ত্রী আকবর  » «   সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিতে বিশ্বে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে বাংলাদেশ- প্রধানমন্ত্রী  » «   জিজ্ঞাসাবাদের সময় মৃত্যু হয় খাশোগির, সৌদি স্বীকারোক্তির প্রস্তুতি  » «   শ্রমিক নয়, গণমাধ্যম কর্মী হচ্ছেন সাংবাদিকরা  » «   জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে দু’টি বাড়ি ঘেরাও সিটিটিসির ইউনিটের  » «   ক্লিনটনের যৌন কেচ্ছা নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য হিলারির  » «   সংসদ নির্বাচনের জন্য ৭০০ কোটি টাকার বাজেট অনুমোদন  » «   বাল্যবিবাহের বিশেষ বিধান ‘ধর্ষণে’ প্রযোজ্য নয়  » «   বিশ্বনাথে প্রবাসীর স্ত্রীকে আপত্তিকর অবস্থায় দেখে ফেলায়…  » «   যেসব কারণে ইসির সভা থেকে বেরিয়ে যান কমিশনার মাহবুব  » «   সৌদি রাজপরিবারের বিরুদ্ধে সমালোচনা করলেই গুম-হত্যা!  » «   শাস্তির বিধান রেখে সম্প্রচার আইনের খসড়া অনুমোদন  » «  

মায়ের দুধ পান করা নিয়ে চিন্তায় চিকিৎসকরা!



লাইফস্টাইল ডেস্ক::জন্মের পর প্রথম এক ঘণ্টার মধ্যে একবার দুধ খেয়ে তার শুভসূচনা করার কথা। এরপর শিশুরা ঘুমিয়ে পড়তে পারে, এবং পরে আবার খেতে চাইলে আপনাকে বিভিন্নভাবে সংকেত দেয়ার চেষ্টা করবে।জন্মের পর প্রথম ছয় মাস শিশুকে অন্যকোন খাবার ছাড়া শুধুমাত্র বুকের দুধ খাইয়ে রাখার পরামর্শ দেয়া হয়।

এরপর যতদিন আপানার শিশু চায় ততদিন তাকে অন্যান্য খাবারের সাথে সাথে বুকের দুধ দেয়া চালিয়ে যান। বিশেষজ্ঞদের মতে, আপনি শিশুর ২ বছর বয়স বা তারও পর পর্যন্ত তাকে বুকের দুধ দেয়া চালিয়ে যেতে পারেন।

শিশুর জন্য মায়ের বুকের দুধের কোন বিকল্প নেই। শিশুর জন্মের পর প্রথম ছয় মাস শুধু মায়ের বুকের দুধই তার জন্য যথেষ্ট। আর কোনো খাবারের প্রয়োজন নেই। একজন শিশু জন্মের পর প্রথম যে খাবারটি মুখে নেয়, সেটিই হল মায়ের বুকের দুধ।

এদিকে হু-র একটি রিপোর্টে আর্থিক ভাবে পিছিয়ে পড়া দেশের পাঁচ জনের মধ্যে তিন জন শিশুই জন্মের এক ঘণ্টার মধ্যে মাতৃদুগ্ধ পানের সুযোগ পায় না। যার জেরে জটিল রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বাড়ে। এমনকি, তৈরি হয় প্রাণ সংশয়ও।

এ বছর স্তন্যপান নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রকাশিত রিপোর্টে এই তথ্যই উঠে এসেছে। ওই রিপোর্ট অনুযায়ী, ওই সব দেশের ৭ কোটি ৮০ লক্ষ শিশুকে জন্মের পর পরই স্তন্যপান করানো হয় না। দক্ষিণ ও পশ্চিম আফ্রিকার দেশগুলিতে ঠিক সময়ে স্তন্যপানের রীতি অধিক প্রচলিত। সে দিক থেকে অনেক পিছিয়ে এশিয়ার দেশগুলি। মাত্র ৩২ শতাংশ শিশু জন্মের এক ঘণ্টার মধ্যে মাতৃদুগ্ধ পানের সুযোগ পায়।

বিশেষজ্ঞেরা জানাচ্ছেন, এই রিপোর্ট যথেষ্ট উদ্বেগজনক। শিশুর জন্মের পরের এক ঘণ্টা খুব গুরুত্বপূর্ণ। মাতৃদুগ্ধই হল প্রথম টিকা। সেটা দেরিতে পেলে রোগ সংক্রমণের ঝুঁকি কয়েক গুণ বেড়ে যায়। তবে, সচেতনতাই বদলে দিতে পারে এই ছবি, মনে করছেন হু-র সদস্যেরা।

ওই রিপোর্টেই উল্লেখ করা হয়েছে, আফ্রিকার একাধিক দেশে সচেতনতার প্রসারের জেরে এই সমস্যা মিটেছে। ঠিক সময়ে মাতৃদুগ্ধ পান করানোর প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে গর্ভাবস্থা থেকেই বোঝানো দরকার। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই সন্তানসম্ভবারা সে সম্পর্কে জানেন না। পাশাপাশি, শিশুর জন্মের সময় প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্য পরিষেবাও জরুরি বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞদের একাংশ। হাসপাতালে সন্তান প্রসবের পরে মায়ের কী ধরনের যত্ন নিতে হবে সে নিয়ে কোনও কর্মশালা হয় না। স্বাস্থ্যকর্মীরাও শিশুদের স্তন্যপানের দিকে অনেক সময়ে গুরুত্ব দেন না। সেই দিকগুলিতে নজরদারি প্রয়োজন।

এ প্রসঙ্গে স্ত্রীরোগ চিকিৎসক মল্লিনাথ মুখোপাধ্যায় বলেন, ‘মা ও সন্তানের সুস্বাস্থ্যের জন্য শিশুর স্তন্যপান অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের মায়েদের এ সম্পর্কে সতর্ক করার দায়িত্ব। ঠিক মতো সরকারি-বেসরকারি সব ক্ষেত্রে স্তন্যপান নিয়ে ধারাবাহিক কর্মশালা চালালে পরিস্থিতি পরিবর্তন ঘটতে পারে।’

শিশুরোগ চিকিৎসক অপূর্ব ঘোষ বলেন, ‘স্তন্যপান নিয়ে নানা প্রচারের পরেও যে পরিস্থিতি কত খানি বিপজ্জনক এই রিপোর্ট সেই দিকটাই তুলে ধরল। শিশুর সুস্বাস্থ্যে মাতৃদুগ্ধের কোনও বিকল্প নেই। মধু কিংবা মিষ্টি জলের পরিবর্তে জন্মের পরে স্তন্যপান কতখানি গুরুত্বপূর্ণ সে নিয়ে আরও লাগাতার প্রচার দরকার।’

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: