রবিবার, ১৭ জুন ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
ছাত্রীর সঙ্গে শিক্ষকের কুকীর্তি ফাঁস!  » «   মায়ের পছন্দ ব্রাজিল, সমর্থক জয়ও  » «   পুলিশ কমিশনার‘ঈদগাহে ছাতা ও জায়নামাজ ছাড়া অন্য কিছু নয়’  » «   ‘আমিও প্রেগনেন্ট হয়েছি, অনেকবার অ্যাবরশনও করিয়েছি’  » «   গুগল পেজ ইরর দেখায় কেন?  » «   রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, সিইসি কে কোথায় ঈদ করছেন  » «   ইসি সচিব : তিন সিটি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা  » «   বিপজ্জনক রূপ নিয়েছে মনু ও ধলাই  » «   বিশ্বকাপের একদিন আগে বরখাস্ত স্পেন কোচ!  » «   ঢাকা-চট্রগ্রাম মহাসড়কে ৭ কি.মি. যানজট  » «   শারীরিক সম্পর্ক নিয়ে আলিয়ার সোজা কথা!  » «   যে কারণে ইউনাইটেড হাসপাতালে যেতে চান খালেদা  » «   খালেদা চিকিৎসা চান নাকি রাজনীতি করছেন : সেতুমন্ত্রী  » «   যানজটের কথা শুনিনি, কেউ অভিযোগও করেননি  » «   ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান ‘বকশিসের নামে নীরব চাঁদাবাজি নেই’  » «  

বেকায়দায় বালু ভর্তি ট্রাকের চালকরা



trucসংবাদ ২১ ডটকম:: বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার গুলশানের রাজনৈতিক কার্যালয়ের সামনে ইটের খোয়া ভর্তি ট্রাক নিয়ে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার সঙ্গে সঙ্গে অপেক্ষা করছেন ট্রাক চালক সেলিম। গত রোববার থেকে শুধু সেলিম নয়, এরকম উদ্বেগ-উৎকণ্ঠায় নিয়ে সময় পার করছেন আরো ২৩টি ট্রাকের চালক ও তাদের পরিবারের সদস্যরা।

গতকাল রোববার রাত থেকে গুলশানের বিএনপির কার্যালয়ের সামনে ব্যারিকেট দেয়া ২৪টি ট্রাকের চালকেরা অবস্থান করছেন। কেউ জানেন না কখন তাদের যেতে দেয়া হবে। এমনকি তাদের খাওয়ার জন্য সামান্য টাকা দেয়া হচ্ছে বলে জানান তারা।

৫ জানুয়ারি সোমবার গণতন্ত্র হত্যা দিবস পালন করার লক্ষ্যে সমাবেশে যোগ দেয়ার কথা ছিল বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার। তিনি যাতে সমাবেশে যোগ দিতে না পারেন সেজন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অবস্থানের পাশাপাশি বিএনপি কার্যালয়ের সামনে বালি ও ইটের খোয়া ভর্তি ট্রাক আড়াআড়ি করে রাখা হয়।

চালক সেলিম জানান, তিনি রোববার গাবতলী থেকে ইটের খোয়া বোঝাই ট্রাক নিয়ে বনানীতে ডেলিভারি দিতে যাচ্ছিলেন। কাকলি মোড়ে যাওয়ার পরপরই পুলিশ গাড়িটির গতি রোধ করে কাগজপত্র দেখতে চায়।

তিনি জানান, এরপর তাকে ১০ মিনিটের জন্য পুলিশের সঙ্গে যাওয়ার কথা বলে খালেদা জিয়া গুলশান কার্যালয়ের সামনে নিয়ে আসা হয়। সেখানে এসে তিনি আরো কয়েকটি ট্রাক আড়াআড়িভাবে দাঁড় করিয়ে রাখতে দেখতে পান।

সেলিম জানান, রোববার থেকে এখানে অবস্থান করছে। পুলিশ ট্রাকের চাবি নিয়ে গেছেন। কবে গাড়ির চাবি দেয়া হবে বা তাদের যেতে দিবে এ বিষয়ে কিছু বলেনি।

তিনি আরো জানান, গাড়িতে পাঁচজন কুলি ও একজন হেলপার ছিল। এ অবস্থায় দেখে রাতেই তিনজন কুলি বাসা চলে গেছে। বাকি তিন জনের সকাল-দুপুরের খাবারের জন্য মাত্র ১০০ টাকা দিয়েছে পুলিশ।

এ অবস্থায় সেলিমের পরিবারের সদস্যা উৎকণ্ঠায় দিন পার করছে বলেও জানান তিনি।

অন্যদিকে গাড়ির মালিক ও ডেলিভারের সদস্যরা উৎকণ্ঠায় দিন পার করেছে বলে জানান ট্রাক চালকরা। রাজনৈতিক এ উত্তেজনাকর পরিস্থিতিতে থেকে রেহাই দিতে পুলিশের প্রতি আহ্বান জানান তারা।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: