শুক্রবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
২৪ ডিসেম্বর মাঠে নামছে সেনাবাহিনী, থাকবেন ম্যাজিস্ট্রেটও  » «   ইন্টারনেটে ধীর গতি ও মোবাইল ব্যাংকিং বন্ধ চায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী  » «   প্রার্থিতা নিয়ে শুনানি: আদালতের প্রতি খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের অনাস্থা  » «   আওয়ামী লীগ ১৬৮ থেকে ২২০ আসনে জিতবে: জয়  » «   সিলেট-২ আসনে বিএনপির প্রার্থী তাহসিনা রুশদীর লুনার মনোনয়ন স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট  » «   আম্বানি কন্যার বিয়েতে নাচলেন হিলারি ক্লিনটন [ভিডিও ]  » «   সিলেট-১ আসনে ধানের শীষের প্রচারণার একসঙ্গে মুক্তাদির-আরিফ  » «   সহিংসতার ঘটনা খতিয়ে দেখতে সিইসির নির্দেশ  » «   ‘ইডিয়ট’ লিখে গুগলে সার্চ দিলে কেনো আসে ট্রাম্পের ছবি?  » «   বিশ্ব ভ্রমণ করবে বাংলাদেশের প্রথম বিদ্যুৎচালিত গাড়ি  » «   খাশোগি হত্যাকাণ্ডে সৌদি আরব ছাড়পত্র পাবে না: নিক্কি হ্যালি  » «   গুগলে সবচেয়ে বেশি খোঁজ খালেদা ও হিরো আলম  » «   আস্থা ভোট, নেতৃত্বের পরীক্ষায় উতরে গেলেন তেরেসা মে  » «   ফোনালাপ ফাঁস: খন্দকার মোশাররফের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগ  » «   নির্বাচনে এজেন্ট পাওয়া নিয়ে চিন্তায় বিএনপি  » «  

বৈধ জেলে কার্ড থাকার পরও চাল পায়নি



নিউজ ডেস্ক::মৎস্য সংরক্ষণের কারণে সরকারী অবরোধে বরগুনার আমতলী উপজেলার আরপাঙ্গাশিয়া ইউনিয়নের প্রায় ২৭ জন জেলেকে তাদের প্রাপ্য চাল দেয়নি বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ২৭ ফেব্রুয়ারী আরপাঙ্গাশিয়া ইউনিয়ন পরিষদে জেলেদের মাঝে চাল বিতরনে এসকল ভূক্তভোগী জেলেদের বৈধ জেলে কার্ড থাকা সত্বেও তাদের চাল দেয়নি বলে অভিযোগ করেন একাধীক ভূক্তভোগী জেলে।

সাগর ও নদীতে মা ইলিশ, জাটকা ও বিভিন্ন প্রজাতির মৎস্য রেনু পোনা সংরক্ষনে জেলেদের মৎস্য শিকারে সরকারীভাবে অবরোধ দেয়া হয়। এই অবরোধে গরীব জেলেরা সরকারের আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে মৎস্য শিকার থেকে বিরত থাকেন। তাই এসময় সকল জেলে পরিবারগুলোকে সরকার মাসে ৪০ কেজি করে ৪ মাসে ১৬০ কেজি চাল প্রতি জেলের নামে বরাদ্দ দিয়ে থাকে। অথচ এই বরাদ্দকৃত চাল আরপাঙ্গাশিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান একেএম নুরুল হক তালুকদার ও তার দোসররা প্রায় ২৭ জন জেলের বৈধ কার্ড থাকা সত্বেও তাদেরকে চাল দেয়নি।

জেলেদের অভিযোগ তারা কার্ড নিয়ে চালের জন্য ইউনিয়ন পরিষদে গেলে তাদের সাথে খারাপ আচরন করে চাল নাদিয়ে তাড়িয়ে দেয়া হয়। যারা আদৌ জেলে নয়, তাদের নামে জেলে কার্ড দেয়া হয়েছে এবং চাল দেয়া হয়েছে সচ্ছল পরিবারকে, অভিযোগ করেন জেলে মিজানুর সিকদার, সোহেল শরীফ, আবদুর রব শরীফ, মোঃ হারুন, ছোবাহান মাতুব্বর, আনোয়ার হোসেন, জাফর। তারা বলেন, সরকারের আইন মেনে আমরা অবরোধে নদীতে মাছ ধরা থেকে বিরত থাকি। কিন্তু সরকার থেকে এই অবরোধে আমাদের জেলেদেরকে যে চাল বরাদ্দ দিয়েছে তা যদি আমরা না পাই তাহলে কিভাবে আমরা আমাদের পরিবার পরিজন নিয়ে বাঁচবো ? এই অনিয়মের ব্যাপারে কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন এই ভূক্তভোগী গরীব জেলেরা।

জেলেরা চাল পায়নি এ সত্যতা নিশ্চিত করে আরপাঙ্গাশিয়া ইউপি সদস্য মোঃ ফোরকান জানান, মাষ্টাররুলে নাম থাকা সত্বেও অনেক জেলেদের চাল দেয়া হয়নি। চাল পায়নি এমন অনেক জেলে আমার ওয়ার্ডেই আছে।

জেলেদের সকল অভিযোগ অস্বীকার করে আরপাঙ্গাশিয়া ইউপি চেয়ারম্যান নুরুল হক তালুকদার বলেন, সকল জেলেদেরকে চাল দেয়া হচ্ছে পর্যায়ক্রমে।

প্রকৃত জেলেদের মাঝে চাল বিতরনে অনিয়মের ব্যপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও মৎস কর্মকতাকে অবহিত করে তদন্ত সাপেক্ষে আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে আশ্বাস দেন বরগুনার জেলা প্রশাসক মোঃ মোখলেছুর রহমান। মা ইলিশ ও জাটকা ইলিশ সংরক্ষনে সরকারী অবরোধে জেলেদের মাঝে সরকার থেকে যে চাল বরাদ্দ দেয়া হয় তা যেনো প্রকৃত জেলেরা পায় এ প্রত্যাশা ভুক্তভোগী জেলেদের।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: