শুক্রবার, ১৮ জানুয়ারী ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ মাঘ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
জিয়াউর রহমানের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে কর্মসূচি ঘোষণা  » «   সীমান্তের খালে মিয়ানমারের সেতু, বন্যার আশঙ্কা বাংলাদেশে  » «   দ্বিতীয় কৃত্রিম উপগ্রহ পাঠাবে বাংলাদেশ: শাবিতে পরিকল্পনামন্ত্রী  » «   আতিয়া মহল মামলা: ৫ দিনের রিমান্ডে ৩ আসামি  » «   শেখ হাসিনা হত্যাচেষ্টা মামলা: হাইকোর্টে আপিল শুনানি শুরু  » «   টিআইবির রিপোর্টে সরকার ও ইসির আঁতে ঘা লেগেছে: বিএনপি  » «   মাফিয়াদের স্বর্গরাজ্যে দশ বাংলাদেশির অনন্য সাহসিকতার নজির  » «   ১৪ দলের শরিকদের বিরোধী দলে থাকাই ভালো: ওবায়দুল কাদের  » «   সন্ত্রাস-মাদক-জঙ্গিবাদের মতো দুর্নীতির বিরুদ্ধেও ‘জিরো টলারেন্স’ : প্রধানমন্ত্রী  » «   সংসদ সদস্যদের শপথের বৈধতা নিয়ে রিট খারিজ  » «   কৃত্রিম কিডনি তৈরি করলেন বাঙালি বিজ্ঞানী  » «   ব্রেক্সিট ইস্যু: অনাস্থা ভোটে টিকে গেলেন তেরেসা মে  » «   টিআইবির প্রতিবেদন গ্রহণযোগ্য নয়, পুরোপুরি প্রত্যাখ্যান করি: সিইসি  » «   জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে অফিস করছেন শেখ হাসিনা  » «   সংসদ কার্যকর রাখতেই বিরোধী দলে জাপা : জিএম কাদের  » «  

বিয়ের ১৮ ঘণ্টা পরেই মৃত্যু হলো নববধূর



আন্তর্জাতিক ডেস্ক::মৃত্যু নিশ্চিত জেনেও হাসপাতালেই বিয়ে করলেন এক প্রেমিক যুগল। এর ঠিক ১৮ ঘণ্টা পর মারা যান নববধূ। মৃত্যুর আগে নববধূ তার সদ্য বিবাহিত স্বামীর প্রতি তার গভীর ভালবাসার কথা জানিয়েছিলেন।

যুক্তরাষ্ট্রের কানেকটিকাটের হার্টফোর্ড শহরের ফ্যান্সি হাসপাতাল ও মেডিকেল সেন্টারের সকল চিকিৎসক , কর্মী গত বছরের ২২ ডিসেম্বর এক অভূতপূর্ব দৃশ্য প্রত্যক্ষ করেন। বিয়ের সাদা পোশাকে অক্সিজের মাস্ক লাগিয়ে হাসপাতালের বেডে শুয়ে ছিলেন কনে হিথার মোসহের । এ অবস্থাতেই তার বিয়ে হয় প্রেমিক ডেভিড মোসহেরের সঙ্গে। বিয়ে সম্পন্ন হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে অক্সিজেন মাস্ক লাগানো অবস্থাতেই দুই হাত তুলে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন হিথার। আজ হিথার নেই। কিন্তু তার বিয়ের মুহূর্তের সেই ছবিটাগুলোই এখন ভাইরাল হয়ে ঘুরছে নেট দুনিয়ায়।

২০১৫ সালে হিথারের সঙ্গে প্রথম দেখা হয়েছিল ডেভিডের। প্রথম দর্শনেই প্রেম। ধীরে ধীরে গাঢ় হতে থাকে তাদের সম্পর্ক। কিন্তু সুখের সময় খুব বেশি স্থায়ী হয়নি তাদের। ঠিক যে সময় ডেভিড তার প্রেমিকা হিথারকে বিয়ের প্রস্তাব দেওয়ার পরিকল্পনা করেছিলেন ঠিক সেদিনই ধরা পড়ে হিথার স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত। এই খবর জানার পরও ডেভিড তার প্রস্তাব ফিরিয়ে নেননি। তিনি ঠিক করেছিলেন, প্রেমিকার এই কঠিন অবস্থায় সবসময় তিনি তার পাশে থাকবেন। কিন্তু হিথারের ক্যান্সার একদম শেষ পর্যায়ে ধরা পড়ে। একারণে চিকিৎসকরা তাদের জানিয়েছিলেন হিথারের বাঁচার কোন সম্ভাবনা নেই। তারপরও ডেভিড ঠিক করেছিলেন বিয়ের শপথ তিনি হিথারের সঙ্গেই নেবেন। তার শেষ সময়টাকে আনন্দে ভরিয়ে দেবেন।

প্রথমে তারা ঠিক করেছিলেন ডিসেম্বরের ৩০ তারিখ বিয়ে করবেন। কিন্তু হিথারের শারীরিক পরিস্থিতি দ্রুতই খারাপ হচ্ছিল। চিকিৎসরাও জানিয়েছিলেন, হিথারের হাতে খুব বেশি সময় নেই। একারণে হাসপাতালে ২২ ডিসেম্বর বিয়ের আয়োজন করা হয়। সাদা গাউনে হাসপাতালের বেডে শুয়ে ছিলেন হিথার। দুই পরিবারের আত্মীয়স্বজন, বন্ধু বান্ধরাও উপস্থিত ছিলেন। মৃত্যুশয্যাতেই প্রেমিকার হাতে আংটি পরিয়ে দেন ডেভিড। জীবনের শেষ শব্দ দুইটি উচ্চারণ করেন হিথার। প্রেমিকের দিকে গভীর দৃষ্টিতে তাকিয়ে বলেন, আই ডু’। এর কিছুক্ষণ পরেই শরীর আবারও খারাপ হতে শুরু করে হিথারের। বিয়ের ঠিক ১৮ ঘণ্টা পরেই তার মৃত্যু হয়।

ডেভিড বলেন, আমি তাকে তীব্র যন্ত্রনায় ছটফট করতে দেখেছি। কিন্তু বিয়ের আগ পর্যন্ত বেঁচে থাকার আশা হিথার ছাড়েনি। তার মতো কেউ কখনও ভালবাসতে পারবে না আমায়। তিনি আরও বলেন, যেখানে বিয়ের শপথ নিয়ে একসঙ্গে থাকার কথা ছিল আমাদের, সেখানে আমি আমার স্ত্রীকে চিরদিনের জন্য বিদায় জানালাম। সূত্র : টাইম

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: