মঙ্গলবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
আস্তানায় বেশ কয়েকজন জঙ্গি ও গোলাবারুদ রয়েছে: সিটিটিসি প্রধান  » «   জেএসসি পরীক্ষায় প্রশ্ন ফাঁসে সতর্ক সরকার: শিক্ষামন্ত্রী  » «   #মিটু বিতর্ক: মামলা করলেন প্রতিমন্ত্রী আকবর  » «   সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিতে বিশ্বে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে বাংলাদেশ- প্রধানমন্ত্রী  » «   জিজ্ঞাসাবাদের সময় মৃত্যু হয় খাশোগির, সৌদি স্বীকারোক্তির প্রস্তুতি  » «   শ্রমিক নয়, গণমাধ্যম কর্মী হচ্ছেন সাংবাদিকরা  » «   জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে দু’টি বাড়ি ঘেরাও সিটিটিসির ইউনিটের  » «   ক্লিনটনের যৌন কেচ্ছা নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য হিলারির  » «   সংসদ নির্বাচনের জন্য ৭০০ কোটি টাকার বাজেট অনুমোদন  » «   বাল্যবিবাহের বিশেষ বিধান ‘ধর্ষণে’ প্রযোজ্য নয়  » «   বিশ্বনাথে প্রবাসীর স্ত্রীকে আপত্তিকর অবস্থায় দেখে ফেলায়…  » «   যেসব কারণে ইসির সভা থেকে বেরিয়ে যান কমিশনার মাহবুব  » «   সৌদি রাজপরিবারের বিরুদ্ধে সমালোচনা করলেই গুম-হত্যা!  » «   শাস্তির বিধান রেখে সম্প্রচার আইনের খসড়া অনুমোদন  » «   সম্পাদক পরিষদের তথ্যে ঘাটতি আছে: তথ্যমন্ত্রী  » «  

মালয়েশিয়ায় মেগা-থ্রি অভিযানে ৫৪ বাংলাদেশি আটক



প্রবাস ডেস্ক:: মালয়েশিয়ায় মেগা-থ্রি অভিযানে ৫৪ বাংলাদেশিসহ ১৩৯ জনকে আটক করেছে ইমিগ্রেশন পুলিশ। ২৪ জুলাই (মঙ্গলবার) দেশটির রাজধানী কুয়ালালামপুরের মারা ডিজিটাল মল ও তার আশপাশের এলাকা থেকে এই অবৈধ অভিবাসীদের আটক করা হয়।

আটকদের মধ্যে বাংলাদেশ, ইন্দোনেশিয়া, ভারত,পাকিস্তান ও ভিয়েতনামের নাগরিক রয়েছেন।

কতজন অবৈধ অভিবাসী রয়েছেন এ বিষয়ে ইমিগ্রেশনের কাছে সঠিক হিসাব না থাকলেও তাদের ধারণা ইন্দোনেশিয়ার পরে বেশি অবৈধ বাংলাদেশি শ্রমিক রয়েছে মালয়েশিয়ায়।

অভিযান শেষে দেশটির ইমিগ্রেশন মহাপরিচালক দাতুক মোস্তফা আলী স্থানীয় সাংবাদিকদের বলেন, আগামী ৩১ আগস্টের মধ্যে সকল অবৈধ শ্রমিককে থ্রি-প্লাস পদ্ধতি অনুসরণ করে নিজ নিজ দেশে ফিরত যেতে হবে। ৩১ অগস্টের পরে কোনো অবৈধ শ্রমিককে মালয়েশিয়া থাকতে দেয়া হবে না বলে তিনি হুঁশিয়ারি দেন।

মালয়েশিয়ায় ইমিগ্রেশন পুলিশের এমন অভিযানে আতঙ্কে দিন কাটছে অবৈধ বাংলাদেশিদের। বিভিন্ন সময়ে মালয়েশিয়ায় কথিত এজেন্ট দ্বারা প্রতারিত হওয়ার কারণেই অধিকাংশ বাংলাদেশি বৈধ হতে পারেননি বলে অভিযোগ উঠেছে।

২০১৬ সালে অবৈধ শ্রমিকদের বৈধকরণ প্রক্রিয়ার বড় একটি অংশ বাংলাদেশি এজেন্ট দ্বারাই অবৈধকর্মীরা ইমিগ্রেশনে ফিঙ্গারপ্রিন্ট করে। ওসব কোম্পানির অধিকাংশ মালিক বাংলাদেশের। মালয়েশিয়ান স্ত্রী ও তাদের নামে খোলা বিভিন্ন কোম্পানি। এসব কোম্পানির কোনো কাজ না থাকলেও শুধু অর্থের লোভে বাংলাদেশিদের ফিঙ্গার প্রিন্ট করানো হয় বলে অনুসন্ধানে জানা গেছে। আর ওই ফিঙ্গারপ্রিন্টের মাধ্যমে প্রতারক বাংলাদেশি চক্রটি হাতিয়ে নিয়েছে কোটি কোটি টাকা। দীর্ঘদিন ঘুরেও কোনো প্রকার ভিসা না পেয়ে বর্তমানে মালয়েশিয়া সরকারের সাধারণ ক্ষমার আওতায় ৩+১ ট্রাভেল পাস কেটে দেশে ফিরে আসছেন অনেক বাংলাদেশি। আর এসব বাংলাদেশি বৈধ হওয়ার জন্য এজেন্টের হাতে টাকা পাসপোর্ট তুলে দিলেও পাননি বৈধতা। টাকা ফেরত দেয়া তো দূরে থাক টাকা চাইলে তাদের বিভিন্ন ভয়-ভীতি প্রদর্শন করা হয়।

মালয়েশিয়ার কলকারখানা অধ্যুষিত এলাকা পেনাংয়ে কর্মরত সুলাইমান এ প্রতিবেদককে জানান, ২০১৭ সালে বাংলাদেশের এজেন্ট আমার কাছ থেকে চার হাজার রিঙ্গিত (বাংলাদেশি ৮০ হাজার টাকার) বিনিময়ে আমাকে শুধু একটি মাই ইজির কাগজ ধরিয়ে দেয়। দীর্ঘদিন ঘুরেও আমার ভিসা না হওয়ার কারণে আমাকে দেশে চলে যেতে হচ্ছে। সুলাইমান টাকা চাইতে গেলে তাকে ওই এজেন্ট বিভিন্ন প্রকার হুমকি-ধামকি প্রদর্শন করে। এরকম আরও অনেক অভিযোগ নিজ দেশিদের দ্বারা প্রতারিত বাংলাদেশিদের। পাহাং জেলার কুয়ান্তান এলাকায় বাংলাদেশি এজেন্ট দ্বারা প্রতারিত হয়ে প্রায় দুই থেকে তিনশ বাংলাদেশি দেশে চলে গেছেন। এভাবেই মানবেতর জীবন-যাপন আর ধরপাকরের ভয়ে শেষমেষ খালি হাতে দেশে ফিরতে হচ্ছে বাংলাদেশিদের।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: