শনিবার, ২২ জুলাই ২০১৭ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ শ্রাবণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
স্বামীর জন্য নৌকায় ভোট চাইলেন শাবানা  » «   সৌদিতে ৬ মাসের উপার্জন ৪৩১ রিয়াল, তা নিয়েও নাটক!  » «   সমুদ্র বন্দরগুলোতে ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত  » «   অভিনেতা আবদুর রাতিন আর নেই  » «   বরফের নিচে মিলল ৭৫ বছর ধরে নিখোঁজ দম্পতির মৃতদেহ  » «   নারীরা কি করব জিয়ারত করতে পারবে?  » «   চট্টগ্রামে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ১  » «   মিথ্যা নারী নির্যাতন মামলায় পালিয়ে বেড়াচ্ছে মানবাধিকার কর্মী  » «   ধূমপান ছাড়তে ইব্রাহিমের কান্ড!  » «   ‘নির্বাচনের আগে সব দলকে এক রাস্তায় আনতে হবে’  » «   যে ১২টি তথ্য ফেসবুকে রাখলে বিপদ ঘটবে  » «   সৌদি পাঠানোর প্রলোভন দেখিয়ে তরুণীকে ধর্ষণ  » «   কুমিল্লা মেডিকেলের অব্যবস্থাপনা নিয়ে হাইকোর্টে রিট  » «   বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী খাজা নাজিবুল্লাহ্ চৌধুরীর গণসংযোগ  » «   বিচার না পেলে আত্মহত্যা করবে ধর্ষিতা কিশোরী  » «  

মালয়েশিয়া সাড়ে ৩ হাজার বাংলাদেশির ‘সেকেন্ড হোম’



নিউজ ডেস্ক::মালয়েশিয়ার বিশেষ কর্মসূচির আওতায় গত ১৫ বছরে ‘সেকেন্ড হোম’ বা দ্বিতীয় বাড়ি গড়ার সুবিধা নিয়েছে সাড়ে তিন হাজারের বেশি বাংলাদেশি।বিভিন্ন দেশের ৩৩ হাজারের বেশি মানুষের মধ্যে সংখ্যায় বাংলাদেশিদের অবস্থান তৃতীয়।

গতকাল (বৃহস্পতিবার) কুয়ালালামপুরে এমএম২এইচ জাতীয় কর্মশালায় দেশটির পর্যটন ও সংস্কৃতি বিষয়কমন্ত্রী মোহাম্মদ নাজরি আবদুল আজিজ এ তথ্য জানান। দেশটির বার্তা সংস্থা বারনামার এক খবরে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার দেশটির রাজধানী কুয়ালালামপুরে এমএম২এইচের জাতীয় কর্মশালায় দেশটির পর্যটন ও সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী নাজরি আজিজ এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি আরও জানান, ২০০২ সালে বিশেষ কর্মসূচিটি চালুর পর থেকে ভালো সাড়া পাওয়া গেছে। এ পর্যন্ত ১২৬টি দেশের ৩৩ হাজার ৩০০ মানুষ এ সুবিধা নিয়েছে। সংখ্যার বিচারে এ তালিকায় বাংলাদেশ তৃতীয় স্থানে রয়েছে।

মন্ত্রী জানান, এই কর্মসূচিতে অংশীদার হিসেবে সবার শীর্ষ স্থানে রয়েছে চীন; দেশটির আট হাজার ৭১৪ জন এই সুবিধা পেয়েছে। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে জাপান; দেশটির চার হাজার ২২৫ জন এ সুবিধা নিয়েছে। আর তৃতীয় স্থানে থাকা বাংলাদেশের তিন হাজার ৫৪৬ জন এই সুযোগ নিয়েছে।

এরপর যথাক্রমে যুক্তরাজ্য (দুই হাজার ৪১২ জন), ইরান (এক হাজার ৩৩৬ জন), সিঙ্গাপুর (এক হাজার ২৯৫ জন), দক্ষিণ কোরিয়া (এক হাজার ২৬৬ জন), তাইওয়ান (এক হাজার ২০৮ জন), পাকিস্তান (৯৭৩ জন) ও ভারতের (৮৯০ জন) অবস্থান।
পর্যটন ও সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী নাজরি আজিজ বলেন, সেকেন্ড হোম কর্মসূচির আওতায় অংশ নেয়া মানুষরা স্থাবর সুবিধা ও রাজস্ব হিসাবে মোট এক হাজার ২৮০ কোটি মালয়েশিয়ান রিঙ্গিত জাতীয় অর্থনীতিতে যোগ করেছে।এমএম২এইচ কর্মসূচির মাধ্যমে বাংলাদেশ থেকে মুদ্রা পাচার হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে, যা দুর্নীতি দমন কমিশনের নজরে রয়েছে।

দুদকের একটি সূত্র জানিয়েছে, অর্থ পাচার করে মালয়েশিয়ায় যারা সেকেন্ড হোম গড়ে তুলছে, তাদের মধ্যে রাজনীতিক, ব্যবসায়ী ও পেশাজীবী রয়েছে। বিষয়গুলো তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। বাংলাদেশিসহ ৫৪ অভিবাসীর জেল

এদিকে, মালয়েশিয়ায় অবৈধভাবে অবস্থানের অপরাধে বাংলাদেশিসহ মোট ৫৪ অভিবাসীর এক থেকে তিন মাসের কারাদণ্ড হয়েছে। এছাড়া কয়েকজনের ৮০০ মালয়েশিয়ান রিঙ্গিত করে জরিমানা হয়েছে। ৫৪ জনের মধ্যে বাংলাদেশি ছাড়াও ইন্দোনেশীয়, ভারতীয় ও থাই নাগরিক রয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে বৈধ ট্রাভেল ডকুমেন্ট প্রস্তুত না করা, ভিসার মেয়াদ পার হওয়ার পরও অবস্থান করা এবং ভিজিট পাসের অপব্যবহারের অভিযোগে মামলা হয়েছিল। গ্রেফতারের দিন থেকে তাদের কারাদণ্ড কার্যকর হবে।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: