রবিবার, ১৫ জুলাই ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩১ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
রাশিয়া বিশ্বকাপরেকর্ড গড়া হলো না ক্রোয়েশিয়ার, চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স  » «   ভাতিজিকে ঘরে ডেকে নিয়ে চাচার কাণ্ড!  » «   যৌনরোগের ভয়ঙ্কর উপসর্গগুলি এক নজরে দেখে নিন  » «   রাশিয়া বিশ্বকাপবিশ্বজয়ের লক্ষ্যে মুখোমুখি ফ্রান্স-ক্রোয়েশিয়া  » «   মাদার তেরেসা ভণ্ড, শয়তান, জালিয়াতঃ তসলিমা  » «   যে কারণে অল্প বয়সে বিয়ে করেছেন শাহরুখ  » «   গ্রামে গ্রামে নগর সুবিধা দেয়া হবে -পাবনায় প্রধানমন্ত্রী  » «   হরিদাসের উপর হামলাকারীদেরকে ক্ষমা করা হবে না —-মোমিন মেহেদী  » «   বিয়ের পর বেশ হাসি খুশি মিঠুন পুত্র  » «   জাতীয় পরিচয়পত্র হারানোদের জন্য সুখবর  » «   ‘আমি ডিজির লোক, আমাকে ভয় দেখিয়ে লাভ নেই’  » «   কুবিতে ‘বরিশাল ডিভিশনাল স্টুডেন্টস এসোসিয়েশন’র নবীনবরণ  » «   মুক্তিযোদ্ধাদের বয়স কেন সাড়ে ১২ : হাইকোর্টের প্রশ্ন  » «   ধোঁয়ায় আচ্ছন্ন পুরো টার্মিনাল : শাহজালাল বিমানবন্দরে আগুন  » «   স্কুল ছাত্রীর স্পর্শকাতর জায়গায় বৃদ্ধের হাত, অতঃপর  » «  

মানবতাবিরোধী অপরাধ আ’লীগ নেতাসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন চূড়ান্ত



নিউজ ডেস্ক::একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলায় যশোরের আওয়ামী লীগ নেতা আমজাদ হোসেনসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন চূড়ান্ত করা হয়েছে।

২০১৭ সালের ১৫ মে বাঘারপাড়ার পেমচারা গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে আমজাদকে গ্রেফতার করা হয়।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে বাঘারপাড়া উপজেলার প্রেমচারা গ্রামের আমজাদ রাজাকার নিজ বাড়িতে রাজাকার ক্যাম্প স্থাপন করেছিলেন। ওই ক্যাম্পের সদস্যরা বহু মানুষকে নির্যাতন, খুন, গুমসহ নানাবিধ অত্যাচার করে।

১৯৭১ সালের ১৫ আগস্ট আমজাদ রাজাকারের নেতৃত্বে ১০-১২ জন একত্রিত হয়ে পাশ্ববর্তী মাগুরার শালিখা উপজেলার সীমাখালি গ্রামের রজব আলীকে বাড়ি থেকে ধরে বাঘারপাড়ার চাঁদপুর গ্রামে নিয়ে আসে এবং ওই গ্রামের একটি আমবাগানে গামছা দিয়ে চোখ ও দড়ি দিয়ে হাত বেঁধে ধারালো অস্ত্র দিয়ে তাকে জবাই করে।

এ ঘটনায় নিহতের ছেলে খোকন বিশ্বাস বাদী হয়ে মাগুরার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শালিখা আমলী আদালতে মামলা দায়ের করেন। পরবর্তীতে গত ৬ এপ্রিল আদালতের বিচারক শম্পা বসু মামলাটি গ্রহণপূর্বক তা ‘আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে’ পাঠানোর নির্দেশনা দেন। এরপর আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল মামলাটি গ্রহণ করে।

এ মামলার অন্য আসামিরা হলেন- বাঘারপাড়ার প্রেমচারা গ্রামের কেরামত মোল্লা, ওহাব এবং ফসিয়ার মোল্লা।

ওই ঘটনা ছাড়াও আমজাদ রাজাকারের বিরুদ্ধে ১৯৭১ সালের ১৮ আগস্ট বাঘারপাড়ার উত্তর চাঁদপুর গ্রামের মৃত শফিউদ্দীন বিশ্বাসের দুই ছেলে ময়েন উদ্দিন এবং আয়েন উদ্দিনকে হত্যার অভিযোগ রয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে যখন যে দল ক্ষমতায় এসেছে, আমজাদ সেই দলের নেতা হয়েছেন।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: