বুধবার, ২২ নভেম্বর ২০১৭ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
বরখাস্তকৃত ন্যানগ্যাগওয়াই হচ্ছেন জিম্বাবুয়ের প্রেসিডেন্ট  » «   খালেদার গাড়িবহরে হামলা সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায়ের পরিকল্পনার অংশ  » «   এক মোটরসাইকেলেই বিশ্ব রেকর্ড  » «   কাঁদলেন ঐশ্বরিয়া, ১শ শিশুর ঠোঁটের অস্ত্রোপচারে খরচ দিবেন  » «   কাল থেকে পুনরায় চালু হচ্ছে চুয়েট বাস  » «   বলি একটা লেখেন আরেকটা: সাংবাদিকদের রোনালদো  » «   এসএসসি পরীক্ষা শুরু ১ ফেব্রুয়ারি  » «   মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে হবে ছাত্রলীগের স্কুল কমিটি  » «   এগিয়ে থাকুন সৃজনশীলতায়  » «   সংসদে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী ১ বছরে সাড়ে ৩ কোটি ইয়াবা জব্দ  » «   শ্রীমঙ্গলে বড় ভাইয়ের হাতে ছোট ভাই খুন  » «   দখলমুক্ত হচ্ছে খাল ও নদী  » «   কুমিল্লায় হানিফ‘আ’লীগকে হুংকার দিয়ে লাভ নেই’  » «   কমলগঞ্জে প্রতিহিংসায় বিনষ্ট কৃষকের শিম বাগান  » «   অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাৎ সহ নানা অভিযোগ  » «  

বেলাল হায়দার পারভেজ এর কবিতা



পোড়া মবিলের ভেতর শীষ দেয় পাখি 

এক।
—-
সাত সকালে মদনাকানা রাস্তার উপর হঠাৎ তব্দা খাইয়া খারাইয়া গেল। ক্ষনিক পর ধীরে ধীরে অজস্র রংয়ের ভিতর কালো পোড়া মবিলের নীচে রঙিন পাখির গান শুনিতে থাকে। ঢোল বাজে আর ঢুলীর নাচের তালে পরমানন্দে মন নাচে তার।

দুই।

শহরের রাস্তায় ব্যস্ত মানুষ গুলো কখনো কখনো স্তব্দ হয়ে যায়। কেমন যেন মরা মরা ভাব লাগে। অচেনা মানুষগুলো কখনো কখনো একসঙ্গে বিষন্ন হয়ে যায়। আবার একাট্টা হয় সৃষ্টি সুখের উল্লাসে। অভিন্ন স্বপ্ন সুখে নতুন করে বাঁচে।মদনাকানা দেখেছে এমন দিন। এ জীবনে অনেক বার।

আজ আবারও শহরের দেয়ালের পাশে অজস্র রংয়ের মেলায় পোড়া মবিলের নিষ্ঠুর বলাৎকারে স্তব্দ সার্সন রোডের পাহাড়,পাখি,মানুষ আর ওয়ার সেমেট্রির শালবন।

এমন দিনে-
প্রেমিক ভুলে যায় বুকের জমিনে রাখা প্রেমিকার শেষ চুম্বন।
লক্ষিন্দরের ভেলায় ভেসে যায় তার অবশ দেহ-মন।
কর্ণফুলীর স্রোতে বালিকা হারায় স্বপ্ন মাখা প্রিয় নাকফুল,
সাগরের নোনা জলে মিশে যায় বেহুলার কান্নার জল।

তিন।
—-
মদনাকানার ভাবনা শেষ হইতে না হইতে নগরের আকুলি-বকুলিরা কলরব করিতে করিতে পোড়া মবিলের উপর হুমড়ি খাইয়া পড়িয়া আবার রঙের খেলায় উৎসব আনন্দে মাতামাতি করিতে লাগিল।

তুলির মায়াবী পরশে পোড়া মবিলের আবরন হতে বের হয়ে আসে অপরুপ রঙের সাজে পদ্মাপাড়ের মায়াবী কন্যা পদ্মাবতি।
ঢুলির ঢোল বাজে নবজীবনের উৎসবে উল্লাসে ঊন্মাদনায়।
ছয় বেহারার পাল্কী চলে হুউম্মা হুউম্মা।

অতপর: মদনাকানা আনমনে কী যেন এক গানের সুরে
ঐ দূরের কানা গলিতে হারায়, সন্ধ্যা নেমে এলে সার্সন রোড়ের শাল পিয়ালের বনে একঝাঁক অচিন পাখি কী এক মায়ার সুরে গেয়ে যায় উৎসবের গান পরমানন্দে।
চার ।
—-
পোড়া মবিলের ভেতর দেখো ঐ যুবকের তুলির রং
তার মন যে সাদা কোন রংয়েতে কেমন করে মুছবি বল!

অধম মদানা কানা বলে,
পোড়া মবিল মারে যে জন-
তার মানুষের নয়,পশুর মত মন।
সে যে নষ্ট করে ফুল,পাখি আর জল;
ভাবিসনা তুই,সহসা সে যাবেই রসাতল।

রংয়ের লগে বসত করে নিত্যানন্দে জীবন যার,
মবিল পোড়া কোন কিছুর ধারে নাকো কোন ধার।

অগ্নিস্নানে যায় যে বেলা লাল সবুজের দেশে তার।
লাভ কী রে তোর তাহার সনে মবিল নিয়া সং সাজার।

রঙের মেলায় হাজার মানুষ রুঁখবে তাদের সাধ্যকার।
কাল প্রভাতেই জমবে দেখিস আনন্দেরই হাটবাজার।

——

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: