বুধবার, ১৫ অগাস্ট ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩১ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
১৫ আগস্ট কেন ভারতের স্বাধীনতা দিবস?  » «   খালেদার জন্মদিনে ফখরুল‘প্রাণ বাজি রেখে লড়াই করতে হবে’  » «   রাজধানীতে নির্মাণাধীন ভবন থেকে পড়ে ২ শ্রমিকের মৃত্যু  » «   ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে দীর্ঘ যানজট  » «   ঢাকায় ইলিশের কেজি মাত্র ৪০০ টাকা!  » «   অস্ট্রেলিয়ান সিনেটে প্রথম মুসলিম নারী  » «   প্রধানমন্ত্রী নয়, ইসির নির্দেশনায় চলবে প্রশাসন : নাসিম  » «   সৌদি আরবে আরও ৫ বাংলাদেশি হজযাত্রীর মৃত্যু  » «   মৃত পুরুষকে বিয়ে করলেন নারী, এরপর…  » «   যা করবেন সন্তানকে বুদ্ধিমান ও চটপটে বানাতে  » «   নিউইয়র্কে লাঞ্ছিত ইমরান এইচ সরকার  » «   কুরবানির গোশত অন্য ধর্মাবলম্বীকে দেওয়া যাবে?  » «   শাহরুখের গাড়ি-বাড়ি ও ঘড়ির দাম এত?  » «   ভ্যান চালিয়ে প্রধানমন্ত্রীর নামে জমি, এরপর…  » «   মোবাইল ফোনে নতুন কলচার্জ নিয়ে যা বলছেন গ্রাহকরা  » «  

বেকায়দায় বালু ভর্তি ট্রাকের চালকরা



trucসংবাদ ২১ ডটকম:: বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ের সামনে ইটের খোয়া ভর্তি ট্রাক নিয়ে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার সঙ্গে সঙ্গে অপেক্ষা করছেন ট্রাক চালক সেলিম। গত রোববার থেকে শুধু সেলিম নয়, এরকম উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় নিয়ে সময় পার করছেন আরো ২৩টি ট্রাকের চালক ও তাদের পরিবারের সদস্যরা।

গতকাল রোববার রাত থেকে গুলশানের বিএনপির কার্যালয়ের সামনে ব্যারিকেট দেয়া ২৪টি ট্রাকের চালকেরা অবস্থান করছেন। কেউ জানেন না কখন তাদের যেতে দেয়া হবে। এমনকি তাদের খাওয়ার জন্য সামান্য টাকা দেয়া হচ্ছে বলে জানান তারা।

৫ জানুয়ারি সোমবার গণতন্ত্র হত্যা দিবস পালন করার লক্ষ্যে সমাবেশে যোগ দেয়ার কথা ছিল বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার। তিনি যাতে সমাবেশে যোগ দিতে না পারেন সেজন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অবস্থানের পাশাপাশি বিএনপি কার্যালয়ের সামনে বালি ও ইটের খোয়া ভর্তি ট্রাক আড়াআড়ি করে রাখা হয়।

চালক সেলিম জানান, তিনি রোববার গাবতলী থেকে ইটের খোয়া বোঝাই ট্রাক নিয়ে বনানীতে ডেলিভারি দিতে যাচ্ছিলেন। কাকলি মোড়ে যাওয়ার পরপরই পুলিশ গাড়িটির গতি রোধ করে কাগজপত্র দেখতে চায়।

তিনি জানান, এরপর তাকে ১০ মিনিটের জন্য পুলিশের সঙ্গে যাওয়ার কথা বলে খালেদা জিয়া গুলশান কার্যালয়ের সামনে নিয়ে আসা হয়। সেখানে এসে তিনি আরো কয়েকটি ট্রাক আড়াআড়িভাবে দাঁড় করিয়ে রাখতে দেখতে পান।

সেলিম জানান, রোববার থেকে এখানে অবস্থান করছে। পুলিশ ট্রাকের চাবি নিয়ে গেছেন। কবে গাড়ির চাবি দেয়া হবে বা তাদের যেতে দিবে এ বিষয়ে কিছু বলেনি।

তিনি আরো জানান, গাড়িতে পাঁচজন কুলি ও একজন হেলপার ছিল। এ অবস্থায় দেখে রাতেই তিনজন কুলি বাসা চলে গেছে। বাকি তিন জনের সকাল-দুপুরের খাবারের জন্য মাত্র ১০০ টাকা দিয়েছে পুলিশ।

এ অবস্থায় সেলিমের পরিবারের সদস্যা উৎকণ্ঠায় দিন পার করছে বলেও জানান তিনি।

অন্যদিকে গাড়ির মালিক ও ডেলিভারের সদস্যরা উৎকণ্ঠায় দিন পার করেছে বলে জানান ট্রাক চালকরা। রাজনৈতিক এ উত্তেজনাকর পরিস্থিতিতে থেকে রেহাই দিতে পুলিশের প্রতি আহ্বান জানান তারা।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: