মঙ্গলবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
বুধবার সিলেটে সংস্কারকৃত শিশু আদালতের উদ্বোধন  » «   আজ হবিগঞ্জের লাখাই কৃষ্ণপুর গণহত্যা দিবস  » «   বুধবার মৌলভীবাজারে অর্ধদিবস হরতালের ডাক, প্রতিহতের ঘোষণা আ. লীগের  » «   গোলাপগঞ্জ পৌরসভা মেয়র উপ-নির্বাচন: প্রতীক বরাদ্দ আজ  » «   কারগারে মালির কাজ করছেন রাগীব আলী, ডিভিশনের আবেদন  » «   ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় ১০ অক্টোবর  » «   কোটা ইস্যুতে আন্দোলনকারী ও ছাত্রলীগের পাল্টাপাল্টি মিছিল  » «   আশুরা উপলক্ষে সুনির্দিষ্ট হুমকি নেই: ডিএমপি কমিশনার  » «   একনেকে অনুমোদন পেলো ইভিএম কেনা প্রকল্প  » «   জাতীয় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা বন্ধের নির্দেশনা চেয়ে রিট  » «   ৫৬৮ কেজির লাড্ডু দিয়ে পালিত হল মোদির জন্মদিন  » «   দেশের সব নাগরিককে অধিকার রক্ষায় সক্রিয় হতে হবে-ড. কামাল  » «   ঐতিহাসিক পিয়ংইয়ং সফরে সস্ত্রীক প্রেসিডেন্ট মুন  » «   ২০১৭-১৮ অর্থবছরে জিডিপির প্রবৃদ্ধি ৭.৮৬%  » «   মাদরাসা শিক্ষকের স্ত্রী ও ছাত্রকে গলাকেটে হত্যা  » «  

বিদ্যালয়ের ছাদের প্লাস্টার খঁসে শিক্ষিকা আহত



শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলার প্রাণ কেন্দ্রে অবস্থিত একমাত্র নারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হাজী অছি আমরুন্নেছা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের অফিস কক্ষের ছাদের প্লাস্টার ভেঙ্গে পড়ে সহকারী শিক্ষিকা চাঁদ সুলতানা আহত হয়েছেন। তাড়াহুড়ো করে বের হতে গিয়েও কয়েক শিক্ষকও আঘাতপ্রাপ্ত হন। ২ এপ্রিল রবিবার বিকালে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, ১৯৮৪ সালে নিম্নমানের মালামাল দিয়ে নির্মিত ৮০ ফুট দৈর্ঘ্য এবং ২০ ফুট প্রস্থ অফিস ভবনের ছাদের প্লাস্টার খঁসে লোহার রড় দেখা যাচ্ছে। প্রতিদিনের মত ররিবার দুপুরের বিরতির পর প্রধান শিক্ষিকা উম্মে কুলছুম সহ অন্যান্য সহকারী শিক্ষকগণ অফিস মিলনায়তনে বসে আছেন। এমন সময় কোন কিছু বুঝে উঠার আগেই ছাদের প্লাস্টার খঁসে পড়ে সহকারী শিক্ষিকা চাঁদ সুলতানার উপর। এতে তিনি মাথায় আঘাত পেয়ে মাটিতে পড়ে যান।

এসময় অন্যান্য শিক্ষকরা দ্রুত বের হতে গিয়েও কয়েকজন শিক্ষক আঘাত পান। পরে সহকারী শিক্ষিকা চাঁদ সুলতানাকে উদ্ধার করে প্রাথমিক চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন। উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ.জেড.এম. শরীফ হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে অফিস কক্ষ হিসেবে ব্যবহার না করার জন্য প্রধান শিক্ষিকাকে পরামর্শ দেন।

এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষিকা উম্মে কুলছুম বলেন, অফিস কক্ষ হিসেবে ব্যবহারের মতো আর কোন কক্ষ খালি নেই। এখন আমার অফিসিয়াল নথিপত্রই রাখব কোথায় এবং অন্যান্য শিক্ষকদের বসার ব্যবস্থা কিভাবে করবো বুঝতে পারছিনা। এ সমস্যা সমাধানের জন্য প্রধান শিক্ষিকা উম্মে কুলছুম সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: