শুক্রবার, ১৮ জানুয়ারী ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ মাঘ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
জিয়াউর রহমানের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে কর্মসূচি ঘোষণা  » «   সীমান্তের খালে মিয়ানমারের সেতু, বন্যার আশঙ্কা বাংলাদেশে  » «   দ্বিতীয় কৃত্রিম উপগ্রহ পাঠাবে বাংলাদেশ: শাবিতে পরিকল্পনামন্ত্রী  » «   আতিয়া মহল মামলা: ৫ দিনের রিমান্ডে ৩ আসামি  » «   শেখ হাসিনা হত্যাচেষ্টা মামলা: হাইকোর্টে আপিল শুনানি শুরু  » «   টিআইবির রিপোর্টে সরকার ও ইসির আঁতে ঘা লেগেছে: বিএনপি  » «   মাফিয়াদের স্বর্গরাজ্যে দশ বাংলাদেশির অনন্য সাহসিকতার নজির  » «   ১৪ দলের শরিকদের বিরোধী দলে থাকাই ভালো: ওবায়দুল কাদের  » «   সন্ত্রাস-মাদক-জঙ্গিবাদের মতো দুর্নীতির বিরুদ্ধেও ‘জিরো টলারেন্স’ : প্রধানমন্ত্রী  » «   সংসদ সদস্যদের শপথের বৈধতা নিয়ে রিট খারিজ  » «   কৃত্রিম কিডনি তৈরি করলেন বাঙালি বিজ্ঞানী  » «   ব্রেক্সিট ইস্যু: অনাস্থা ভোটে টিকে গেলেন তেরেসা মে  » «   টিআইবির প্রতিবেদন গ্রহণযোগ্য নয়, পুরোপুরি প্রত্যাখ্যান করি: সিইসি  » «   জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে অফিস করছেন শেখ হাসিনা  » «   সংসদ কার্যকর রাখতেই বিরোধী দলে জাপা : জিএম কাদের  » «  

ভুল সিলেবাসের প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা : অনিশ্চয়তায় ১৬ পরীক্ষার্থী



নিউজ ডেস্ক::চলতি মাধ্যমিক পরীক্ষায় কেন্দ্র সচিবের হটকারী সিদ্ধান্ত ও দায়িত্বে অবহেলা এবং ভুল সিলেবাসের প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা দেওয়ায় বাধ্য করার কারণে ১৬ শিক্ষার্থীর পরীক্ষায় পাশ করা নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।

ঘটনাটি ঘটেছে সোমবার(৫ ফেব্রুয়ারি) লালমনিরহাট জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার তুষভান্ডার আর এম এম পি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় পরীক্ষা কেন্দ্রে।

জানা গেছে, ২০১৭ সালের এসএসসি পরীক্ষায় বিভিন্ন কারণে তুষভান্ডার নছর উদ্দিন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ০৯ জন ও চাপারহাট উচ্চ বিদ্যালয়ের ০৭ জনসহ ১৬ জন শিক্ষার্থী ফরম পূরণ না করায় পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেনি। পরবর্তীতে ২০১৮ সালে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণের জন্য ফরম পূরণ করে চলতি পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে।

দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডের পরিপত্র অনুযায়ী, ২০১৭ সালে এসএসসি পরীক্ষায় যে সকল শিক্ষার্থী ফরম পূরণ করেননি তারা ২০১৮ সালের পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করলে ২০১৮ সালের সিলেবাস অনুযায়ী প্রশ্নপত্রের আলোকে পরীক্ষা দিবে। সে অনুয়ায়ী ওই সকল শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ গ্রহণের প্রস্তুতি ও পড়ালেখা করে। কিন্তু তুষভান্ডার আর এম.এম.পি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের কেন্দ্র সচিব নলিনী কান্ত রায় সেই নিয়মের কোনো তোয়াক্কা না করে ওই সব শিক্ষার্থীদেরকে ২০১৭ সালের সিলেবাস অনুযায়ী প্রশ্ন সরবরাহ করেন। তাৎক্ষণিক শিক্ষার্থীরা ও কক্ষপরিদর্শকরা বিষয়টি কেন্দ্র সচিবকে অবহিত করলে কেন্দ্র সচিব বিষয়টি আমলে না নিয়ে উল্টো শিক্ষার্থীদেরকে ভয়ভীতি দেখিয়ে কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়ার হুমকি দিয়ে সবরাহকৃত প্রশ্নে পরীক্ষা দেয়ার জন্য বাধ্য করেন বলে পরীক্ষার্থীদের অভিযোগ।

তুষভান্ডার উচ্চ বিদালয়ের প্রধান শিক্ষক বহুরুল ইসলাম জানান, আমার ০৯ জন শিক্ষার্থী ২০১৮ সালের সিলেবাস অনুযায়ী পড়ালেখা করেছে। এখন ২০১৭ সালের সিলেবাসের প্রশ্নে পরীক্ষা দেয়ায় পরীক্ষার ফলাফল ভাল হবে না। এতে বিদ্যালয়ের পাশের হার কমে যাবে অপরদিকে ওই শিক্ষার্থীদের একটি বছর শিক্ষা জীবন থেকে ঝড়ে পড়বে। এর দায় সংশি¬ষ্ট কেন্দ্র সচিব এড়াতে পারেন না।

ওই কেন্দ্রের দায়িত্ব প্রাপ্ত কর্মকর্তা ও উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা আবু সুফিয়ান বলেন, আমি শুধুমাত্র সংশি¬ষ্ট কেন্দ্রের সুষ্ঠু পরিবেশ নিরাপত্তার ব্যাপারটি দেখি। সিলেবাস ও প্রশ্নপত্রের দায়িত্ব সংশি¬ষ্ট কেন্দ্র সচিবের।

তুষভান্ডার আর এম এম সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের কেন্দ্র সচিব নলিনী কান্ত রায় বলেন, আমি পরীক্ষার প্রশ্ন পত্র নেয়ার জন্য থানায় যাই না। আমার প্রতিনিধিরা যান। ওই দিনের পরীক্ষার দায়িত্বরত পরিদর্শক ও সংশ্লি¬ষ্ট শিক্ষার্থীরাই দায়ী। ওই কক্ষের ৪ জন পরিদর্শককে বহিস্কার করা হয়েছে।

কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার রবিউল হাসান জানান, সংশ্লিষ্ট কেন্দ্র সচিবকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়েছে। নোটিশের জবাব পেলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: