সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১ আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
ইতালির নাগরিকত্ব হারাতে পারেন ৩ হাজার বাংলাদেশি  » «   নবীগঞ্জে আগুনে পুড়ে ছাই ৫টি ঘর, ১২ লাখ টাকার ক্ষতি  » «   ছাত্রলীগের নতুন সভাপতি-সম্পাদকের প্রতিশ্রুতি  » «   শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষে রণক্ষেত্র, আহত ৩০  » «   চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় পুলিশকে প্রস্তুত থাকার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর  » «   মাসিক বেতনে চালক নিয়োগের নির্দেশ হাইকোর্টের  » «   কাশ্মিরের মুসলমানদের ওপর নির্যাতন বন্ধের দাবিতে মৌলভীবাজারে বিক্ষোভ মিছিল  » «   হাজিদের দেশে ফেরার শেষ ফ্লাইট আজ  » «   আফগান সীমান্তে ৪ পাকিস্তানি সেনা নিহত  » «   ঈদের খরচ হিসেবে ‘ন্যায্য পাওনা’ চেয়েছিলাম: রাব্বানী  » «   পুলিশ সুপারদের কুচকাওয়াজে যোগ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা  » «   ছাত্রলীগের নেতৃত্বে জয়-লেখক  » «   হিন্দি চাপিয়ে দিলে ভাষা যুদ্ধের হুমকি, রাজ্যে রাজ্যে প্রতিবাদ  » «   শিক্ষামন্ত্রীর কড়া চিঠি  » «   পরিবহন ধর্মঘটে বিপর্যস্ত প্যারিস; ৩৮০ কিমি ট্র্যাফিক জ্যাম!  » «  

মানবপাচারকারী ৩০ দালাল ও দুই ট্রাভেল এজেন্ট শনাক্ত 



নিজস্ব প্রতিবেদক:: চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে অবৈধভাবে লিবিয়া যাওয়ার সময় ৩৯ যাত্রীকে আটকের ঘটনায় ৩০ জন দালাল ও ২ টি ট্রাভেল এজেন্সিকে সনাক্ত করেছে র‌্যাব-৭।

বৃহস্পতিবার(১৩ অক্টোবর)বিকাল ৩ টায় আটক পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়।

উদ্ধারকৃত ভিকটিমদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়,দালালদের সবাই ঢাকা, শরিয়তপুর, ফরিদপুর, সিলেট, মৌলভীবাজার এবং সুনামগঞ্জ জেলার।এছাড়া মানব পাচারকারীদের সাথে আন্তর্জাতিক চক্রের যোগসাজশ রয়েছে বলে জানানো হয়।তন্মধ্যে লিবিয়ায় সাদিক ও মোজাম্মেল নামে দুই ব্যাক্তি রয়েছে।যারা বাংলাাদেশ থেকে যাওয়া অবৈধ অভিবাসীদের রিসিভ করে তাদেরকে নিয়ে লিবিয়ার বিভিন্ন হোটেলে নিয়ে যায়।পরবর্তীতে তাদেরকে নির্যাতন করে পরিবারের কাছ থেকে মুক্তিপণ আদায় করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, মানব পাচারের উদ্দেশ্যে বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে দালালদের মাধ্যমে লোকজন সংগ্রহ করে নিয়ে এসে ঢাকার ফকিরাপুলস্থ হোটেল ড্রিমল্যান্ড, আলিজা, ইসলামপুর, শেল্টার, হোটেল এশিয়া, প্রবাস ইত্যাদি এবং চট্টগ্রামের হোটেল সুইসপার্ক, অলংকার ও রেয়াজউদ্দিন বাজারে হোটেল আল ছালামতসহ অন্যান্য আবাসিক হোটেলে উঠানো হয়।

পরবর্তীতে অপরিচিত কিছু লোক এসে এদেরকে ভিসা এবং পাসপোর্ট দিয়ে যায়। বিমানের টিকিট পর্যালোচনা করে দেখা যায় যে, এদের যাতায়াতের রুট হল চট্টগ্রাম থেকে দুবাই,দুবাই থেকে তুরস্কের ইস্তাম্বুল হয়ে লিবিয়া।

র‌্যাবের পক্ষ থেকে আরো জানানো হয়, মানব পাচারকারী চক্রের সদস্যরা দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে দালালের মাধ্যমে ৪ লাখ ২০ হাজার টাকা চুক্তির মাধ্যমে লিবিয়া পাঠানোর জন্য লোকজনদের প্রলুব্ধ করে। উদ্ধারকৃত ৩৯ জনের মধ্যে শুধুমাত্র ১ জন এক লাখ টাকা এবং অপরজন ৫০ হাজার টাকা পরিশোধ করেন।

এছাড়া অন্যরা লিবিয়া পৌছানোর পরে টাকা পরিশোধ করবে। লিবিয়া পৌছানোর পরে কিছু কিছু ভিকটিম নিজ উদ্যোগে এবং কিছু কিছু ভিকটিম দালালের মাধ্যমে ইতালি যাবে বলে জানা যায়।

প্রসঙ্গত,গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব-৭ জানতে পারে,শাহ্ আমানত আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে দুবাইগামী এয়ার এরাবিয়া ফ্লাইট নং-(জি৯৫২২)রাত সাড়ে ১০টা এবং-(জি৯৫২৪)করে রাত সাড়ে ১২ টায় কতিপয় লোক অবৈধভাবে লিবিয়ায় যাচ্ছে।

বুধবার দিবাগত রাত সাড়ে ৯টা থেকে ভোর ৪ টা পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে লিবিয়া গমনের প্রাক্কালে ৩৯ জন ভিকটিমকে উদ্ধার করে র‌্যাব-৭।

উদ্ধারকৃত ভিকটিমদের পাসপোর্ট এবং ভিসা পর্যালোচনা করে দেখা যায়, ইমিগ্রেশন সম্পন্ন হওয়া ১৯ জনের ভিসার ইস্যুর তারিখ একই দিন ৫ অক্টোবর,২০১৬ এবং মেয়াদ ৩০ দিন। বাহিরে অপেক্ষারত বাকী ২০ জনের ভিসার অনুলিপি থেকে প্রতীয়মান হয় যে,কিছু কিছু ভিসার মেয়াদ মাত্র ১ দিন,কিছু কিছু ভিসা মেয়াদোত্তীর্ণ।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: