শনিবার, ২৩ জুন ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
যমুনা নদীতে বিলীন হচ্ছে বসত বাড়ি, দেখার কেউ নেই!  » «   নতুন চলচ্চিত্রের জন্য ইরানে অনন্ত  » «   নেইমারের জার্সি গায়ে অপু ও জয়  » «   সিসিক নির্বাচন: আ.লীগ মেয়র প্রার্থী হলেন কামরান  » «   বাসায় ঢুকে অভিনেত্রীকে শ্লীলতাহানি!  » «   আর্জেন্টিনার হার, বেরিয়ে এলো বিস্ফোরক তথ্য!  » «   দুর্ঘটনা সড়কে মৃত্যুর মিছিল, নিহত ৩০, আহত ৪৭  » «   ‘নির্বাচনে জয়ী হতে গিয়ে যেন দলের বদনাম না হয়’  » «   হাসপাতালে পরীমনি  » «   আর্জেন্টিনার হার, ‘সুইসাইড নোট’ লিখে নিখোঁজ মেসি ভক্ত  » «   সাপাহারে ট্রাক ও ভ্যানের মুখো-মুখি সংঘর্ষে নিহত-২  » «   দুর্ঘটনার দিন ঢাকাতেই ছিলাম না’  » «   ভক্তদের হতাশ করেনি ব্রাজিল : অতিরিক্ত সময়ই বিশ্বকাপে টিকিয়ে রাখল নেইমারদের  » «   হাসপাতালের এক্সরে রুমে রোগীর মাকে ধর্ষণের চেষ্টা!  » «   গজারী বনে যুবতীর অর্ধগলিত লাশ  » «  

বাজার স্থিতিশীল, কমেছে বেশ কয়েকটি পণ্যের দাম



নিউজ ডেস্ক: প্রতি বছর রমজান আসলে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বেড়ে যায়। স্থানীয়ভাবে কৃষিপণ্য উৎপাদন করা হলেও দাম বাড়ে আকাশচুম্বি। শুধু কৃষিপণ্য নয় মসলাসহ মাছ, মাংসের দামও বাড়ে। তবে এবার খাগড়াছড়ির বাজারের চিত্র ভিন্ন।
এবার রমজান আসার কয়েকদিন আগ থেকে বাজার স্থিতিশীল। বেশকিছু কাঁচা পণ্যের দামও কমেছে। রমজান ঘিরে অধিক মুনাফার লোভে মজুদ রাখা নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য কম দামে বিক্রি করছেন বলে জানান ব্যবসায়ীরা।

খাগড়াছড়ির বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বেগুন, শশা, কাঁচামরিচ, বরবটি, করলা, পটল, পেয়াঁজ,
ছোলা, ডিম ও তেলের দাম রয়েছে সহনীয় পর্যায়ে। এর মধ্যে রমজান মাস আসার পর কমেছে বেশ কয়েকটি পণ্যের দাম।

বাজার স্থিতিশীল খাগড়াছড়িতে
করলা বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকা, পটল ৪০ টাকা, বরবটি ৪০ টাকা ও বেগুন ৫০ টাকায়। রমজান আসার পর এসব পণ্যে দাম কমেছে ১০ থেকে ১৫ টাকা। ব্রয়লার মুরগি ১৪০ টাকা, দেশি মুরগি ৩৫০ টাকা ও কক ২৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। কেজিতে দাম কমেছে১৫/২০ টাকা।

পেয়াঁজ ২৫ টাকা, আলু ২২ টাকা, ডিম এক হালি ২৬ টাকা, ছোলা ৬৫ টাকা, কাঁচা মরিচ ৪০ থেকে ৫০ টাকা, চিনি ৫৮ থেকে ৬০টাকা, রসুন ৭০ টাকা, তেল ৯০ থেকে ১শ’ টাকা, খেজুর ৯০ টাকা। গরুর মাংস ৫শ’ টাকা, খাসির মাংস ৮শ’ টাকা, রুইমাছ/মৃগেল ২৫০ টাকা, কাতাল ৩শ’ টাকা, তেলাপিয়া ১৬০/৮০ টাকা, চিংড়ি বাগদা ৪৮০/৫০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

খাগড়াছড়ি পলাশ স্টোরের সত্ত্বাধিকারী পলাশ দে ও পাইকারি সবজি ব্যবসায়ী রেজাউল ইসলাম জানান, এবছর রমজানে জিনিসের দাম বাড়েনি। উল্টো বেশকিছু পণ্যের দাম কমেছে। সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীরা সুবিধা করতে না পেরে কম দামে মাল বিক্রি করছে।

খাগড়াছড়ির মাংস ব্যবসায়ী মো. নাছির উদ্দিন বলেন, রমজানের আগে-পরে মাংসের দামে কোনো পার্থক্য নেই। রমজানের আগে যে দামে মাংস বিক্রি করেছি এখনও সেই দামেই বিক্রি করা হচ্ছে। প্রশাসনের নজরদারি রয়েছে।

খাগড়াছড়ির জেলা প্রশাসক মো. রাশেদুল ইসলাম বলেন, প্রতি বছর রমজানে একটি চক্র পণ্য মজুদ রেখে অধিক দামে বিক্রি করে। এতে বাজার অস্থিতিশীল হয়ে যায়। এবার বাজারে আমাদের বিশেষ নজরদারি রয়েছে। মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হচ্ছে। বিগত বছরগুলোর তুলনায় এবার বাজার স্বাভাবিক আছে।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: