বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
লন্ডনে মুসলিমদের ওপর গাড়ি হামলা, আহত ৩  » «   সরকারি চাকরিজীবীদের ৫% সুদে গৃহঋণের আবেদন অক্টোবরে  » «   ভারতে তিন তালাককে শাস্তিযোগ্য অপরাধ ঘোষণা  » «   স্কুলছাত্রীকে পিটিয়ে অজ্ঞান করলেন শিক্ষক  » «   বোমা দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র, আর ইয়েমেনে সেই বোমা ফেলছে সৌদি  » «   রাখঢাক রাখছেন না পর্নো তারকা ডানিয়েল স্টর্মি  » «   কাবা শরীফের ভেতরে প্রবেশের সুযোগ পেলেন ইমরান  » «   মিয়ানমারে নিলামে উঠছে সুচির ভাস্কর্য  » «   এক দিনেই মিলবে পাসপোর্ট  » «   ওসমানী বিমানবন্দরে বিমানে তল্লাশি : ৪০টি স্বর্ণের বার উদ্ধার, চোরাচালানী আটক  » «   কেউ বলতে পারবে না, কারো গলা টিপে ধরেছি: প্রধানমন্ত্রী  » «   সৌদি থেকে ফিরলেন ৪২ নারী গৃহকর্মী  » «   সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টে আরও ২০ কোটি টাকা অনুদান দেবেন প্রধানমন্ত্রী  » «   ইয়েমেনে দুর্ভিক্ষের ঝুঁকিতে ৫২ লাখ শিশু  » «   ‘২৩ হাজার পোস্টমর্টেম বনাম মানসিক সঙ্কট’  » «  

বিশেষ দিনে কদর বাড়ে যে চত্বরের



dr-milon20161127111946বাবা, ‘ওইখানে মানুষ ফুল দিচ্ছে কেন? পুলিশইবা কেন দাঁড়িয়ে আছে।’ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের বিপরীত দিকের একটি চত্বরে কয়েকজনকে ফুলেল শ্রদ্ধা জানাতে দেখে রাজধানীর পরীবাগের বাসিন্দা আতাহার আলীর সাত বছর বয়সী স্কুলগামী মেয়ে তার বাবাকে প্রশ্ন করে।

উত্তরে আতাহার আলী বললেন, মাগো এটি ৯০’র স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত তৎকালীন বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) এর যুগ্ম মহাসচিব শহীদ ডা. মিলনের স্মৃতিরক্ষার্থে নির্মিত চত্বর। ২৬ বছর আগে এইদিনে তিনি মারা যান।

তিনি মেয়েকে জানান, ডা. মিলিনের মৃত্যুতে রাজধানীসহ সারাদেশের চিকিৎসক সমাজসহ বিভিন্ন শ্রেণি ও পেশার মানুষ স্বৈরাচার এরশাদ সরকারের বিরুদ্ধে কঠোর আন্দোলনে নামে। মিলনের রক্ত ছুঁয়ে সরকারের পতন না হওয়া পর্যন্ত ঘরে ফিরে যাবে না বলে সবাই শপথ নেন। পরবর্তীতে ৬ ডিসেম্বর পতন হয় তৎকালীন এরশাদ সরকারের।

এরপর মেয়ে তাকে পাল্টা প্রশ্ন করে, ‘বাবা অন্যান্য সময় স্কুলে যাওয়ার সময় এ জায়গাটি এতো সুন্দর, পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন দেখি না কেন।’ এবার জবাব না দিয়ে চুপ করে রইলেন আতাহার আলী।

ছোট্ট এই স্কুলছাত্রীর মতো অনেকেরই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্য চত্বরের অদূরে অবিস্থত শহীদ ডা. মিলন চত্বরটি অচেনা ও অজানা। যে মিলনের বুকের তাজা রক্তে রাজপথ রঞ্জিত হওয়ার মধ্যে দিয়ে স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলন সফল হয়েছিল সে মিলনের স্মৃতি রক্ষার্থে নির্মিত চত্বরটির বিশেষ এই দিনে কদর বাড়ে।

সরেজমিনে দেখে গেছে, আজ সকালে মিলন স্মৃতি চত্বরে অন্যান্যের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, বিএমএ, জাসদ, চিকিৎসক সংসদ ও বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দলসহ বেশ কিছু ছোটবড় সংগঠনের পক্ষ থেকে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়।

 

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: