সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ২৯ আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
ক্যাসিনো পঞ্চপাণ্ডবের রইল বাকি ১  » «   পুলিশের ওপর হামলা: দুই ‘জঙ্গি’ আটক  » «   সিলেট-জকিগঞ্জ সড়কে চালকদের প্রতিযোগিতায় যাত্রীবাহী বাস খাদে, আহত ৭  » «   ইনস্টাগ্রামে ট্রাম্প-ওবামাকে পেছনে ফেললেন মোদি!  » «   একটি মোবাইল চার্জারের দাম ২২ হাজার টাকা  » «   বেতন বৈষম্য: কর্মবিরতিতে সাড়ে ৩ লাখ শিক্ষক  » «   আবরার হত্যা: শেষ চার ঘণ্টার নৃশংসতার চিত্র  » «   সংবিধান পড়ে শোনালেন আমান, পুলিশ বলল ‘গো ব্যাক’  » «   বুয়েটে ভর্তি পরীক্ষা শুরু  » «   আবরার হত্যায় এবার মুজাহিদের স্বীকারোক্তি  » «   তিন সপ্তাহ ধরে কার্যালয়ে যান না যুবলীগ চেয়ারম্যান  » «   নোবেল পুরস্কার র‌্যাব-পুলিশের হাতে নয় : রিজভী  » «   বুরকিনা ফাসোতে মসজিদে ঢুকে ১৬ মুসল্লিকে গুলি করে হত্যা  » «   হবিগঞ্জে পাচারকালে ১২শ’ কেজি রসুন জব্দ  » «   সৌদি-ইরান উত্তেজনা মধ্যস্ততায় তেহরানের পথে ইমরান খান  » «  

মহাসমাবেশে এসে ‘বিব্রত’ এরশাদ-রওশন



নিউজ ডেস্ক::ঢাক-ঢোল পিটিয়ে গত কয়েকদিন ধরে দেশজুড়ে প্রচারণা চালিয়েছে জাতীয় পার্টি। একাদশ নির্বাচনের রোডম্যাপ ঘোষণার এই মহাসমাবেশে লোকসমাগমের রেকর্ড ভাঙার ঘোষণাও আসে। কিন্তু, সমাবেশের দিন শনিবার সকালের বাস্তবতা ভিন্ন। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে লোকসমাগম মোটামুটি হলেও সমাবেশ মঞ্চে এসে যেন বিব্রতই হলেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচএম এরশাদ ও সংসদের বিরোধী দলীয় নেত্রী রওশন এরশাদ।

এই রাজনৈতিক দম্পতি সকাল ৯টা ২০ মিনিটে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের সমাবেশ মঞ্চে আসন নেন। এ সময় দলের নেতাকর্মীরা স্লোগানে স্লোগানে তাদেকে শুভেচ্ছা জানান। এ সময় হাত নেড়ে শুভেচ্ছার জবাব দেন তারা। তখন তাদের পাশে দলের আর কোনো কেন্দ্রীয় নেতাকে দেখা যায়নি।

অবশ্য সকাল ১০টায় আনুষ্ঠানিকভাবে সমাবেশ শুরু হওয়ার কথা। এজন্য সকাল থেকেই নেতাকর্মীরা এসেছেন। এক ফাঁকে দলের মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার তাদের পাশের চেয়ারে গিয়ে বসেন। কিন্তু নেতাকর্মীদের দিক-নির্দেশনা দেয়ার জন্য কিছু সময় পরই তাকে উঠে যেতে হয়।

এ সময় জাতীয় পার্টির শীর্ষস্থানীয় এই তিন নেতা ছাড়া আর কোনো প্রেসিডিয়াম সদস্যকেও দেখা যায়নি। পরে অবশ্য সৈয়দ আবু হোসেন বাবলাসহ দু’একজন আসেন। বেশ আগেভাগে সমাবেশস্থলে এরশাদের উপস্থিতি দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে প্রাণ সঞ্চার করে। তবে এ সময় মঞ্চে এরশাদকে কিছুটা উদাস হয়ে বসে থাকতে দেখা যায়।

কেন্দ্রীয় নেতাদের ছাড়া মঞ্চে বসে এরশাদ ও রওশন নিজেদের মধ্যে কিছুক্ষণ আলাপ সেরে নেন। এরপর যে যার মত চুপচাপ বসে থাকেন। সবমিলে স্ত্রীকে পাশে নিয়ে এ সময় এরশাদকে বেশ বিব্রত অবস্থায় দেখা যায়।

মূল মঞ্চের পশ্চিম পাশে নির্মাণ করা হয়েছে ছোট সাংস্কৃতিক মঞ্চ। সেই মঞ্চ থেকে গান পরিবেশন করছেন শিল্পীরা। বাউল শিল্পীদের গানের সঙ্গে তাল মেলাচ্ছেন সমাবেশে আসা কর্মী-সমর্থকরা।

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ এ মহাসমাবেশ থেকে আগামী নির্বাচনের রোডম্যাপ ঘোষণা করবেন, দেবেন রাজনীতিতে নতুন বার্তা। সমাবেশ উপলক্ষে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিভিন্ন ব্যানার-ফেস্টুনে সাজানো হয়েছে মাঠ ও আশপাশের এলাকা। হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ছবিসংবলিত ব্যানার-পোস্টার দিয়ে সমাবেশের চারপাশ সাজানো হয়েছে। উদ্যানের ঠিক মাঝখানে উত্তরমুখী মঞ্চ তৈরি করা হয়েছে। শাহবাগ থেকে মৎস্য ভবন মোড় পর্যন্ত মাইক লাগানো হয়েছে। কাকরাইল মসজিদ মোড় থেকে শাহবাগ পর্যন্ত সড়কদ্বীপে লাগানো হয়েছে নানা রং-বেরং-এর পতাকা।

১৯৮২ সালের এই দিনে অর্থাৎ ২৪ মার্চ জেনারেল হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ রাষ্ট্রপতি বিচারপতি আবদুস সাত্তারকে সরিয়ে দেশের কর্তৃত্ব নেন। এরশাদের ক্ষমতাগ্রহণের এই দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখতেই ২৪ মার্চ সমাবেশ করছে বলে জাপা নেতারা জানান।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: