মঙ্গলবার, ১৯ মার্চ ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ চৈত্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
সিলেটে যারা হলেন ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান  » «   সালাম দিয়ে পার্লামেন্টে বক্তব্য শুরু করলেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী  » «   ক্রাইস্টচার্চে নিহতদের শোকসভায় তোপের মুখে চেলসি ক্লিনটন  » «   রাজধানীতে বাসচাপায় বিইউপির ছাত্র নিহত, সড়ক অবরোধ  » «   সুনামগঞ্জে আ. লীগ নেতাকে ছুরিকাঘাতে হত্যা, আটক ৩  » «   বিয়ানীবাজারে পল্লবের অর্ধেক ভোটও পাননি নৌকার আতাউর  » «   উপজেলা নির্বাচন: গোলাপগঞ্জে কে পেলেন কত ভোট  » «   একতরফা নির্বাচন গণতন্ত্রের জন্য অশনিসংকেত: মাহবুব তালুকদার  » «   উপজেলা নির্বাচন: দ্বিতীয় ধাপের ভোট গ্রহণ শেষ, চলছে গণনা  » «   পুলিশ কেন জনগণের বন্ধু নয়?  » «   ভোটার শূন্য ভোটকেন্দ্রে, দোল খাচ্ছেন নিরাপত্তা কর্মীরা  » «   অসুস্থতার কারণে খালেদা জিয়ার গ্যাটকো মামলার শুনানি পিছিয়েছে  » «   বাংলা ভাষার বঙ্গবন্ধু’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করলেন প্রধানমন্ত্রী  » «   চাঁদপুরের ৫০০ বছরের পুরনো মসজিদ সংরক্ষণের সিদ্ধান্ত  » «   কাঙালের ধন চুরি…  » «  

মালয়েশিয়ায় মেগা-থ্রি অভিযানে ৫৪ বাংলাদেশি আটক



প্রবাস ডেস্ক:: মালয়েশিয়ায় মেগা-থ্রি অভিযানে ৫৪ বাংলাদেশিসহ ১৩৯ জনকে আটক করেছে ইমিগ্রেশন পুলিশ। ২৪ জুলাই (মঙ্গলবার) দেশটির রাজধানী কুয়ালালামপুরের মারা ডিজিটাল মল ও তার আশপাশের এলাকা থেকে এই অবৈধ অভিবাসীদের আটক করা হয়।

আটকদের মধ্যে বাংলাদেশ, ইন্দোনেশিয়া, ভারত,পাকিস্তান ও ভিয়েতনামের নাগরিক রয়েছেন।

কতজন অবৈধ অভিবাসী রয়েছেন এ বিষয়ে ইমিগ্রেশনের কাছে সঠিক হিসাব না থাকলেও তাদের ধারণা ইন্দোনেশিয়ার পরে বেশি অবৈধ বাংলাদেশি শ্রমিক রয়েছে মালয়েশিয়ায়।

অভিযান শেষে দেশটির ইমিগ্রেশন মহাপরিচালক দাতুক মোস্তফা আলী স্থানীয় সাংবাদিকদের বলেন, আগামী ৩১ আগস্টের মধ্যে সকল অবৈধ শ্রমিককে থ্রি-প্লাস পদ্ধতি অনুসরণ করে নিজ নিজ দেশে ফিরত যেতে হবে। ৩১ অগস্টের পরে কোনো অবৈধ শ্রমিককে মালয়েশিয়া থাকতে দেয়া হবে না বলে তিনি হুঁশিয়ারি দেন।

মালয়েশিয়ায় ইমিগ্রেশন পুলিশের এমন অভিযানে আতঙ্কে দিন কাটছে অবৈধ বাংলাদেশিদের। বিভিন্ন সময়ে মালয়েশিয়ায় কথিত এজেন্ট দ্বারা প্রতারিত হওয়ার কারণেই অধিকাংশ বাংলাদেশি বৈধ হতে পারেননি বলে অভিযোগ উঠেছে।

২০১৬ সালে অবৈধ শ্রমিকদের বৈধকরণ প্রক্রিয়ার বড় একটি অংশ বাংলাদেশি এজেন্ট দ্বারাই অবৈধকর্মীরা ইমিগ্রেশনে ফিঙ্গারপ্রিন্ট করে। ওসব কোম্পানির অধিকাংশ মালিক বাংলাদেশের। মালয়েশিয়ান স্ত্রী ও তাদের নামে খোলা বিভিন্ন কোম্পানি। এসব কোম্পানির কোনো কাজ না থাকলেও শুধু অর্থের লোভে বাংলাদেশিদের ফিঙ্গার প্রিন্ট করানো হয় বলে অনুসন্ধানে জানা গেছে। আর ওই ফিঙ্গারপ্রিন্টের মাধ্যমে প্রতারক বাংলাদেশি চক্রটি হাতিয়ে নিয়েছে কোটি কোটি টাকা। দীর্ঘদিন ঘুরেও কোনো প্রকার ভিসা না পেয়ে বর্তমানে মালয়েশিয়া সরকারের সাধারণ ক্ষমার আওতায় ৩+১ ট্রাভেল পাস কেটে দেশে ফিরে আসছেন অনেক বাংলাদেশি। আর এসব বাংলাদেশি বৈধ হওয়ার জন্য এজেন্টের হাতে টাকা পাসপোর্ট তুলে দিলেও পাননি বৈধতা। টাকা ফেরত দেয়া তো দূরে থাক টাকা চাইলে তাদের বিভিন্ন ভয়-ভীতি প্রদর্শন করা হয়।

মালয়েশিয়ার কলকারখানা অধ্যুষিত এলাকা পেনাংয়ে কর্মরত সুলাইমান এ প্রতিবেদককে জানান, ২০১৭ সালে বাংলাদেশের এজেন্ট আমার কাছ থেকে চার হাজার রিঙ্গিত (বাংলাদেশি ৮০ হাজার টাকার) বিনিময়ে আমাকে শুধু একটি মাই ইজির কাগজ ধরিয়ে দেয়। দীর্ঘদিন ঘুরেও আমার ভিসা না হওয়ার কারণে আমাকে দেশে চলে যেতে হচ্ছে। সুলাইমান টাকা চাইতে গেলে তাকে ওই এজেন্ট বিভিন্ন প্রকার হুমকি-ধামকি প্রদর্শন করে। এরকম আরও অনেক অভিযোগ নিজ দেশিদের দ্বারা প্রতারিত বাংলাদেশিদের। পাহাং জেলার কুয়ান্তান এলাকায় বাংলাদেশি এজেন্ট দ্বারা প্রতারিত হয়ে প্রায় দুই থেকে তিনশ বাংলাদেশি দেশে চলে গেছেন। এভাবেই মানবেতর জীবন-যাপন আর ধরপাকরের ভয়ে শেষমেষ খালি হাতে দেশে ফিরতে হচ্ছে বাংলাদেশিদের।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: