রবিবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২ পৌষ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
চমক থাকছে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে  » «   দুই-তিন দিনের মধ্যে ইসিতে যাবে বিএনপি  » «   কাদের সিদ্দিকী রাজাকার, বদমাইশ : মির্জা আজম  » «   নির্বাচনের ৭ দিন আগে ব্যালট পৌঁছে যাবে: ইসি সচিব  » «   রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা করতে চান ড. কামাল  » «   যুক্তরাষ্ট্র-অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড কানাডায় বোমা হামলার হুমকি  » «   ক্ষমা চাইলেন ড. কামাল  » «   মন্দিরের প্রসাদ খেয়ে ১১ জনের মৃত্যু, অসুস্থ ৮১  » «   ২৪ ডিসেম্বর মাঠে নামছে সেনাবাহিনী, থাকবেন ম্যাজিস্ট্রেটও  » «   ইন্টারনেটে ধীর গতি ও মোবাইল ব্যাংকিং বন্ধ চায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী  » «   প্রার্থিতা নিয়ে শুনানি: আদালতের প্রতি খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের অনাস্থা  » «   আওয়ামী লীগ ১৬৮ থেকে ২২০ আসনে জিতবে: জয়  » «   সিলেট-২ আসনে বিএনপির প্রার্থী তাহসিনা রুশদীর লুনার মনোনয়ন স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট  » «   আম্বানি কন্যার বিয়েতে নাচলেন হিলারি ক্লিনটন [ভিডিও ]  » «   সিলেট-১ আসনে ধানের শীষের প্রচারণার একসঙ্গে মুক্তাদির-আরিফ  » «  

মানুষের তৈরি রোবটই কী মানুষকে নিয়ন্ত্রণ করবে?



তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক:: দিন দিন নতুন নতুন আবিষ্কারে এগিয়ে যাচ্ছে পৃথিবী।মানুষের দৈনন্দিন কাজ সহজ করতে আবিষ্কার হচ্ছে নানা যন্ত্রপাতি।এর মধ্যে রোবট অন্যতম।এই রোবটকে মানুষের বুদ্ধিমত্তা ও চিন্তাশক্তিকে কম্পিউটার দ্বারা অনুকৃত করার চেষ্টা করা হয়ে থাকে।আজকাল অনেক কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে স্মার্ট রোবট।

এটা খুবই স্বাভাবিক বিষয় যে, আগামী ৫০ বছর কিংবা ১০০ বছর পর মানুষের জীবনধারায় আসবে আমূল পরিবর্তন।আর সেই পরিবর্তনের সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা।কিন্তু স্মার্ট রোবটের তথা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা একদিকে যেমন মানুষের জন্য অনেক সম্ভাবনার দুয়ার খুলে দিতে পারে তেমনি মুহূর্তেই হয়ে উঠতে পারে আতঙ্কের কারণ।মানুষের তৈরি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা যদি মানুষের নির্দেশনা না শুনে মানুষকেই নিয়ন্ত্রণ করতে শুরু করে তাহলে তা হবে মানবজাতির ধ্বংসের কারণ!

আজকাল রোবট প্রযুক্তি কাজে লাগানো হচ্ছে ড্রোনে।কিন্তু সময়ের ব্যবধানে ড্রোনই হয়ত একদিন পরিণত হতে পারে ক্ষেপণাস্ত্রে। মূলত কোনো কারণে যদি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার বুদ্ধি বিভ্রাট ঘটে তাহলে যে কোনো সময় ভয়াবহ বিপর্যয় নেমে আসতে পারে পৃথিবীতে।আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (এআই) বা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নিয়ে তাই মানুষের শঙ্কা থাকাটাই স্বাভাবিক।

আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা বলছেন,এই প্রযুক্তি যদি ভ্রষ্ট-নীতির কোনো রাষ্ট্র, যারা আন্তর্জাতিক আইন কানুনের তোয়াক্কা করে না,তাদের কাছে কিংবা অপরাধীসহ সন্ত্রাসীদের হাতে চলে যায় তাহলে তার বড় ধরনের অপব্যবহার হতে পারে।আর এ কারণে এই কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা যখন তৈরি করা হচ্ছে তখন এর উদ্ভাবকদের একই সঙ্গে এমন জিনিসও তৈরি করতে হবে যাতে এর অপব্যবহার না হয়,আর হলেও সেটা যাতে মোকাবিলা করা যায় সে ব্যবস্থাও থাকতে হবে হাতে।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: