শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদ
রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়িয়ে দুই পুরস্কার পাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী  » «   ডিজিটাল পাঠ্যবই শিক্ষার্থী ও শিক্ষক উভয়ের জন্য সহায়ক হবে: শিক্ষামন্ত্রী  » «   কাল পবিত্র আশুরা, তাজিয়া মিছিলে ছুরি-তলোয়ার নিষিদ্ধ  » «   জেল থেকে বাসায় ফিরলেন নওয়াজ-মরিয়ম  » «   রোহিঙ্গাদের জন্য বিশ্বব্যাংকের ৫ কোটি ডলার সহায়তা  » «   রান্নাঘরের গ্রিল কেটে শাবির ছাত্রী হলে চুরি,নিরাপত্তাহীনতায় ছাত্রীরা  » «   এখনও জঙ্গি হামলার ঝুঁকিতে বাংলাদেশ : যুক্তরাষ্ট্র  » «   মোদিকে ইমরানের চিঠি: পুনরায় শান্তি আলোচনা শুরুর তাগিদ  » «   খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতেই বিচার চলবে: আদালত  » «   ফুটপাতের খাবার বিক্রেতা থেকে সিঙ্গাপুরের রাষ্ট্রপতি!  » «   বিএনপি নেতাদের ওপর ক্ষুব্ধ তারেক রহমান!  » «   পায়রা বন্দরের নিরাপত্তায় পুলিশের বিশেষ আয়োজন  » «   সরকারের চাপের মুখে দেশত্যাগ করতে হয়েছে: এসকে সিনহা  » «   পুতিন আমাকে হত্যার চেষ্টা করেছে : রাশিয়ান মডেল  » «   বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপ: ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত  » «  

বাংলাদেশকে বিশ্বসভায় মর্যাদার আসনে বসাতে সম্মিলিত প্রয়াস দরকার





নিউজ ডেস্ক::প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জ্ঞান, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে বাংলাদেশকে বিশ্বসভায় মর্যাদার আসনে প্রতিষ্ঠিত করতে সম্মিলিত প্রয়াসের ওপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন। তিনি বলেন, আমি আশা করি, সকলের ঐক্যবদ্ধ প্রয়াসের মাধ্যমে আমরা জ্ঞান, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে বাংলাদেশকে বিশ্বসভায় মর্যাদার আসনে প্রতিষ্ঠিত করতে পারবো। সর্বকালের সর্বশ্রষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত এবং নিরক্ষরতা ও অসাম্প্রদায়িক স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ বিনির্মাণ করতে সক্ষম হবো।

শেখ হাসিনা জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহ উপলক্ষে এক বাণীতে এসব কথা বলেন। সবার জন্য মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে ‘জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহ-২০১৮’ পালন করা হচ্ছে জেনে তিনি সন্তোষ প্রকাশ করেন।

প্রদানমন্ত্রী বলেন, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যুদ্ধবিধ্বস্ত সদ্য স্বাধীন দেশকে পুনর্গঠনে সর্বশক্তি দিয়ে কাজ শুরু করেছিলেন। তিনি (বঙ্গবন্ধু) এ ক্ষেত্রে সবচেয়ে অগ্রাধিকার দিয়েছিলেন শিক্ষাখাতকে। তিনি হাজার হাজার বিধ্বস্ত, স্কুল-কলেজ পুনঃস্থাপন করেন। নতুন নতুন বিদ্যালয় ও কলেজ ভবন নির্মাণ করেন। জাতির পিতা প্রাথমিক শিক্ষাকে অবৈতনিক ঘোষণাসহ দেশের ৩৭ হাজার ১৬৫টি প্রাথমিক বিদ্যালয়কে জাতীয়করণ করেন।

শেখ হাসিনা বাণীতে উল্লেখ করেন, তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর আধুনিক জাতি গঠনের পাশাপাশি দেশে সুষম ও টেকসই উন্নয়ন ত্বরান্বিত করতে সুশিক্ষিত ও দক্ষ জনশক্তি গড়ে তুলতে তার সরকার দেশের শিক্ষাখাত বিশেষ করে প্রাথমিক শিক্ষার ওপর সর্বাধিক গুরুত্বারোপ করেছে। ইতোমধ্যে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গমনোপযোগী প্রায় শতভাগ শিশুর ভর্তি নিশ্চিত করা হয়েছে। সমাপনী পরীক্ষায় প্রায় শতভাগ উত্তীর্ণ হচ্ছে। প্রাথমিক শিক্ষারক্ষেত্রে লিঙ্গ সমতা অর্জিত হয়েছে এবং তা বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত হয়েছে।

শেখ হাসিনা জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা সপ্তাহ-২০১৮ উপলক্ষে গৃহীত সকল কর্মসূচির সার্বিক সাফল্য কামনা করেন।

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার বস্তুনিষ্ট মতামত প্রকাশ করুন

টি মন্তব্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Developed by: