শনিবার, ২৩ মার্চ ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ চৈত্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
লাগামহীনভাবে বাড়ছে দ্রব্যমূল্য: রমজানপূর্ব মজুদদারিতে কারসাজি  » «   সন্ত্রাস ও হিংসা মোকাবেলায় একসঙ্গে কাজ করতে পাকিস্তানকে আহ্বান মোদির  » «   সংসদে লুকিয়ে চকলেট খেয়ে ক্ষমা চাইলেন ট্রুডো!  » «   নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীকে অন্যরকম সম্মান দেখালো আরব আমিরাত  » «   ‘ইসলাম গ্রহণ করবেন ভেনিজুয়েলার প্রেসিডেন্ট’  » «   শাহজালাল বিমানবন্দরে ময়লার ঝুড়ি থেকে ১৬ কেজি স্বর্ণ উদ্ধার  » «   ভারতে লোকসভা নির্বাচনে প্রার্থীদের প্রথম তালিকা ঘোষণা করলো বিজেপি  » «   সিলেটে ট্রাকের ধাক্কায় প্রাণ গেল সিলসিলার ম্যানেজারের  » «   নিজের চেয়ার ছেড়ে জহিরুলের পাশে এসে দাঁড়ালেন প্রধানমন্ত্রী  » «   সিলেটে নির্মাণ হতে যাচ্ছে স্মৃতিসৌধ,পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ডিও লেটার  » «   সুখী দেশের তালিকায় বাংলাদেশের ১০ ধাপ অবনতি  » «   জাফর ইকবালকে হত্যাচেষ্টা মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু  » «   আইডিয়া’র ২৫ বছর পূর্তি উৎসবে র‍্যালি, আলোচনাসভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান  » «   উন্নয়ন করতে গিয়ে জীবন ও জীবিকার যেন ক্ষতি না হয় : প্রধানমন্ত্রী  » «   আজ দিন রাত সমান, আকাশে থাকবে সুপারমুন  » «  

ভাওতাবাজির জন্য সরকারকে গোল্ড মেডেল দেওয়া উচিৎ: ড. কামাল



নিউজ ডেস্ক:: জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট কোনো অবস্থাতে নির্বাচন বয়কট করবে না বলে জানিয়েছেন জোটের অনত্যম নেতা ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন। শনিবার সুপ্রিমকোর্ট চত্বরে জাতীয় আইনজীবী ঐক্যফ্রন্ট আয়োজিত আইনজীবীদের মহাসমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

২০১৪ সালের নির্বাচনের উদাহরণ দিয়ে ড. কামাল হোসেন বলেন, নির্বাচন হয়েছিল। হাইকোর্ট আমাকে অ্যামিকাস কিউরি নিয়োগ দিয়েছিল। তারা নির্বাচন বিষয়ে আমার মতামত জানতে চেয়েছিল। আমি বলেছিলাম, বলতে গেলে দুই মিনিটেই বলা যায় কোনো নির্বাচনই হয়নি। সে সময় তারা (সরকার) কোর্টে দাঁড়িয়ে বলেছিলেন, আমরা পরিস্থিতির আলোকে এই নির্বাচন নিয়েছি। আমরা দ্রুত সময়ের মধ্যে আরেকটি নির্বাচন দেব।

সরকারের উদ্দেশে তিনি বলেন, ২০১৪ সালে কোর্টে দাঁড়িয়ে আপনারা কী বলেছিলেন কথাগুলো কি মনে নাই।আমি আন্দাজে বলছি না। রেকর্ড আছে। দ্রুত নির্বাচন মানে কি পাঁচ বছর? আমি এটা জানতে চাই।তিনি আরো বলেন, এই দেশের মালিক জনগণ। তারা ভোটের মাধ্যমে দেশের শাসনক্ষমতা নির্ধারণ করবে। কিন্তু দেশের মানুষকে এই অধিকার থেকে বঞ্চিত করে ২০১৪ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে।

ড. কামাল বলেন,পাঁচ বছরে আমরা কোনো গণতন্ত্র দেখতে পাইনি। জনগণের শাসন থেকে আমাদের বঞ্চিত করা হয়েছে, গণতন্ত্র থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে, সংসদীয় শাসন থেকে জনগণকে বঞ্চিত করা হয়েছে।তিনি বলেন, আমরা বাংলাদেশের মানুষ দেশকে পরাধীনতার শৃঙ্খল থেকে মুক্ত করেছিলাম। আমরা দেশকে আবার পরাধীন বানাতে দিতে পারি না।

ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ এই নেতা বলেন, সরকার ভাওতাবাজি করেছে। ভাওতাবাজির জন্য তাদের গোল্ড মেডেল দেওয়া উচিৎ।জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সিদ্ধান্তকে জনমত গঠনের কাজে সারাদেশে পৌঁছে দেওয়ার তাগিদ দিয়ে ড. কামাল বলেন, সময় খুব কম, দেরি করা যাবে না।

এ সময় তিনি আবারো বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করেন।এর আগে শনিবার সকালে মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর ৪২ তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে টাঙ্গাইলের সন্তোষে তার সমাধিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। সে সময় তিনি নির্বাচন নিয়ে আজ কোনো মন্তব্য করবেন না বলে জানিয়েছেন।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: